বৃহস্পতিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২০ ১০ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ট্রেনে আসন খালি থাকছে-সংসদে কৃষিমন্ত্রী

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ট্রেনে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে। ট্রেনে টিকিট কাটতে গেলে টিকিট পাওয়া যায় না। অনেকে টিকিট না কেটে ভ্রমণ করেন। আবার ট্রেনে আসন খালি থাকছে।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে বিএনপির সংরক্ষিত আসনের সাংসদ রুমিন ফারহানার এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে আব্দুর রাজ্জাক এ অভিযোগ করেন। রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলামের অনুপস্থিতিতে তার পক্ষে কৃষিমন্ত্রী অধিবেশনে প্রশ্নের জবাব দেন।

রুমিন ফারহানা তার প্রশ্নে জানতে চান, বেসরকারি খাতে রেলওয়ে লাভ করলেও সরকারি খাতে লোকসান গুনছে কেন এবং রেলওয়েকে বেসরকারি খাতে দেওয়া হবে কি না?

জবাবে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, রেলওয়েতে যে অনিয়ম-দুর্নীতি, তা দীর্ঘকালের। বিগত বিএনপি-জামায়াত সরকার এই খাত বন্ধ করে দেওয়ার চিন্তা করেছিল।

মন্ত্রী বলেন, রেলকে বেসরকারি খাতে দেওয়ার চিন্তা খারাপ না। তবে বেসরকারি খাতে দিতে হলে আগে দু-একটি লাইন দিয়ে পরীক্ষা–নিরীক্ষা করতে হবে।

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনের শুরুতে প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

সম্পূরক প্রশ্নে বিএনপির আরেক সাংসদ হারুনুর রশীদ রেলওয়ের অব্যবহৃত ভূমি খাস খতিয়ানভুক্ত করে বরাদ্দ দেওয়ার প্রস্তাব করেন এবং মন্ত্রী বিষয়টি মন্ত্রিসভার বৈঠকে আলোচনা করবেন কি না, জানতে চান। জবাবে আব্দুর রাজ্জাক বিএনপি সাংসদের ওই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, তিনিও এ বিষয়ে একমত। বিষয়টি তিনি মন্ত্রিসভায় তুলবেন।

বিএনপির সাংসদকে উদ্দেশ করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘আপনারা ২০১৪ সালের নির্বাচন বর্জন করলেন। এবারও নির্বাচনের পর সংসদে আসা নিয়ে অনেক কিছু দেখলাম। আপনারা সংসদে এসে এ ধরনের ভালো প্রস্তাব দিলে জাতিও উপকৃত হতো। আপনাদেরও জনপ্রিয়তা বাড়ত।’

সরকারি দলের সাংসদ মো. মোজাফ্‌ফর হোসেনের প্রশ্নের জবাবে রেলপথমন্ত্রীর পক্ষে জানানো হয়, ১৯৭২ সালে রেলওয়ের ভূমি ছিল ৬০ হাজার ৪০৫ দশমিক ৮৫ একর। বর্তমানে ভূমির পরিমাণ ৬১ হাজার ৮২০ দশমিক ৩৫ একর। এর মধ্যে রেলওয়ের ৫৮ হাজার ৬০৬ দশমিক ৫৭ একর ভূমি দখলে রয়েছে। ভূমি লিজ দিয়ে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৪৫৯ কোটি ৩৪ লাখ ৯৩ হাজার ৪৯০ টাকা আয় হয়েছে। বিভিন্ন সংস্থা ও লিজ গ্রহণকারীর কাছে রেলের বকেয়া ১২৪ কোটি ৪৩ লাখ ৬৯ হাজার ১৯৬ টাকা।

সংরক্ষিত আসনের সাংসদ গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকারের প্রশ্নের জবাবে রেলপথমন্ত্রী জানান, ২০১৯ সালে রেলের ৪৫টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এসব দুর্ঘটনায় ২১ জন নিহত ও ১৪১ জন আহত হয়েছেন।

সংরক্ষিত আসনের শামসুন নাহারের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, ২০০৮ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সময়ে ১ হাজার ৪৮টি রেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ৫৯ জন নিহত ও ৪৩৩ জন আহত হয়েছেন।