বৃহস্পতিবার ২ এপ্রিল ২০২০ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঝাড়খণ্ডে বিজেপিকে ক্ষমতাচ্যূত করল জেএমএম-কংগ্রেস জোট

ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা তথা জেএমএম ও কংগ্রেস জোট শাসক বিজেপির থেকে বেশ কিছুটা এগিয়ে গিয়েছে। যদিও ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা রঘুবর দাস বলেছেন, এখনই এই নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফল নিয়ে কিছু ভবিষ্যৎবাণী করা উচিত নয়। এই মুহূর্তে বিজেপি ২৬, জেএমএম ও কংগ্রেস জোট ৪৪টি আসনে এগিয়ে। ৮১ সদস্যের কক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হল ৪১টি আসন। তিনটি এগজিট পোলে জেএমএম ও কংগ্রেস জোটের জয়ের কথাই বলা হয়েছে। গত ৩০ নভেম্বর থেকে ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত পাঁচটি পর্যায়ে ভোট সম্পন্ন হয়। সকাল ৮টায় ২৪টি জেলা সদর দফতরে কড়া প্রহরার মধ্যে গণনা শুরু হয়েছে। তিনটি বুথ ফেরত সমীক্ষায় দেখানো হয়েছে, ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা, রাষ্ট্রীয় জনতা দল এবং কংগ্রেস জোট জিততে পারে বিজেপি-অল ঝাড়খণ্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়নের জোটের বিরুদ্ধে। ২০১৯ লোকসভায় বিজেপি ১৪টি আসনের মধ্যে ১১টিতেই জয়ী হয়েছিল।

ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের ফলাফল সংক্রান্ত ১০টি তথ্য :

বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র বিজয় সোনকর শাস্ত্রি এনডিটিভিকে বলেন, “ঝাড়খণ্ডের ফলাফল সম্পর্কে যা প্রত্যাশা করা গিয়েছিল সেই অনুরূপ ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে না, কারণ বিজেপি ৬৫ টিরও বেশি আসনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে ছিল”। তিনি আরও বলেন যে এটা স্পষ্ট হয়েছে যে বিজেপি তার উন্নয়নমূলক কর্মসূচির বিষয়ে ঝাড়খণ্ডের জনগণকে বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছে।

এই মন্তব্য থেকে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে বিজেপি অন্য গেমপ্ল্যানে যেতে চাইছে। এজেএসইউয়ের সঙ্গে জোট তারা নির্বাচনের আগে ভেঙে দেয়। দলীয় মুখ্য নেতা সুদেশ মাহাতো সিদ্ধান্ত নেন একা লড়াই করার। এজেএসইউ ৫২ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। সূত্রের খবর, বিজেপি ইতিমধ্যেই বাবুলাল মারাণ্ডির নেতৃত্বে ঝাড়খণ্ড বিকাশ মোর্চার পাশাপাশি ছোট দলগুলোর সঙ্গেও হাত মেলানোর চেষ্টা করছে।

সকাল ৮টায় ঝাড়খণ্ডের ২৪টি কেন্দ্রে গণনা শুরু হয়েছে।

এবারের নির্বাচনে নজরকাড়া প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস, তাঁর পূর্বসূরী হেমন্ত সোরেন, অল ঝাড়খণ্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়নের সভাপতি সুদেশ মাহাতো এবং ঝাড়খণ্ড বিকাশ মোর্চার বাবুলাল মারাণ্ডি।

২০১৪ নির্বাচনে বিজেপি পেয়েছিল ৩৭টি আসন, ৫টিতে জিতেছিল অল ঝাড়খণ্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়ন। মাত্র ৬টি আসনে জিতেছিল কংগ্রেস।

বুথ ফেরত সমীক্ষায় কংগ্রেস-জেএমএম-আরজেডি জোট সুবিধাজনক জায়গায় থাকবে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে দুটি দল আবার জানিয়েছে, তারা একাই ৪১ আসন পাবে।

রঘুবর দাস দাঁড়িয়েছেন জামশেদপুর পূর্ব কেন্দ্র থেকে। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী একদা দলীয় সতীর্থ সরযূ রায়, কংগ্রেসের গৌরব বল্লভ। 

বিরোধী জোটের তরফে হেমন্ত সোরেনকে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। তিনি তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী শিবু সোরেনের ছেলে। ২০১৩ এবং ২০১৪ এই পদে ছিলেন তিনি।

জেএমএম-এর সাধারণ সম্পাদক বিনোদ পাণ্ডে বলেন, “মহাজোট সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে। বিজেপি সরকারের ওপর হতাশ সাধারণ মানুষ।

বিরোধী জোটের তরফে হেমন্ত সোরেনকে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। তিনি তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী শিবু সোরেনের ছেলে। ২০১৩ এবং ২০১৪ এই পদে ছিলেন তিনি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email