শনিবার ২৮ মার্চ ২০২০ ১৪ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ডলোচুন দিয়ে মাটি শোধন করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের চাষীরা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ে চাষীরা দিন দিন আগ্রহী হয়ে ডলোচুন দিয়ে মাটি শোধন করছেন। মাটি শোধন করে ফসলের ভাল ফলনের আশা করছেন চাষীরা।
কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, মাটি অম্লত্ব ও ক্ষারত্ব ফসল উৎপাদন প্রভাবিত হয়। মাটি পি,এইচ মান ৬ থেকে ৭ এর মধ্যে থাকলে ফসল ভাল উৎপাদন হয়। মাটিতে বিভিন্ন প্রকার রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহারের ফলে মাটি পি, এইচ মানের কম বেশি হয়। সাধারনত মাটির অম্লমান কমলে (পি, এইচ ৬ এর নিচে) ক্ষারীয় মাত্রা বেড়ে যায় (৭ এর উপরে) যা ফসলের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। মাটিতে পি,এইচ মানে কম বেশি হলে উদ্ভিদের জন্য প্রয়োজনীয় কয়েকটি খাদ্য উপাদান শোষণযোগ্য অবস্থায় থাকে না। মাটির অম্লত্ব কমানোর জন্য চুন ও বৃদ্ধির জন্য সালফার প্রয়োগ করতে হয়।
মৃত্তিকা বিজ্ঞানীদের মতে, মাটির অম্লমান ৭ এর কম হলে তা অম্লমাটি। কোন মাটি অম্লীয় শিলা থেকে সৃষ্টি হলে সেই মাটিতে অম্লত্ব দেখা দেয়। আবার মাটিতে সালফার, লৌহ ও অ্যালুমিনিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকলেও মাটিতে অম্লত্ব দেখা যায়।
ফসল উৎপাদানের জন্য রাসায়নিক সার অ্যামোনিয়াম সালফেট ও ইউরিয়া  (নাইট্রোজেন) অনেক দিন মাটিতে ব্যবহার করলে ও অধিক বৃষ্টিপাতের কারণে চুয়ানী প্রক্রিয়ায় মাটি থেকে ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম অপসারিত হয়ে থাকলে মাটির অম্লত্ব দিন দিন বেড়ে যায়। অত্যাধিক অম্ল মাটিতে অনেক ফসলের আবাদ ভাল না  হলেও মৃদু অম্লমাটিতে অধিকাংশ ফসল হয়।
কৃষি বিভাগ সূত্রে আরো জানা যায়, মাটির অম্লত্ব দূর করার জন্য সহজ পদ্ধতি হতে ডলোচুনের ব্যবহার। প্রতি শতক মাটিতে ৪ কেজি হারে ডলোচুন দিয়ে মাটি চাষাবাদ করে ফসল বপন বা রোপন করতে হয়। প্রতি বছর একই মাটিতে ডলোচুন প্রয়োগের প্রয়োজন হয় না।
সদর উপজেলার পাইকপাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল গনি বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারো মাটিতে ডলোচুন ব্যবহার করছি। তবে গত বছরে যে মাটি ব্যবহার করেছিলাম এ বছর সে মাটিতে ব্যবহার করিনি। কারণ কৃষি বিভাগ সূত্রে জানতে পারি ১ বার মাটিতে ডলোচুন দিলে ৩-৪ বছর দিতে হয় না। যে মাটিতে ডলোচুনের ব্যবহার করেছি সে মাটিতে ফসল ভাল হচ্ছে তাই ডলোচুন ব্যবহার করছি।
ঠাকুরগাঁও কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ভূপেশ কুমার মন্ডল বলেন, ডলোচুন ব্যবহার করলে মাটির ক্ষতিকারক উপাদান ধ্বংস হয় ফলে ফসল উৎপাদনও ভাল হয়। সে জন্য চাষীদের ডলোচুন ব্যবহারের উৎসাহিত করছি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email