বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ডোমারে আগাম শীতের পদধ্বনিতে ব্যস্ত সময় পাড় করছে কারিগররা।

মোসাদ্দেকুর রহমান সাজু, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি ॥ ভারতের কোল ঘেসে উত্তর বঙ্গের সীমান্ত বর্তী এলাকা নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলা।হিমালয় পর্বত পাশে থাকায় পঞ্চগড় জেলাসহ নীলফামারী জেলার কয়েকটি উপজেলায় কার্তিক মাসের মাঝা মাঝি আগাম শীত পড়তে শুরু করেছে। দিনের বেলায় সূর্য কিছুটা উত্তাপ ছড়ালেও সন্ধার পর পরেই শীত বাড়তে থাকে। আগাম শীতের আগমনে ব্যাস্ততা  বেড়েছে লেপ, তোষক তৈরী করা কারিগরদের। এদিকে সাধারণ মানুষ শীতের প্রস্তুতির জন্য অনেকে লেপ, তোষকের দোকান সহ পুরাতন কাপড়ের দোকানে ভীড় জমাচ্ছে। ডোমার বাজার বাটার মোড় এলাকার খাজা আজমেরী ট্রেডার্সের স্বাত্ত্বাধীকারী আহম্মেদ হোসেন আনছারী জানান, শীত আগাম ঘনিয়ে আসায় তাদের বেঁচা কেনা বেশ জমে উঠেছে। প্রতিদিন ১০/১৫ টির মতো লেপ তোষকের অর্ডার পাচ্ছি। কার্তিক মাস থেকে কিছুটা কাজ শুরু হয় তবে, পৌষ ও মাঘ মাসে প্রচুর কাজের চাপ থাকে। আরেক দোকানী গোলাম কিবরিয়া বলেন, বর্তমানে ৫/৭ জন কারিগর কাজ করছে। বাকি সময় গুলো শুধু তোষক ও জাজিমের কাজ হয় হালকা ভাবে। সামনে বেঁচা কেনা আরও বাড়বে বলে আশা করেন তিনি। উল্লেখ্য দেশের দক্ষিনের জেলা গুলোতে পৌষ মাঘে শীত নামলেও হিমালয়ের পাদদেশে হওয়ায় নীলফামারী জেলাসহ উত্তরাঞ্চলে শীতের উপস্থিতি অনেকটা আগেভাগেই জানান দেয়। এবারও তার ব্যাতিক্রম ঘটেনি। আশপাশের জেলাগুলোতে দিনের বেলা তাপ মাত্রা ২২থেকে ২৫ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডে উঠানামা করলেও রাতে তা ১৫ থেকে ১৭ ডিগ্রীতে নেমে আসে। সকালে কুয়াশার কারণে গাড়ী গুলি হেড লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে। অপরদিকে শীত জনিত কারনে রোগে আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে। কষ্টে আছে হতদরিদ্র শিশু ও বৃদ্ধরা। গরীব শ্রেনীর মানুষের কোন উপায় না থাকায় ডোমার রেল লাইনে পুরাতন কাপড়ের দোকানে মোটা কাপড় কিনে শীত  নিবারন করছে অনেকে। সবচেয়ে বেশী শীত পড়েছে জেলার ডিমলার চর এলাকায় এবং পার্শ্ববর্তী পঞ্চগড় জেলায়। নীলফামারীসহ ডোমার চিলাহাটির আশপাশের এলাকায় হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থান হওয়ায় দিন দিন  শীতের  প্রোকপ বেড়েই চলেছে।