শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ পারভেজের টর্চার সেলে পরিনত কোতয়ালী থানা সংবাদ সম্মেলনে সাবেক ছাত্রলীগ নেতার অভিযোগ

রফিকুল ইসলাম ফুলাল : নির্যাতত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল্লাহ আল মামুনের অভিযোগ দিনাজপুর কোতয়ালী থানা জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ পারভেজের টর্চার সেলে পরিনত হয়েছে! পুলিশের সামনেই তাকে নির্দয় ভাবে পেটানো হলেও তাকে উদ্ধার না করে চাঁদাবাজীর মামলায় আটক করা হয়।

শুক্রবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ করেছেন চিরিরবন্দরের রানীপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের পুত্র সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মো: আব্দুল্লাহ আল মামুন।

দিনাজপুর সরকারী কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ শাখার সাবেক সভাপতি ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল্লাহ আল মামুন সাংবাদিকদের অভিযোগ করেন দিনাজপুর কোতয়ালী থানার গোল ঘরে তাকে নির্মম ও নিষ্ঠুর নির্যাতন করেছে দিনাজপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ পারভেজ।

এসময় লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন,পূর্ব শত্রুতার কারনে দিনাজপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ পারভেজ,মাসুদ রানা শামীম ও তার সন্ত্রাসীরা গত ৫ নভেম্বর রাতে তাকে বাড়ি থেকে জোরপূর্বক তুলে এনে কোতয়ালী থানার গোল ঘরে নিষ্ঠুর ভাবে শারিরিক নির্যাতন চালায়। ওই রাতে টর্চার সেলে রাশেদ পারভেজ ও তার সঙ্গীরা তাকে এলোপাতারী নির্দয়ভাবে পেটালেও কোন পুলিশ সদস্য এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করেনি। অথচ মামুনকে পিটিয়ে মুমূর্ষ আহত করার পর উল্টো তাকেই চাঁদাবাজীর মিথ্যা মামলা সাজিয়ে কোতয়ালী থানা পুলিশের কাছে সোর্পদ করা হয়।

নিষ্ঠুর নির্যাতনের স্বীকার মামুন বলেন, পুলিশের সামনেই আমাকে নির্যাতনের পর তারা আমার পকেট থেকে নগদ ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা এবং নিজের ব্যবহৃত এন্ড্রয়েট মোবইল ফোনটিও কেড়ে নিয়ে উল্টো আমাকেই চাঁদাবাজির মামলায় আসামী করে চালান দেয়। পরের দিন ৬ নভেম্বর আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হয়েই আমি চিকিতসার জন্যে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্ত্তি হই। তিনি জানান, পরে ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত উল্লেখ করে আমার স্ত্রী আকতারিনা বেগম বাদী হয়ে চিরিরবন্দর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তিনি বলেন, আমি ও আমার পরিবার বঙ্গবন্ধুর আর্দশের সৈনিক হয়েও নিষ্ঠুর নির্যাতনের শিকার হলাম, হয়তো আমার চোখের রেটিনা নষ্ট হয়ে যাবে। থানায় বসিয়ে কিভাবে একজন মানুষকে এভাবে নির্দয়ভাবে পেঠানো যায় তা স্ব চোখে না দেখলে কারো বিশ্বাস হবে না। তিনি বলেন, নির্যাতনের সময় আমার মনে হচ্চিলো এটি হয়তো যবুলীগের সভাপতি রাশেদের নিজস্ব টর্চার সেল।

আমাকে যারা থানার মধ্যে বসিয়ে ঠান্ডা মাথায় হত্যার উদ্দ্যোশে নিষ্ঠুর নির্যাতন করে অসুস্থ বানিয়েছে আমি তাদেরসহ তদন্ত সাপেক্ষে জড়িত থানা পুলিশের কর্মকর্তাদের কঠোর শাস্তি দাবী করছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, মামুনের স্ত্রী আকতারিনা বেগম, মো: নাজিমুদ্দীন নাজিয়া, মো: হবিবর রহমান,শাহিনুর ইসলাম মিলন, ইস্রাফিল হোসেন প্রমুখ।