বৃহস্পতিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

জয় দিয়েই লীগ পর্ব শেষ খুলনার

Sport

কুমিল্লার বিপক্ষে ১৪ রানের জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসে বিপিএলের এবারের আসরের লীগ পর্ব শেষ করল খুলনা টাইটান্স।

মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে খুলনা ৬ উইকেটে ১৭৪ রান করে। জবাবে কুমিল্লা ৭ উইকেটে ১৬০ রানেই থেমে যায়।

আগে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা ছিল রিয়াদদের। ৬ ওভারে স্কোর বোর্ডে জমা হয় ৫৫ রান। ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত ছিলেন আগ্রাসী। ৪টি চার ও ২টি ছয়ে ২১ বলে তুলে ফেলেন ৩৭ রান। উল্টো দিকে সঙ্গী ক্লিঙ্গার ছিলেন ধীর-স্থির। নাজমুলকে ৩৭ রানে বোল্ড করে এই আগ্রাসন থামান আল আমিন। এরপর ক্লিঙ্গারও থিতু হতে পারেননি।

স্কোরবোর্ডে কিছু রান জমা করে দলীয় ৮৭ রানে সলোমন মিরের বলে তামিমকে ক্যাচ দিয়ে তিনি ফেরেন ২৮ বলে ২৯ রান করে। তার বিদায়ের পর রানের চাকা সচল রাখার চেষ্টা করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও নিকোলাস পুরান। যদিও খুব বেশি মেরে খেলতে পারেননি অধিনায়ক। ২৩ বলে ২৩ রান তোলার পরই উইকেটের পেছনে আল আমিনের বলে ক্যাচ দিতে বাধ্য হন। তখন স্কোর ছিল ৯৫ রান।

এরপর ১০৩ রানে পুরানকে স্টাম্পিং করেন শোয়েব মালিক। মাঝে রানের চাকা কিছুটা ধীর গতির হলে শেষ দিকে গতি বাড়ান ব্র্যাথওয়েট ও আরিফুল হক। তাদের ব্যাটে ভর করেই মোট স্কোরের শেষ ফিফটি আসে ২৬ বলে। ব্র্যাথওয়েট দুর্ভাগ্যজনকভাবে রান আউট হওয়ার আগে ১২ বলে করেন ২২ রান। যাতে ছিল ৩টি চার ও একটি ছয়।

অপরদিকে শেষ বলে ফিরে যাওয়ার আগে ২১ বলে ৩৫ রান করেন আরিফুল। যেখানে ছিল ৪টি চার ও একটি ছয়। এছাড়া বেনি হাওয়েল ৩ বলে ২ চারে অপরাজিত থাকেন ৯ রানে।

কুমিল্লার পক্ষে ৪ ওভারে ৫২ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন আল আমিন। একটি করে নেন শোয়েব মালিক ও সলোমন মির।

১৭৫ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে প্রথম ওভারেই সুলেমান মিরেকে হারায় কুমিল্লা। এরপর অবশ্য তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েসের ব্যাটে তারুণভাবে ঘুরেও দাঁড়ায় দলটি। ৪৬ বলে এই দুজন সংগ্রহ করেন ৬৩ রান। ইমরুল ফিরতেই বদলে যায় ম্যাচের চেহারা। ১৯ বলে ২০ রান করেন তিনি।

খানিকবাদে ৩০ বলে ৩৩ রান করা তামিমও প্যাভিলিয়নমুখী হন। শোয়েব মালিক ও জস বাটলার ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেছিলেন। দলীয় ৯০ রানে ফিরে যান বাটলার। ১৬ বলে ১১ রান করেন এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান। বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি মালিকও। দলের রান তখন ১২৭, ইরফানের বলে মাহমুদউল্লাহর ক্যাচে পরিণত হন তিনি। এরপর আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি কুমিল্লা।

মারলন স্যামুয়েলস চেষ্টা করলেও দ্রুততম সঙ্গে রান নিতে পারেননি এই ক্যারিবীয় ক্রিকেটার। শেষ দুই ওভারে রকিবুল হাসান দ্রুত রান নেয়ার চেষ্টা করেন। তবে সেটিও যথেষ্ট ছিল না। রকিবুল ৯ বলে ১৭ ও স্যামুয়েলস করেন ২৫ রান।

খুলনার বোলারদের মধ্যে আবু জায়েদ ও বিনি হাওয়েল নেন দুটি করে উইকেট।

রাকিবুল হাসানের উইকেট পেয়ে এবারের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে ১৮ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিদের তালিকাতে আবারও সবার উপরে উঠে গেলেন খুলনার পেসার আবু জায়েদ চৌধুরি রাহী। রাহীর থেকে এক ম্যাচ কম খেলে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা সাকিবের উইকেট সংখ্যা ১৭টি।

ম্যাচ সেরা হয়েছেন খুলনার ২১ বলে ৩৫ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলা আরিফুল হক।