সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

তেল শুণ্য চিলমারী ভাসমান তেল ডিপো

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের চিলমারী ভাসমান তেল ডিপো সুকৌশলে লোকসান দেখিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার পায়তারায় তেল শূণ্য অবস্থায় পড়ে আছে কয়েক মাস ধরে। এলাকাবাসী প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানবন্ধন করেও তেল আসছে না ডিপোতে।
১৯৮৯ সালে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) এর অধীনস্থ মেসার্স যমুনা অয়েল কোম্পানী লিমিটেড ও মেঘনা পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন এর দুটি বার্জ নিয়ে চিলমারীর ব্রহ্মপুত্র নদে ভাসমান তেল ডিপো প্রতিষ্ঠিত হয়। সে সময় থেকে এ ভাসমান তেল ডিপোর মাধ্যমে উত্তরাঞ্চলের কৃষক, ক্ষুদ্রশিল্প উদ্দ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীগণ সহজেই ব্যবহারযোগ্য জ্বালানী তেল পেত। বর্তমানে প্রায় পাঁচ মাস ধরে ডিপো দুটি তেল শুণ্য হয়ে পড়ে আছে।
ভাসমান তেল ডিপো দু’টির অনুমোদিত ২২জন ডিলার প্রতি লিটার তেল ৬২ টাকা ৫১ পয়সায় ক্রয় ক্রয় করে খুচরা বিক্রেতাদের নিকট সরবরাহ করেন। খুচরা বিক্রেতারা প্রতি লিটার তেল বিক্রি করেন ৬৫ টাকায়। যমুনা ও মেঘনা তেল ডিপো দু’টি তেল শুন্য হওয়ায় পার্বতীপুর থেকে সড়কপথে তেল পরিবহন করলে ১লড়ি অর্থাৎ ৯ হাজার লিটার তেল আনতে অতিরিক্ত পরিবহন ও লেবার খরচ হয় প্রায় সাড়ে ১৫ হাজার টাকা। যা প্রতি লিটারে প্রায় ১ টাকা ৭৫ পয়সা বেশী। সব মিলে ডিলারদের তেল কিনতে হয় ৬৪টাকা ২৬ পয়সায়। এরপর খুচরা বিক্রেতা থেকে খুচরা ক্রেতা। ফলে ক্রেতাদের তেল কিনতে হচ্ছে ৬৭-৬৮টাকায়।

উপজেলার চাহিদা মিটানোর পর নারায়নপুর, যাত্রাপুর, সাহেবের আলগা, রৌমারী, রাজিবপুর, সানন্দবাড়ী, জাফরগঞ্জ, কামারজানী ও উলিপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সেচ মৌসুমে ভাসমান তেল ডিপো থেকে প্রতিদিনের তেলের চাহিদা প্রায় ১হাজার ৫‘শ ব্যারেল বা ৩ লাখ লিটার হলেও বর্তমান সময়ে ব্রহ্মপুত্র নদে ইঞ্জিন চালিত নৌকা, ড্রেজার মেশিন, বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চালিত জেনারেটর, মাহেন্দ্র গাড়ী, নছিমন-করিমনসহ বিভিন্ন যন্ত্র এবং বৃষ্টি না হওয়ায় আমন চারা রোপনের জন্য প্রতিদিন প্রায় ৭‘শ ব্যারেল বা ১লাখ ৪০ হাজার লিটার তেলের চাহিদা রয়েছে।

ডিলাররা অন্য ডিপো থেকে তেল নিয়ে স্থানীয়সহ বিদ্যমান এলাকাসমুহের তেলের চাহিদা পুরন করতে অতিরিক্ত অর্থ গুণতে হচ্ছে ভোক্তাদের। এতে প্রায় প্রতিদিন ৪লাখ ২০হাজার টাকা অতিরিক্ত লেনদেন হচ্ছে এলাকায় সৃষ্ট তেল বাজারে। শুধু তাই নয়, এভাবে চলতে থাকলে ডিলারদের হাতে থাকা দীর্ঘদিনের খুচরা বিক্রেতা ও ক্রেতা হাত ছাড়া হয়ে যাচ্ছে। ফলে চিলমারীর তেল ব্যবসায়ীরা খুচরা বিক্রেতাদের নিকট পড়ে থাকা বাকী অর্থ উত্তোলন করতে না পারায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়ছে। অপরদিকে ডিপো দুটি বন্ধ থাকায় প্রতিদিন খেটে খাওয়া প্রায় ৩‘শ শ্রমিক কাজ না থাকায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ডিপো কর্তৃপক্ষ কৌশলে চিলমারী ভাসমান ডিপো দু‘টি অন্যত্র সরিয়ে নিতেই তেল সরবরাহ বন্ধ রেখেছেন।

এব্যাপারে মেঘনা পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন এর সিনিয়র অপারেশন অফিসার মোঃ আবু সাঈদ জানান, তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছেন। আগামী মাসে তেলের জাহাজ চিলমারীতে আসবে।

অপরদিকে মেসার্স যমুনা অয়েল কোম্পানী লিমিটেড এর ডিপোর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ তাফাজ্জল হক মোবাইল ফোনে কোম্পানীর এমডি মোঃ গিয়াস উদ্দিন আনছারীর বরাত দিয়ে বলেন, জাহাজ সংকটের কারণে চিলমারী ভাসমান ডিপোতে তেল পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। তবে দ্রুত তেল পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।