শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে আ. লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, ১৪৪ ধারা জারি

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে উপজেলা আ. লীগের কমিটিতে নিয়ম বহির্ভূতভাবে সদস্য অন্তর্ভুক্তিকে কেন্দ্র করে আ. লীগের বর্ধিত সভায় দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার (৯ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৫টার সময় হরিপুর উপজেলা আ. লীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। দলীয় নেতাকর্মীদের উশৃংখল পরিস্থিতি সামাল দিতে উপজেলা আ. লীগের কার্যালয় ও তার আশপাশের বাজারগুলোতে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। 

বুধবার সন্ধ্যা ৬টার সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল করিম এ আদেশ জারি করেন।

তিনি বলেন, উত্তেজিত পরিস্থিতি সামাল দিতে এ আদেশ জারি করা হয়েছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে।

জানা গেছে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় হরিপুর উপজেলা আ. লীগের কমিটিতে থেকে ১১ জনকে বহিষ্কার করা হয়। আবার গতকাল ফাঁকা পদগুলোতে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ১৭ জনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। কমিটিতে নতুন অন্তর্ভুক্ত করা সদস্যরা হলেন- সহসভাপতি পদে সাহাবুদ্দিন ও অ্যাডভোকেট মাহাবুব, প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মোস্তফা, আইন বিষয়ক সম্পাদক জামিন এবং সদস্য রয়েল, জহুরুল, জাহাঙ্গীর, সুলতান, ইসাহাক, পাভেল, মুনসেফ, মানিক, বক্কর, জাহাঙ্গীর, জামাল, শিখা রহমান ও রেজাউল। 

উপজেলা আ. লীগের কয়েকজন সদস্য জানিয়েছে, গতকাল নতুন সদস্যদের অন্তর্ভুক্তি করার পর ‘হরিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ’ নামে একটি ফেসবুক আইডিতে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। এতেই বেশি করে বিক্ষুব্ধ হয়েছে অন্যান্য নেতাকর্মীরা। 

হরিপুর উপজেলা আ. লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম রিপন অভিযোগ করে বলেন, কমিটির কাউকে না জানিয়ে ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে নতুন ১৭ জন সদস্য অন্তর্ভুক্ত করায় নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়। এ সময় দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাধলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। দুই গ্রুপের সংঘর্ষে কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়ে বর্তমানে হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে।  

হরিপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান জানান, উপজেলা আ. লীগের কমিটিতে কয়েকজনকে অন্তর্ভুক্তি এবং কয়েকজনকে বহিষ্কারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বর্ধিত সভায় সংঘর্ষ বাধলে কয়েকজন আহত হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এখন পরিবেশ শান্ত। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।