বুধবার ৩ মার্চ ২০২১ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঝুপড়ি ঘরে আনজুয়ারার বসবাস !

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: আনন্দ সুখের সংসার আজ একাকিত্ব জীবন নিয়ে বসবাস করছেন আনজুয়ারার। স্বামী ও সন্তান হারা (ছেড়ে চলে যাওয়া) পরিত্যক্তা আনজুয়ারা পেটের ক্ষুধা নিবারণে স্থায়ী কর্ম না পেয়ে গড়ে তুলেছেন ঐতিহ্যবাহী এক ঢেঁকি। আর সেই ঢেঁকিতে তার জীবন বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। এবংকি ঢেঁকির কাজ না থাকালে কামলা খেটে জীবন অতিবাহীত করেন আনজুয়ারা বলে জানা গেছে। কোন মতে কামলা খেটে ও ঢেঁকি চালিয়ে ৮ ডিসিমল জমি ক্রয় করে ঝুপড়ি ঘর নির্মাণ করলেও সেই ঝুপড়ি ঘরে বসবাস প্রায় অকেজো। শীতের এই মৌসুমে প্রায় দূর্ভোগে রাত পোহাচ্ছেন তিনি। আনজুয়ারার অভিযোগ একাধীক বার চেয়ারম্যানকে বললেও কোন সহায়তা পান নি তিনি। এমনকি তার বাড়ির পাশ দিয়ে গেলে মুখ ঘুরিয়ে নেন স্থানীয় চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান নুরু।

জানা গেছে, বিয়ের কয়েক বছরের মধ্যে সদ্য জন্ম নেয়া ৯ মাসের ছেলে নবজাতক শিশুসহ আনজুয়ারাকে ছেড়ে নতুন বিয়ে করে অন্যত্র পালিয়ে যায় স্বামী ইব্রাহিম। এর পর থেকে জীবন যুদ্ধে কামলা খেটে সংসারের হাল ধরেন আনজুয়ারা। থাকার জায়গা না থাকায় কামলায় খেটে প্রায় ১০-১৫ বছর আগে নিজে ৮ ডিসিমল জমি ক্রয় করে গড়ে তুলেন নিজের ছোট এক বাড়ি। তবে জমি ক্রয় করে কোন মতে বাড়ি তৈরি করলেও বসবাসে প্রায় অযোগ্য সে ঘর।অন্যদিকে একাকিত্ব জীবনে পেটের ক্ষুধা নিবারণে স্থায়ী কর্ম না পেয়ে গত ৩ বছর আগে সেই ছোট বাড়িতে গড়ে তুলেছেন ঐতিহ্যবাহী এক ঢেঁকি।

ঘটনাটি পঞ্চগড় সদর উপজেলার ১নং অমরখানা ইউনিয়নের মধুপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আনজুয়ারার।

সরেজমিনে অমরখানা ইউনিয়নের মধুপাড়া গ্রামে আনজুয়ারার সাথে কথা হয়। তিনি জানান, স্বামী- সন্তান অন্যত্র চলে যাওয়ার পর জীবন বাঁচাতে নেমে পড়ি কর্ম খুজতে। এর মাঝে একসময় পাথর ক্রাশিং মেশিনে কাজ করলেও এর পাশাপাশি স্থানীয় লোকজন সহ বিভিন্ন লোকের বাড়িতে কামলা দিছি। বর্তমানেও কামলা দিচ্ছি। তবে কামলার মাঝে স্থায়ী ভাবে ছোট একটি ঢেঁকি বসিয়ে একায় কাজ করি। চাল ক্রয় করে ঢেঁকিতে দিনে ৪-৫ কেজি করে গুড়ো করি। আর এর পর সেই গুড়োয় ভাকা (ভাপা পিঠা) তৈরি করে বিভিন্ন গ্রামে বিক্রি করে ২ থেকে ৩’শ টাকা আয় হয়। আর এ টাকায় নিজের চাহিদা মিটানো সহ বাড়ির কাজ করছি। বর্তমানে কাজ করতে পারছি। যখন অসুস্থ্য হবো তখন আমার কি হবে। আমি সাহায্য পাওয়ার আশায় অনেকবার স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বারের কাছে গেছি। কিন্তু কেও আমার দিকে দেখছে না।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রায় মানবেতর ভাবে জীবন যাপন করছেন আনজুয়ারা। কাজে না গেলে কোন দিন বাড়ির চুলাও জ্বালাতে পারে না সে। বর্তমানে তার একমাত্র ভরসা হয়ে উঠেছে ঢেঁকি। এই ঢেঁকিতে গুড়ো করে তা পিঠা তৈরি করে বিক্রি করে জীবন অতিবাহীত করছে।

এ বিষয়ে পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফ হোসেন জানান, খবর পেয়ে আমি আনজুয়ারার বাড়ি পরিদর্শন করেছি। প্রাথমিক ভাবে তাকে কম্বল দিয়েছি। আগামী এক মাসের মধ্যে তাকে নতুন ঘর দেওয়া হবে। আশা কনরছি আগামী ৭ দিনের মধ্যে ঘরের কাজ শুরু হবে।

তিনি আরো জানান, ভাতার আওতায় যেটা আসে সেটা আমরা দিবো এবং সঙ্গে আমি নিজে আর্থিকভাবে সহায়তা করবো যাতে তিনি ভালোভাবে থাকতে পারেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email