শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

তোপের মুখে বুয়েট ভিসি

বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সব দাবির সঙ্গে সমর্থন জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

সন্ধ্যা ৫টার দিকে তিনি ক্যাম্পাসে আসেন। এসেই শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন। শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী, বিকেল ৫টার মধ্যে আলোচনায় না বসায় সাড়ে ৫টার দিকে তাকে অবরুদ্ধ করা হয়। আধাঘণ্টা অবরুদ্ধ থেকে সন্ধ্যা ৬টার দিকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হন তিনি। এরপর তার কার্যালয়ের তালা খুলে দেয় আন্দোলনকারীরা। এসময় আবরার হত্যার বিচারসহ ৭ দফা দাবি পূরণের আহ্বান জানানো হয় শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে।

ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের থামাতে বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন, ‘আমি তোমাদের অভিভাবক, তোমরা আমার সন্তান। আবরারের সাথে যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটা অনাকাঙ্ক্ষিত, ঘটনার পর থেকে আমি অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিয়েছি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়েছি। ৫-৬ জনকে নিয়ে বসেছি। আবরার হত্যায় জড়িতদের বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুসারে বহিষ্কার করা হবে। সবতো আমার হাতে নেই, যেগুলো আমার হাতে আছে সেগুলো আমি করছি। নীতিগতভাবে তোমাদের পূর্ণ সমর্থন দিচ্ছি। সারাদিন মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। তোমরা অধৈর্য হবে না।’

এ কথা শোনার পর শিক্ষার্থীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। তারা ভিসিকে বলেন, ‘এটা একটা খুন, আপনাকে স্বীকার করতে হবে।’

একপর্যায়ে ভিসিকে শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন করেন, আবরার হত্যার ঘটনার পর তিনি কেন ক্যাম্পাসে আসেননি? জবাবে ভিসি বলেন, আমি ক্যাম্পাসে ছিলাম। এ সময় শিক্ষার্থীরা ‘ভুয়া ভুয়া’ বলে স্লোগান দিতে শুরু করেন। সোমবার রাতে বুয়েটের ছাত্র হলে পুলিশ প্রবেশের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পুলিশের কাজে আমার হাতে নেই। পুলিশ তাদের কাজ করেছে, তারা ভিডিও ফুটেজ নিয়ে গেছে।’ শিক্ষার্থীরা তাদের দাবির বিষয়ে সিন্ধান্ত না দিয়ে ভিসিকে ক্যাম্পাস না ছাড়ার দাবি জানান।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ভিসি আবারও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তিনি বলেন, নিজের ক্ষমতায় আমি কিছুই করতে পারি না। মন্ত্রী মহোদয়কে নিয়ে বসবো। এসময় শিক্ষার্থীরা উপাচার্যকে দাবিগুলো পড়ে শুনিয়ে ঠিক কোন দাবিগুলো মানা হলো তা জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে চলে যেতে চান।

শিক্ষার্থীরা বলেন, তাঁদের দাবি মানা না হলে আগামী ১৪ অক্টোবর বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত শিক্ষাথীরা ভিসির কার্যালয়ের সামনে অবস্থান করছেন।