রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১লা পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

তোমাকে হারানোর বেদনা আমরা কখনই ভুলবো না!

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক দর্শন অনুকরণ করে, বঙ্গবন্ধুকে আদর্শ বলে মনে করে পৃথিবীর অনেক নির্যাতিত নিপীড়িত জনগোষ্ঠী তাদের ন্যায্য অধিকারের জন্য সংগ্রাম করে চলেছেন। তাদের কাছে একটি আদর্শের নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

শেখ মুজিবকে কেউ যদি মনে করেন তিনি শুধু শেখ হাসিনা ও শেষ রেহানার পিতা, এটা ভুল। যদি আওয়ামী লীগ মনে করে তিনি তাদের নেতা তাদেরই সম্পদ এটাও ভুল। বঙ্গবন্ধু আজ বাংলার প্রতিটি মানুষের হৃদয়ের ধন। যেখানে বাংলা ভাষা আছে, বাঙালির বসবাস আছে, সেখানে তাকে সীমাবদ্ধ রাখার সুযোগ নেই।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যু হয়েছে আজ চার দশক অতিক্রম করেছে। প্রতি বছর ১৫ আগস্ট দিনটি এলেই মনে প্রশ্ন জাগে- আজ যদি বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকতেন, তাহলে বাংলাদেশের অবস্থা কী দাঁড়াত! আমাদের বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ ড. বারকাত তার সাম্প্রতিক একটি বইতে দেখিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু যে অর্থনীতি অনুসরণ করতে চেয়েছিলেন, তা সফল হলে বাংলাদেশ কতটা সমৃদ্ধ হতো, তার চেহারা কতটা বদলে যেত! আমি অর্থনীতিবিদ নই। আমি বঙ্গবন্ধুর শেষ জীবনের রাজনৈতিক ব্যবস্থাপনার কথাটাই ভেবে বুঝতে চাই, তিনি বেঁচে থাকলে দেশের অবস্থা আজ কী হতো? এখন বেঁচে থাকলে বঙ্গবন্ধুর বয়স হতো ৯৯ বছর। স্বাভাবিকভাবেও এত দীর্ঘ আয়ু কি তিনি পেতেন?

অনেকের ধারণা, তিনি পেতেন। তার সমবয়সী ন্যাপ নেতা অধ্যাপক মোজাফ্ফর আহমদ এখনও বেঁচে আছেন। বেঁচে আছেন কিউবার ফিদেল কাস্ত্রো। মহাত্মা গান্ধী তো ঘোষণা করেছিলেন, তিনি ১২৫ বছর বাঁচবেন। তাকে হত্যা করা না হলে সম্ভবত বাঁচতেন। বঙ্গবন্ধুর যে শারীরিক সুস্থতা ও মানসিক বল ছিল, তাতে তিনি যে দীর্ঘজীবী হতেন, এতে সন্দেহ নেই।

তাকে যখন হত্যা করা হয়, তখন তার বয়স ৫৫ বছর। তিনি যদি আর ২৫ বছরও বাঁচতেন, তাহলে তার বয়স হতো ৮০। এই বয়সের কাছাকাছি এসে উইনস্টন চার্চিল শেষবারের মতো ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধু ৮০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারলে তিনি ক্ষমতায় থাকুন আর না-ই থাকুন, তার রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিকল্পনা অনুযায়ী বাংলাদেশকে নতুনভাবে সাজিয়ে যেতে পারতেন। বাংলাদেশ গোটা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় হতো একটি দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত সোস্যাল ডেমোক্র্যাসি। তাতে আমার কোনো সন্দেহ নেই।
অনেকে অভিযোগ করেন, বঙ্গবন্ধু স্থায়ীভাবে দেশের শাসনক্ষমতায় থাকতে চেয়েছিলেন। তিনি ডিক্টেটর হতে চেয়েছিলেন। যুক্তির কোনো কষ্টিপাথরেই এই অভিযোগ ধোপে টেকে না।

বঙ্গবন্ধুর যদি একমাত্র লক্ষ্য হতো ক্ষমতায় যাওয়া, তাহলে ১৯৭০ সালের নির্বাচনে জিতে ছয় দফার প্রশ্নের আপস করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীই হতে পারতেন। তিনি সেই পদ প্রত্যাখ্যান করে ফাঁসির কাষ্ঠে ঝোলার ঝুঁকি নিয়ে বাংলার স্বাধীনতার সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়েছিলেন কেন?

স্বাধীনতা লাভের পরও তিনি আমেরিকার নিকসন-কিসিঞ্জার প্রশাসনের কাছে নতজানু হয়ে, রাজাকার ও আলবদরদের বিচারের ব্যবস্থা না করে, সাম্প্রদায়িক দলগুলোকে নিষিদ্ধ ঘোষণা না করে, ব্যাংক, বীমা, বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান রাষ্ট্রায়ত্ত না করে, নব্য ধনীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে দিব্যি সারাজীবন বাংলাদেশে ডিক্টেটরের মতো শাসনক্ষমতায় থাকতে পারতেন। কেন- স্পেনে জেনারেল ফ্রাঙ্কো এভাবে দীর্ঘ ৪০ বছর তার স্বৈরাচারী শাসন চালাননি? আমৃত্যু তিনি ছিলেন স্পেনের একনায়ক। এ রকম দৃষ্টান্ত আরও বহু আছে।

বঙ্গবন্ধু ডিক্টেটর হতে চাননি। চেয়েছিলেন জাতির পিতৃত্বের অধিকারে কিছুটা অধিক ক্ষমতা হাতে নিয়ে দ্রুত বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থা পরিবর্তন। তারপর তার স্বপ্ন ও আদর্শের উত্তরাধিকারীদের হাতে ক্ষমতা অর্পণ করে অবসর গ্রহণ। যেটা করেছিলেন ফ্রান্সের জেনারেল দ্য গলে।

লেখক- তানভীর হাসান তানু

লেখক ও সাংবাদিক।