সোমবার ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

তিস্তার পানি বাড়ায় আতঙ্কে এলাকাবাসী

নীলফামারী প্রতিনিধি ॥ উজানের ঢলে তিস্তায় পানি বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। গত তিন দিনে নীলফামারীর ডালিয়ার তিস্তা ব্যারাজ বাইশপুকুর পয়েন্টে বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢলে নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ২৫ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে নতুন ভাবে বিপদসীমার পয়েন্ট নির্ধারন করা হয়েছে ৫২ দশমিক ৬০ মিটার। আজ রবিবার তিস্তা নদীর প্রবাহ বিপদসীমার ৪০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও পানি বৃদ্ধির কারনে দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারাজের ৪৪ টি জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে বন্যার আশঙ্কা করছে তিস্তা অববাহিকার মানুষজন। এদিকে পলিতে ভরাট হয়ে যাওয়া তিস্তা নদীতে পানি বৃদ্ধির কারনে নীলফামারীর ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলা ও লালমনিরহাট জেলার চর বেষ্টিত গ্রামে নদীর পানি প্রবেশ করতে শুরু করেছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে। এদিকে তিস্তা অববাহিকার জনপ্রতিনিধিরা জানায় তিস্তা নদীতে পানি বৃদ্ধি মানেই উজানে ভারী বৃদ্ধিপাত ও ভারতের গজলডোবা ব্যারাজের জলকপাট খুলে দেয়া হয়।
ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা নিয়ন্ত্রন পুর্বাভাস ও সর্তকীকেন্দ্র তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানায় আজ রবিবার সকাল ৬টায় ডালিয়ার তিস্তা ব্যারাজ বাইশপুকুর পয়েন্টে তিস্তার পানি ৫২ দশমিক ২০ মিটার দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। যা সকাল ৯টায় আরো ৫ সেন্টিমিটারবৃদ্ধি পায়। সুত্র মতে গতকাল শনিবার এই পয়েন্টে সকাল ৬টায় ৫২ দশমিক ১০ মিটার ও গত শুক্রবার ৫১ দশমিক ৯৫ মিটারে পানি প্রবাহ ছিল। যা গত তিন দিনে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ২৫ সেন্টিমিটার। এ ছাড়া আজ রবিবার ডালিয়া পয়েন্টে ২৪ ঘন্টায় বৃস্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ৩৪ মিলিমিটার। অপরদিকে তিস্তা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেতে থাকায় তিস্তা পরিবেষ্টিত টেপাখাড়িবাড়ি, খালিশা চাপানী, ঝুনাগাছ চাপানী, খগাখড়িবাড়ি, পূর্ব ছাতনাই, নাউতারা, জলঢাকা উপজেলার ডাউয়াবাড়ি, গোলমুন্ডা, শৌলমারীসহ আশপাশের কয়েকটি ইউনিয়নের বসবাসরত পরিবারগুলো আতংকিত হয়ে পড়ে। এলাকাবাসী জানায় চরগ্রামের ঘরবাড়িতে পানি প্রবেশ না করলেও পলিতে ভরে থাকা তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেলেই পানি উপচে এলাকা প্লাবিত করে দেয়। ফলে ঘর বাড়ি ছেড়ে বাঁধে বা উচু স্থানে আশ্রয় নিতে হয়। এলাকাবাসী জানায় বর্ষাকাল শুরু হলে উজানের ঢলে তিস্তা ভাসিয়ে দেয় সব কিছু।
ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রফিকুল আলম জানান বর্ষাকালে নদীর পানি বৃদ্ধির সঙ্গে বন্যা দেখা দিবে। আমরা সর্তকাবস্তায় রয়েছি।
তিনি জানান এবার নতুন করে তিস্তা নদীর বিপদসীমার পরিমাপ (গেজ রিডার) বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ নিয়ে দুই দফায় বিপদসীমার পরিমাপ বৃদ্ধি করা হলো ৩৫ সেন্টিমিটার। পূর্বের পরিমাপের চেয়ে এবার ২০ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি করা হয় বেশী। এর আগে পরিমাপটির প্রথম দফায় ১৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি করা হয়েছিল। সুত্র মতে উজানে গজলডোবা ব্যারেজ নির্মাণের ফলে তিস্তা নদীর প্রবাহ কমে যাওয়ায় পলি পড়ে ভরাট হয়ে যাচ্ছে নদী। ফলে উজানের সামান্য ঢলেই তিস্তা নদী বিপদসীমা অতিক্রম করে থাকে। অথচ নদীর চর ডুবেনা। তাই তিস্তা ব্যারাজ ডালিয়া পয়েন্টে সর্বপ্রথম তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার পরিমাপ(গেজ রিডার) ছিল ৫২ দশমিক ২৫ মিটার। যা ২০০৭ সালের ৭ জুলাই ৫২ দশমিক ২৫ মিটার পরিবর্তন করে তা ৫২ দশমিক ৪০ মিটার বৃদ্ধি করা হয়। এরপরেও উজানের নাই পানিতেই বাংলাদেশ অংশের তিস্তা বারবার বিপদসীমা অতিক্রম করতে থাকে। ২০১৭ সালে আগষ্ট মাসে ভারতের গজলডোবার জলকপাট উম্মুক্ত করে দেয়া সহ ভারি বর্ষনের উজানের ঢলে ৯৮ বছরের মধ্যে পলিতে ভরাট তিস্তা অববাহিকায় ভয়াবহ বন্যার সৃস্টি হয়। সে সময় নদীর পানি বিপদসীমা ৫২ দশমিক ৪০ মিটারের অতিক্রম করে ৫৩ দশমিক ০৫ মিটার অর্থ্যাৎ ৬৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল।
তাই তিস্তা নদীর বিপদসীমা পরিমাপ সংখ্যাটি দ্বিতীয় দফায় পরিবর্তন করে তা বৃদ্ধির জন্য প্রস্তাব করা হয়। ওই প্রস্তাবে এবার পরিমাপের সংখ্যা করা হয়েছে ৫২.৬০ মিটার। যা গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর হতে কার্যকারিতা করা হয় বলে জানান ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোডের নির্বাহী প্রকৌশলী রফিকুল আলম।