রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮ ৬ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘তুলা চাষে সম্ভাবনা’ শীর্ষক হাবিপ্রবি’র সেমিনার

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হাবিপ্রবি’র ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম বলেন, তুলা একটি সম্ভাবনাময় ফসল। তুলা উৎপাদন ও সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করছে সরকার। ষাটের দশকে গ্রামাঞ্চলের মানুষ শিমুল তুলার উপর নির্ভর করতো। বর্তমানে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে উন্নত জাতের তুলা উৎপাদনে সক্ষম হয়েছে। তাই দেশের উত্তরাঞ্চলসহ দিনাজপুরে আরো বেশী তুলা উৎপাদনে গবেষণা ও পরিকল্পনার প্রয়োজন। গতকাল ১১ জানুয়ারী রোববার হাবিপ্রবি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। ঢাকা খামারবাড়ি তুলা উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী পরিচালক ড. ফরিদউদ্দীনের সভাপতিত্বে সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন তুলা চাষ সম্প্রসারণ প্রকল্পের (ফেজ-১) প্রকল্প পরিচালক ড. মোঃ গাজী গোলাম মর্তুজা। সেমিনারে আলোচক ছিলেন তুলা উন্নয়ন বোর্ড রংপুর রিজিওনের ডেপুটি ডাইরেক্টর আবু ইলিয়াস মিয়া, তুলা উন্নয়ন বোর্ড খামারবাড়ী, ঢাকা’র এডিশনাল ডাইরেক্টর মোঃ আখতারুজ্জামান, হাবিপ্রবি’র জিপিবি বিভাগের প্রফেসর ড. ভবেন্দ্র কুমার বিশ্বাস প্রমূখ। সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন তুলা উন্নয়ন বোর্ড খামারবাড়ী, ঢাকা’র ডেপুটি ডাইরেক্টর ড. মোঃ তাসদিকুর রহমান। শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর তুলা উন্নয়ন বোর্ড তুলা কৃষিবিদ এ এইচ মোঃ কায়কোবাদ। সেমিনারে মুক্ত আলোচনায় অনুষ্ঠানের সভাপতি ড. মোঃ ফরিদউদ্দীন আমন্ত্রিত অতিথি ও কৃষকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। তিনি বলেন, সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ৫০ বিলিয়ন তুলা উৎপাদনের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। বান্দরবন ও খাগড়াছড়িতে তামাক ছেড়ে তুলা চাষ শুরু হয়েছে। বর্তমানে বিঘাপ্রতি ১৫ থেকে ২০ মণ তুলা উৎপন্ন হয়। প্রতি মণ তুলা ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। তাই তুলা চাষের উন্নয়ন ও সম্ভাবনা নিয়ে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। সেমিনারের পূর্বে অতিথিবৃন্দ পৌছালে আয়োজকদের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।