মঙ্গলবার ২২ মে ২০১৮ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ঝাড়বাড়ী-জয়গঞ্জ খেয়াঘাট সেতু বাস্তবায়ন কমিটি গঠন

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ আত্রাই নদীর ঝাড়বাড়ী-জয়গঞ্জ খেয়াঘাটে স্বাধীনতা লাভের এতদিন পরেও সেতুটি আজও হয়নি। অনেক আবেদন-নিবেদন করেও কোনো লাভ হয়নি। আশ্বাস দিলেও আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি। এতে ঠাকুরগাও-নীলফামারী জেলাসহ এ অঞ্চলের এ পথে যাতায়াতকারী মানুষের দূর্ভোগ কমেনি।

অথচ সেতুটি নির্মাণ হলে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ, খানসামাসহ ঠাকুরগাও ও নীলফামারী জেলার মধ্যে সেতু বন্ধনের দ্বার উন্মোচন হতে পারে।

দুর্ভোগ থেকে বাচঁতে পারে লক্ষাধিক মানুষ যারা এ নদীপথে বাশেঁর সাকো দিয়ে যাতায়াত করে। আত্রাই নদীতে সেতু না থাকায় বাশের সাকো কিংবা বর্ষা মৌসুমে নৌকা দিয়ে পারাপার হতে লক্ষাধিক মানুষের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়।

বর্ষা মৌসুমে নদীর পানি বৃদ্ধি পেলে প্রবল ¯্রােতের মধ্যে খেয়া নৌকায় জীবনের ঝুকি নিয়ে সকলকে পার হতে হয়। এসময় প্রায় নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।

এবার স্থানীয়রা আত্রাই নদীর জয়গঞ্জ আন্তঃজেলা খেয়া ঘাটে সেতু নির্মাণ দাবীতে আন্দোলন জোরালো করতে ঝাড়বাড়ী-জয়গঞ্জ খেয়াঘাট সেতু বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করা হয়েছে। গত ৬ মে শেখ মোঃ জাকির হোসেনকে আহবায়ক করে ২২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্যরা হলেন যুগ্ম আহবায়ক মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক, যুগ্ম আহবায়ক ডাঃ এ.বি.সিদ্দিক, যুগ্ম আহবায়ক মোঃ শেখ ফরিদ সবুজ, সদস্য মোঃ ফজলুল হক,ডাঃ কামরুল ইসলাম, মোঃ মতিউল ইসলাম, তাসমি আল বারি,মোঃ ইউসুফ আলী, রুবাইয়াত ই ওমর ফারুক, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ আরিফ রব্বানী, মোঃ নুরুল আমিন, মোঃ হাসিনুর রহমান, মোঃ মেহেদী হাসান (মুন), মোঃ আনোয়ার, মোঃ রাশিদুল ইসলাম (রাশেদ) মোঃ আতিক, মোঃ মামুন,মোঃ রশিদুল ইসলাম, মোঃ মাজেদুর রহমান, মোঃ আসাদুজ্জামান প্রমুখ।

এদিকে সেতুটি নির্মাণ হলে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ,খানসামাসহ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ,খানসামা, ঠাকুরগাঁও গড়েয়া হাট, নীলফামারী সদর উপজলোর নীলসাগর দীঘি, ভবানীগঞ্জ হাট এর মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির পাশাপাশি ওই অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটবে। সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ ঠাকুরগাঁও  ও নীলফামারী জেলা শহরের সাথে সরাসরি আসা-যাওয়া করতে পারবেন। এতে সহজ এ হয়ে উঠবে শিক্ষা, চিকিৎসা, বানিজ্যসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন।

দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজলোর শতগ্রাম ইউনিয়নের ঝাড়বাড়ী চৌরাস্তা মোড় থেকে আত্রাই নদী পার হয়ে র্পূব দক্ষিণে নীলফামারী ১৭ কি.মি, আর আত্রাই নদীর পশ্চিমে ঠাকুরগাঁও ২২ কি.মি।

ভবানীগঞ্জের আলু ব্যবসায়ী রহিমুল ইসলাম বলেন, রবিবার ও বুধবার গড়েয়া হাট করি। তবে বর্ষার সময় রাতে ঘাটে নৌকা পাওয়া কষ্টকর হয়ে যায়।

শতগ্রাম ইউপি আ’লীগের সাবেক সভাপতি সৈয়দ আতাউর রহমান বলেন, ঠাকুরগাও জেলা শহর থেকে ঝাড়বাড়ী হয়ে নদীর জয়গঞ্জ ঘাট দিয়ে নীলফামারী জেলার সাথে ব্রিটিস আমল থেকেই যোগাযোগ ছিল। এ কারণেই উভয়দিকের রাস্তাটিও অনেক প্রসস্থ।

খানসামার আলোকঝাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আ স ম আতাউর রহমান বলেন, এই জয়গঞ্জ ঘাট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ পারাপার হয়্। এখানে সেতু নির্মিত হলে এ অঞ্চলের বড় বড় হাটগুলোর পন্যসামগ্রী সহজে অন্যত্র যেতে পারবে। এর ফলে এ অঞ্চলের উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষের ব্যবসায়িক পরিবর্তন ঘটবে।