বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘তথ্যপ্রযুক্তি খাতে কর্মসংস্থানের অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, চাকরির জন্য আর সরকারের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে না। তথ্য-প্রযুক্তি খাতে কর্মসংস্থানের অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক দেশ থেকে তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ে সহায়তা চায়।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে আউটসোর্সিং খাতে নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করতে দেশে তৃতীয়বারের মতো আয়োজিত দুই দিনব্যাপী বিজনেস প্রসেসিং আউটসোর্সিং (বিপিও) সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সরকারের কর্ম পরিকল্পনার কারণে ছেলেমেয়েরা মফস্বল শহরে বসে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে হাজার হাজার ডলার আয় করছে। সরকার বিদ্যুতের নিশ্চয়তা ও উচ্চগতির ইন্টারনেট দিচ্ছে বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।

স্বাধীন মত প্রকাশ বন্ধ করতে ডিজিটাল আইন করা হয়নি বরং সংখ্যালঘুদের রক্ষা করাসহ বিভ্রান্তি ছড়ানো বন্ধ করতেই এ আইন করা হয়েছে। স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের স্বাধীনতা একজন মানুষের নাগরিক অধিকার।

সম্মেলনে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে সন্তোষ প্রকাশ করেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

জয় বলেন, অনলাইনের মাধ্যমে প্রচুর বিপদ আসতে পারে, ফেইসবুকের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া অস্বাভাবিক নয়। আমি ফেইসবুককে ফেইকবুক মনে করি। এর পুরোটাই বানোয়াট, ভিত্তিহীন। এর কারণেই ফেইসবুক বিপদজনক। আমরা তরুণদের, শিশুদের ইন্টারনেটে ছেড়ে দিচ্ছি। ইন্টারনেট সীমাহীন, সেখানে অনেক কিছু আছে যা অশোভন।

‘ইন্টারনেটকে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা অর্থহীন, আজ ১০টি সাইট বা ফেইসবুক পেইজ ব্লক করা হলে কাল আরও ১০০টি তার স্থান নিয়ে নেবে। আবার ফেইসবুক বন্ধ করা, সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধ করাও নির্বুদ্ধিতার পরিচয়। ফেইসবুকের নির্মাতার ওপর আমেরিকান সরকারের খড়গ নেমে এসেছে। বাকস্বাধীনতার দেশেই আজ এই অবস্থা, তারা এই ফেইকবুকের প্রভাব নিয়ে চিন্তিত। তারাও পারেনি ফেইসবুকের মিথ্যাচার থামাতে, আমরা পারার প্রশ্নই আসে না। তারপরও আমরা চেষ্টা করছি, বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি।’

ইন্টারনেট ব্যবহারের খারাপ দিকগুলো নিয়ে পিছিয়ে থাকলে হবে না বলে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা জানান, আমরা বিভিন্ন রেগুলেটরি বডির সঙ্গে কাজ করছি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ক্ষতিকর কনটেন্ট সরিয়ে নেয়ার বা বন্ধ করে দেয়ার। চেষ্টা করা হচ্ছে এই প্রযুক্তি দেশে আনার, যাতে অন্তত আমাদের শিশু-কিশোররা ও তরুণরা ক্ষতিকর কনটেন্ট থেকে সুরক্ষিত থাকে। শুধু তারাই নয়, আমাদের লক্ষ্য সংখ্যালঘুদেরকেও রক্ষা করা।

বিপিও সম্মেলনের আয়োজক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য)।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার । বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, তথ্যপ্রযুক্তি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) এ কে এম খায়রুল আলম এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোসিংয়ের (বাক্য) সভাপতি ওয়াহিদ শরীফ।