শনিবার ৩০ মে ২০২০ ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

তেঁতুল পাতায় সেপটিক নাশ

কথায় আছে, যদি হও সুজন, তেঁতুল পাতায় ন’জন। আপাত সামান্যের অসামান্য ক্ষমতার এই রূপকার্থের বাস্তব প্রয়োগে নতুন রূপকথা তৈরি করতে চলেছে ভারতের একটি গবেষণা। তেঁতুল পাতাকে আশ্রয় করেই ওষুধ-প্রতিরোধী জীবাণু নাশে মিলেছে সাফল্য। আজকাল প্রায় সবারই জানা, ধীরে ধীরে ওষুধ-প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে অনেক ব্যাকটেরিয়া। সংক্রমণ ঠেকানো তাই চিকিৎসকদেরও বড় মাথাব্যথা হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিত্যনতুন ওষুধের খোঁজে মরিয়া গবেষণা চলছে সর্বত্র। এমনই সন্ধিক্ষণে আপাত সামান্য তেঁতুল পাতায় মিললো এমন অ্যান্টিবায়োটিকের শক্তি যা দিয়ে ঘায়েল করা যায় বেয়াড়া জীবাণু স্ট্যাফ-অরিয়াসকেও।

বেলগাছিয়ার রাজ্য প্রাণি ও মৎস্যবিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় এমনই অভিনব হদিস মিলেছে। দেখা গেছে, তেতুঁল পাতার অ্যালকোহলিক নির্যাস ব্যবহারে মাত্র দুসপ্তাহেই নিকেশ করা যায় সেপটিক আর্থ্রাইটিসের মতো কঠিন ব্যাধির নেপথ্যে থাকা ওই বেয়াড়া জীবাণুটিকে।

গবেষণাপত্রটি সম্প্রতি ছাপা হয়েছে আন্তর্জাতিক জার্নাল প্রকাশনা গোষ্ঠী ‘স্প্রিঞ্জার নেচার’ প্রকাশিত ‘বিএমসি কমপ্লিমেন্টারি অ্যান্ড অল্টারনেটিভ মেডিসিন’ নামের বিখ্যাত বিজ্ঞানপত্রিকায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি ও টক্সিকোলজি বিভাগের অধ্যাপক তাপসকুমার সরের তত্ত্বাবধানে এই গবেষণায় যুক্ত ছিলেন বিভাগের অধ্যাপক তপনকুমার মণ্ডলের পাশাপাশি বিষ্ণুপ্রসাদ সিনহাসহ ১০ জন জন গবেষক এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অধ্যাপক সিদ্ধার্থ জোয়ারদার। খরগোশের শরীরকে স্ট্যাফাইলোকক্কাস অরিয়াসে সংক্রমিত করে তাঁরা কৃত্রিমভাবে সেপটিক আর্থ্রাইটিসের জন্ম দেন এবং তার ওপর প্রয়োগ করেন ইথাইল অ্যালকোহলের সঙ্গে তেঁতুল পাতার মিশ্রণের নির্যাস।

গবেষকদলের প্রধান তাপস বলেন, “খরগোশের ওজনের অনুপাতে ৫০০ ও ১০০০ মিলিগ্রাম প্রতি কিলোগ্রাম ওজনের হিসেবে সেই নির্যাস দুসপ্তাহ প্রয়োগ করে দেখা যায়, সমূলে বিনাশ হয়েছে সংক্রমণ। এবং কোনো তাৎপর্যপূর্ণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও দেখা যায়নি।”

ঠিক এই কারণেই চিকিৎসক মহলের একটা বড় অংশ এই গবেষণার সাফল্যে উচ্ছ্বসিত। কারণ, প্রথাগত চিকিৎসায় থাকে অনেক রকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার আশঙ্কা। কারও রক্তে লোহিত রক্তকণিকা তলানিতে চলে যায়। কারও বা শরীরে অস্থিমজ্জার সংশ্লেষ থমকে যায়। অনেকের রক্তে ক্যালসিয়ামের মাত্রা যেমন কমে যায়, অনেকের আবার অন্ত্রের মধ্যে থাকা উপকারী ব্যাকটেরিয়াও মরে যায়। এ সবই যথেষ্ট ঝামেলার। গবেষকদের তাই আশা, এ বার মানুষের উপর প্রয়োগ করে দেখা হবে পুরোটা।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email