বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯ ২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঠাকুর পঞ্চানন বর্মার ৮৪তম তিরোধান দিবস

কাশী কুমার দাস,স্টাফ রিপোর্টার ॥ ক্ষত্রিয় সমিতি দিনাজপুর-এর আয়োজনে সুইহারী মোড় সংলগ্ন পার্থ সারথী মন্দির প্রাঙ্গণে ঠাকুর পঞ্চানন বর্মার ৮৪তম তিরোধান দিবস উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী ধর্মীয় সভা, পূজা অর্চনা, ভক্তি সংগীত, গীতা পাঠ অনুষ্ঠিত হয়।

ক্ষত্রিয় সমিতি দিনাজপুরের সভাপতি বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ বসন্ত কুমার রায়ের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক শ্রী মৃত্যুঞ্জয় রায়। ধর্মীয় আলোচনায় অংশ নেন সহ-সভাপতি ডাঃ তরুণ কুমার রায়, ডাঃ নির্মলেন্দু রায়, প্রাক্তন শিক্ষক উমা কান্ত বর্মা, সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা কংস নারায়ণ অধিকারী, মধাব চন্দ্র রায় প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে ডাঃ বসন্ত কুমার রায় বলেন, ক্ষত্রিয় সম্প্রদায়ের প্রাণ পুরুষ ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা জাতিকে জাগ্রত করার সংগ্রাম করে গেছেন। ঠাকুর পঞ্চানন বর্মার নেতৃত্বে ১৯১০ সালে ১ মে ক্ষত্রিয় সমিতি প্রতিষ্ঠিত হয়। নির্যাতন, নিপীড়িত এবং অবহেলিত এই ক্ষত্রিয় বর্ণটি যখন উচ্চ বর্ণের হিন্দু এবং তদানিন্তন বৃটিশ সরকারের বৈষম্য অবিচারের শিকারে পরিণত হয়। ঠিক তখনই ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা এক প্রদিপ্ত শিখার ন্যয় ক্ষত্রিয় জাতিকে জাগ্রত করার সংগ্রামে অবতীর্ণ হোন। তিনি প্রথম বিশ্ব যুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য ১০ হাজার রাজবংশী ক্ষত্রিয় সেনা পাঠিয়েছিলেন বৃটিশদের পক্ষে যুদ্ধ করার জন্য। রাজবংশী ক্ষত্রিয়দের সাহস দেখে বৃটিশ গভর্ণর ক্ষত্রিয়দের বন্ধু হিসেবে স্বীকৃতি দেন এবং ঠাকুর পঞ্চানন বর্মাকে রায় সাহেব উপাধিতে ভূষিত করেন। ১৯৩৫ সালে ৫ সেপ্টেম্বর ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা কোলকাতায় পরলোক গমন করেন। সভা শেষে উপস্থিত ভক্তদের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।