শনিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ডেঙ্গুঁর বির্পযয়ের সময় প্রধানমন্ত্রীর কল্যানে ছোট বাচ্চাদের সু-খবর

আমার ব্যক্তি গত মতামত হলেও মনে হয় মতামতটি ছিল দেশের আপামোর জনসাধারনের সবার জন্য। এত বড় সু-সংবাদটি আমরা পাই ২০ আগষ্ট ২০১৯ মঙ্গলবার দেশের সকল প্রিন্ট মিডিয়ার দৌলতে। যদিও আগের দিনই ইলেট্রিক মিডিয়ায় জানতে পেরেছে অনেকেই। প্রিন্ট মিডিয়াই যখন বিস্তারিত দেখলাম তখন  প্রাথমিকে পড়ার সময়কার স্মৃতি আর তখনকার সমস্যা এখন সমাধান হওয়ার পথে হলেও চোঁখের সামনে উঠেছিল সে সময়ের দূর থেকে স্কুলে আসা সহপাঠিদের কষ্ট কথা।

                বলছি ১৯ শে আগষ্ট ২০১৯ সমবার মন্ত্রীসভায় খসড়া অনুমোদন হওয়া প্রাথমিকের ছোট ছোট বাচ্চাদের মিড ডে মিল চালু হওয়া নিয়ে। এতে ছোট ছোট বাচ্চাদের যে কি উপকার হবে দেশ জাতি তা অনুধাবন  করতে পারবে। এসব বাচ্চারা যখন স্কুল বিশ্ববিদ্যারয়ের গন্ডি পেরিয়ে দেশের বিভিন্ন কর্ম ক্ষেত্রে ঢুকবে। দু-লাইন আগে বলেছিলাম দুর থেকে আসা বন্ধুদের কষ্ট নিয়ে। প্রাথমিক স্কুল সংলগ্ন আমার বাড়ি অর্থাৎ প্রাথমিক স্কুল এবং আমার বাড়ি একাকার। প্রার্শ্ব বর্তি গ্রামগুলো হইতে অনেক ছাত্র/ছাত্রী আমাদের এ স্কুলে পড়তে আসত। প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্কুল হওয়ার পরেও পড়াশুনার মান অত্যন্ত ভাল এবং নামি শিক্ষক থাকার কারনে পার্শ বর্তি গ্রামের ছাত্র/ ছাত্রী এই স্কুলে আসত। প্রায় ৪ কিঃ মিঃ দুর থেকে আমার অনেক বন্ধু এবং বিভিন্ন ক্লাসের ছাত্র/ ছাত্রীর সমাগমে মূখরিত ছিল এই স্কুলটি।

                কিন্তু আমি লক্ষ করেছি টিফিন হলেই দূরের ছাত্র/ছাত্রীদের মূখ মলিন হয়ে আসত। সে সময়ে অনুধাবন করতে না পারলেও অনেক দিন পর হলেও বুঝতে পেরেছি কেন দূরের ছাত্র/ ছাত্রীদের কেন মূখ মলিন হয়ে আসত। যাদের বাড়ি স্কুলের কাছাকাছি ছিল, তারা বাড়ি গিয়ে খেয়ে তার সংঙ্গে একটু হলেও বিশ্রাম নিয়ে একেবারে সকালের ন্যায় ফুর ফুরে শরীরে টিফিনের পর স্কুলে আসত তারা পড়া শুনা করতে পারত নতুন উদ্যোমে। আর যারা পড়াশুনার আশায় দূর থেকে আসত তারা বাসায় খাবার থাকার পরেও টিফিনের সময় না পেয়ে খাবার দিন দিন দূর্বল হয়ে পড়ত।  যা এখন বুঝতে পারি ক্যালোরি ঘাটতির ফলে তারা দূর্বল হয়ে পড়ত ধারন ক্ষমতা কমে গিয়ে শারিরীক ও মানসিক ভাবে দূর্বল হয়ে পড়ে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ঝরে পড়ত। এভাবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে মেধার অবমূল্যায়ন হয়ে দেশ থেকে মেধার পরিমান কমে যায়। প্রথম যখন দুরের শিক্ষার্থীরা স্কুলে আসে তখন প্রথম ও দ্বিতীয় হওয়ার প্রতিযোগিতায় থাকে। পরবর্তীতে এস এস সির সময় বা তার পরবর্তী সময়ে খোজ নিয়ে যানা যায় তারা ঝরে পড়েছে এখন অনেকের সঙ্গে দেখা হলে দেখতে পাই তারা র্জীন র্শীন শরীরে মাঠে কাজ করে বাড়ি ফিরছে অথবা মাঠে কাজ করতে যাচ্ছে। অথচ এখানে আর একটি বিষয় দেখা যায় যাদের বাসা স্কুলের পাশা পাশি ছিল ক্লাসের শেষ বেঞ্চের ছাত্র/ ছাত্রী হওয়ার পরেও ভালো কিছু করতে না পারলেও পড়াশুনাতে অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়ে নিয়েছে। আমার এই ছোট্র জরিপ বা বাস্তব বিয়টি থেকে সু-স্পষ্ট হয় যে, ছোট ছোট বাচ্চাদের ক্যালোরি ঘাটতি হতে দেয়া যাবে না । মিক্ষার্থীদের বেশিক্ষন ধরে না খেয়ে থাকে তাদের মধ্যে বেশ কিছু সমস্যা দেখা দিলেও দুটি বিষয় বেশি সমস্যা হয় বলে আমার মনে হয় (ক) তারা মানুষিক ভাবে বিপর্যস্ত হয় (খ) তারা শারিরীক ভাবে দূর্বল হয়ে পড়ে। জাতীয় খাদ্য গ্রহন নির্দেশিকা অনুযায়ী দৈনিক প্রয়োজনীয় শক্তির ১০/ ১৫ শতাংশ প্রোটিন থেকে এবং ১৫/৩০ শতাংশ চর্বি থেকে আসতে হবে। খাদ্য তালিকার বৈচিত্র ঠিক রাখতে ১০টি খাদ্য গোষ্টির মধ্যে অন্তত চারটি বেচে নিতে হবে সাপ্তাহিক ভিত্তিতে।

                স্কুল মিল উপদেষ্টা কমিটি সরকারের কর্মকর্তা ও নির্বাচিত প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে করার কথা বলা হয়েছে যা অবশ্যই অনুকরনীয়। সরকারী কর্মকর্তা ও নিবার্চিত প্রতিনিধি দ্বারা গঠিত উপদেষ্টা কমিটি অবশ্যই স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করবে ২০ আগষ্ট দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন এর তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে ৩ উপজেলায় রান্না করা খাবার এবং ১০৪টি উপজেলায় বিস্কুট খাওয়ানো হচ্ছে।

১০৪টি উপজেলার মধ্যে ৯৩টি উপজেলায় সরকার ও ১১টি উপজেলায় বিশ্ব খাদ্য সংস্থা অর্থায়ন করছে। এখানে জরিপে উঠে এসেছে রান্না করা খাবারের ফলে ১১ শতাংশ ছাত্র/ ছাত্রীর উপস্থিতির হার বেড়েছে আর বিস্কুট খাওয়ানো এলাকায় ৬ শতাংশ ছাত্র/ছাত্রীর উপস্থিতির হার বেড়েছে।আর এই দুই এলাকাতেই ছাত্র/ ছাত্রীদের শারিরীক আনুকুল্যতার হার বেড়েছে। রান্না করা খাবারের ৩ উপজেলায় ১৬.৭শতাংশ রক্ত স্বল্পতা কমেছে এবং বিস্কুট খাওয়ানো এলাকায় ৪.৭শতাংশ রক্ত স্বল্পতা হার কমেছে। এই তথ্য গুলো বিশ্লেষন করলে বোঝা যায় যে, ছোট ছোট বাচ্চাদের খাবার স্বল্পতা তাদের শারিরীক কর্মক্ষমতা কমে দেয়।  রক্ত স্বল্পতা বৃদ্ধি পেয়ে শারিরীক ভাবে দূর্বল হয়ে

 মানুষিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে ঝরে পড়ে ফলে দেশ হারায় বুদ্ধি বিত্ত¦ ভবিষ্যৎ।

 সরকারের মি ডে মিল ২০১৯ এ বলা হয়েছে ৩/১২ বছরের বাচ্চাদের প্রতিদিনের ক্যালোরির ৩০শতাংশ স্কুল মিল থেকে আশা নিশ্চিত করা হবে, যা স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দলমত নির্বিশেষে সারা দেশের সকল মানুষের মনে দাগ কেটে যাওয়ার মত ঘটনা । আর যখন মাঠে প্রতিফলিত হবে তা হবে শতাব্দী ধরে মনে রাখার মতো ঘটনা সমূদ্ধ হবে দেশের জ্ঞান শক্তি, সমৃদ্ধ হবে বাংলাদেশ। গঠিত হবে সোনার বাংলাদেশ।

লেখক-এ এস এম এনামুল কবির

প্রভাষক

দাউদপুর কারিগরি মহাবিদ্যালয়

নবাবগঞ্জ, দিনাজপুর

মোবাইল নং- ০১৭১২-৫৭৬৪১৩;