বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

টানা দু’রজনী ‘কনক সরোজিনী’ মঞ্চায়ন

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর নাট্য সমিতির শতবর্ষী মঞ্চে পরপর দুই রজনী মঞ্চস্থ হয়ে গেল নতুন নাটক ‘কনক সরোজিনী’র উদ্বোধনী প্রদর্শনী। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে সাড়ে ৭টায় প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী।

দিনাজপুর নাট্য সমিতি প্রযোজিত ও ইতিহাস আশ্রিত এই নাটকে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন সুপ্রীতি প্রিয়া। এছাড়াও অন্য চরিত্রে ছিলেন- সম্বিত সাহা সেতু, তরিকুল আলম তরু, ওমর শরীফ, কথক, শুক্লা সাহা, রেনু বেগম, স্মৃতি, সেখ ছগীর আহমেদ কমল, টঙ্কনাথ রায়, রাজিব হোসেন, কনক রায়, জাহিদ হোসেন প্রমুখ।

দিনাজপুর নাট্য সমিতির শতবর্ষী মঞ্চে অনুষ্ঠিত নাটকটির পুরো অংশই উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী। তার সঙ্গে ছিলেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। এছাড়া নাট্য সমিতিতে ‘কনক সরোজিনী’ নাটকটি উপভোগ করেন জেলার নাট্যপাগলপ্রিয় মানুষেরা। কানায় কানায় পূর্ণ ছিল পুরো নাট্য সমিতি হল। নাটক শুরুর পূর্বে উদ্বোধক ড. গওহর রিজভীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান নাট্য সমিতির সভাপতি চিত্ত ঘোষ। অতিথি সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান নাট্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজাউর রহমান রেজু।

‘কনক সরোজিনী’ নামে মাহমুদুল ইসলাম সেলিম রচিত এ নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন তরুণ নাট্যপ্রতিভা নয়ন বার্টেল। বাংলার নাটকে ঊনিশ শতক নানা কারণেই স্মরণযোগ্য। ভারতীয় রেনেসাঁ উত্তর এই সময়ে বাংলা নাটকের অভাবনীয় পরিবর্তন সাধিত হয়। পেশাদার রঙ্গমঞ্চ এ সময়ে পূর্ণাবয়ব লাভ করে। কলকাতার এই নাট্যযাত্রার প্রভাব তৎকালীন পূর্ববাংলার ঢাকাসহ মফস্বল শহরে ছড়িয়ে পড়ে। তখনকার নাটকে মূলস্রোতে দাঁড়িয়েছেন নারী অভিনেত্রীরা। তাদের ভাসমান জীবন, মূল্যহীন যৌবন, আর অবশ্য বিক্রয়যোগ্য প্রতিভা বা ক্ষমতা সবটাই পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় পণ্য।

শিল্পী এখানে দেহ সৌষ্ঠব আর লিঙ্গের কারণেই গুরুত্বহীন। হয়ত তাদের অকালমৃত্যু আর নিরন্তর আত্মত্যাগের মধ্য দিয়েই গড়ে উঠেছে আমাদের অজানা পেশাদার রঙ্গমঞ্চের অলিখিত ইতিহাস। ইতিহাসের সেসব ঘটনাই উপজীব্য হয়েছে এই নাটকে। অভিনেত্রী বিক্রয়ের প্রসঙ্গটি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচিত হয়েছে এতে। আজ বিংশ শতাব্দিতে দাঁড়িয়ে আমরা কি পেরেছি নারীর প্রতি সেই কুৎসিত দৃষ্টিভঙ্গি ফেরাতে? তেমনি অনেক প্রশ্নের উদ্রেক রয়েছে এই নাটকে।

নবনির্মিত এ নাটকের মঞ্চ পরিকল্পনা করেন ফজলে রাব্বি সুকর্ণ, সংগীত ও আলোকায়ন করছেন নির্দেশক নিজেই। শতবর্ষী ঐতিহ্যের নাট্যসংগঠন দিনাজপুর নাট্য সমিতি। এটি নয়ন বার্টেল নির্দেশিত ১৭তম প্রযোজনা। এর আগে ‘ক্ষতবিক্ষত’, ‘ময়ূর সিংহাসন’, ‘প্রাগৈতিহাসিক’সহ বেশ কিছু দর্শকপ্রিয় নাটক উপহার দিয়ে নিজেকে একজন মেধাদীপ্ত নির্দেশক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। নাটকের প্রতিটি দৃশ্যের শেষে নাট্যমোদি দর্শকের করতালি অভিনয় শিল্পীদের বেশ উৎসাহ যুগিয়েছে।

এক ঘণ্টা পঁয়তাল্লিশ মিনিট দীর্ঘ সময়ের নাটক দেখে মুগ্ধ হলেন উদ্বোধক ড. গওহর রিজভী। নাটকের শেষ দৃশ্যের পর যখন কলাকুশলীরা একে একে মঞ্চে এসে সারিবদ্ধ হয়ে দর্শকদের অভিবাদন জানাতে তখন দর্শক সারি থেকে মঞ্চে উঠে এলেন ড. গওহর রিজভী। তিনি নাটকের কলা-কুশলীদের সঙ্গে পরিচিত হয়ে নাটক উপভোগ করে তার অনুভুতি প্রকাশ করলেন। তিনি বললেন ৬০ বছর পূর্বে তিনি এই মঞ্চে উঠেছিলেন। এ

তখন তার বয়স ছিল ৭-৮ বছর। জিলা স্কুলের শিক্ষক মো. তাজমিলুর রহমান রচিত ‘সুবেহ উমিত’ ( ভোরের আকাক্সক্ষা) নাটকে শিশু শিল্পী হিসেবে ছোট ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। তার বাবা সে সময় দিনাজপুরের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

গতকাল একই সময়ে মঞ্চস্থ হয় নাটকটির আরও একটি বিশেষ প্রদর্শনী।