মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দলিত ও সমতলের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী মানুষের উন্নয়ন কৌশল প্রসঙ্গে

বাংলাদেশে সমতল ভূমি বৈশিষ্ট্যের উত্তরাঞ্চলকে বলা যেতে পারে নৃতাত্মিক জনগোষ্ঠী সমৃদ্ধ একটি অনন্য এলাকা। মূল জনগোষ্ঠী বাঙালির পাশাপাশি সান্তাল, উঁড়াও, মুন্ডা, পাহাড়ি, মুশোহর, কড়া, নুনিয়া, তুরি, তেলি, তাঁতি, রাজওয়ার,  মালে, মাহলে, মাহাতো, কুরমি, কোল, কোডাসহ বহু সংখ্যক নৃতাত্মিক জনগোষ্ঠীর বসবাস রয়েছে রাজশাহী-রংপুর বিভাগের এই সমতল ভূমি অঞ্চলীয় ১৬ জেলায়। এ ছাড়াও রয়েছে বিপুল সংখ্যক দলিত মানুষ যাদের প্রায় সবাই শিক্ষা, সেবা, সুবিধা প্রাপ্তির দিক থেকে মূলধারার জনগোষ্ঠীর তুলনায় পিছিয়ে আছেন আকাশ-পাতাল ব্যবধানে। হরিজন, ডোম, মুচি, জেলে, বেদে এই ধারারই জনগোষ্ঠী যারা নানান কূসংস্কারের শিকার হয়ে ক্রমাগত পিছিয়ে পড়েছেন এবং নিজেদের ন্যায় সঙ্গত অধিকার প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত থাকছেন।

সরকার পিছিয়ে পড়া এই জনগোষ্ঠীকে সমান্তরাল ধারায় তুলে আনতে চায়। মূলধারার জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি থেকে দলিত ও নৃতাত্মিক জনগোষ্ঠীও যেন প্রকৃত মানুষের মর্যাদায় বেঁচে থাকতে পারে, সুস্থ্য-সুন্দর ও মর্যাদার সাথে জীবন-জীবীকা নির্বাহ করতে পারে এবং সর্বক্ষেত্রে সমান সুযোগ-সুবিধা পেতে পারে সেই রকম প্রচেষ্টা রয়েছে সরকারের। সেই লক্ষে রয়েছে সরকারের নানামুখি উদ্যোগ। সরকারেরর পাশাপাশি বেসরকারি বিভিন্ন সংগঠণ ও সংস্থাও কাজ করছেন তাদেরকে সমান্তরাল ধারায় তুলে আনার জন্য।

জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলিরও নানান উদ্যোগ আছে অবহেলা, বঞ্চনার শিকার নৃতাত্মিক ও দলিত জনগোষ্ঠীর জন্য। কিন্তু যাদের জন্য এইসব আয়োজন তারা নিজেরাই তা ভাল মত জানেন না। তারা বোঝেন না যে, সরকারের কাছে তারা কি সুযোগ-সুবিধা পাবেন? যে সুবিধাগুলো পেতে পারেন সেগুলো তারা কিভাবেই বা পাবেন? কোথায় গেলে পাবেন? যেহেতু তারা ষিয়গুলো ভাল ভাবে জানেন না ও বোঝেন না ফলে তারা তা আদায় করতে পারছেন না। সরকারের সেবাখাতগুলো সম্পর্কে অজ্ঞতা জনিত কারণে তারা সেইসব অধিকার থেকে বঞ্চিত থাকছেন। এর অবসানের জন্য গত অক্টোর মাসে একটি তথ্যপুস্তিকা প্রকাশ করেছে বেসরকারি সংস্থা এনএনএমসি-নেটওয়ার্ক ফর নন-মেইনস্ট্রিমড মার্জিনালাইড কমিউনিটি। পুস্তিকাটির শিরোনাম দেয়া হয়েছে ‘সমতলের আদিবাসী ও দলিত জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারি ও বেসরকারি সেবা তথ্যপুস্তিকা।’ ১৫ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে ঢাকার ছায়ানটে তথ্য পুস্তিকাটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার সুযোগ হয় আমারো। সমাজ কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের সচিব ঁিজললার রহমান আনুষ্ঠানিক গভাবে পুস্তিকাটির মোড়ক উন্মোচন করেন। এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর পরিচালক, নারী প্রগতি সংঘের নির্বাহি পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা রোকেয়া কবির, হেকস/ইপার এর কান্ট্রি ডিরেক্টর অনিক আসাদ, এনএনএমসি’র চেয়ারম্যান ড. মুহম্মদ শহীদ উজ জামান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক বিমল চন্দ্র রাজোয়ারসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন এই প্রকাশনা অনুষ্ঠানে। একই অনুষ্ঠানে সমতলের আদিবাসী ও দলিত জনগোষ্ঠীকে লক্ষ্য রেখে ‘ব‘াঁচার মত বাঁচতে চাই আমার অধিকার আমি চাই’ শীর্ষক একটি কৌশল পত্রের প্রকাশ করা হয়। ঐ কৌশলপত্র সামনে রেখে ২০২১ সাল পর্যন্ত এনএনএমসি কার্যক্রম পরিচালনা করবে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের দলিত ও নৃতাত্মিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে।

তথ্য পুস্তিকায় সরকারি সেবা প্রাপ্তির বিভিন্ন খাত, সেবা প্রাপ্তির উপায় ও পদ্ধতি তুলে ধরা হয়েছে। পুস্তিকার তথ্যগুলো শুধু এনএনএমসি’র জন্য নয়, রংপুর-রাজশাহী বিভাগে দলিত ও সমতলের আদিবাসীদের কলাণে কর্মরত সরকারি ও বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানের জন্য সহায়ক হবে। পুস্তিকাটির শুরুতে দলিত ও সমতলের আদিবাসী জনগোষ্ঠীর অধিকারের আইনগত ভিত্তি হিসেবে আন্তর্জাতিক নথি, জাতিসংঘ সহ বিভিন আন্তর্জাতিক সংগঠণ সমূহের গহীত নীতিমালা তুলে ধরা হয়েছে যাতে করে আদিবাসী ও দলিত জনগোষ্ঠীর মানুষেরা সহজেই বুঝতে পারবেন যে, রাষ্ট্র ও সমাজের কাছ থেকে কি কি অধিকার তারা পেতে পারেন, তাদের অধিকার সম্পর্কে আন্তর্জাতিক অঙ্গণে কি ভাবা হয়। তারা কতখানি অধিকার প্রাপ্তির অধিকার রাখেন। পুস্তিকার আরেক সূচিতে রাষ্ট্র কর্তৃক প্রণীত দেশীয় নীতি-আইন-কর্মপরিকল্পনা, সমতলের আদিাবাসীরজন্য গৃহীত কর্মসূচি-বাস্তবায়ন নীতি ও পরিকল্পনা, দলিত জনগোষ্ঠীর জন্য গৃহীত কর্মসূচি-বাস্তবায়ন নীতি ও পরিকল্পনা ইত্যাদি বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। এখান থেকেও আদিবাসী ও দলিত জনগণ তাদের সম্পর্কে  রাষ্ট্রের দায়িত্ব, কর্তব্য, অঙ্গীকার সম্পর্কে জানতে পারেন এবং এইসব বিষয়ে রাষ্ট্রের গৃহীত কর্মসুচির সুফল পেতে পারেন।

জনকল্যাণের জন্য বাংলাদেশ সরকারের বহুমুখি কর্মসূচি আছে যার সবগুলোতেই সমতলের আদিবাসী ও দলিত মানুষেরা ভাগ বসানোর অধিকার রাখেন। কিন্তু সচেতনতার অভাবে সেইসব অধিকারের কোন খবরই তারা জানেন না। শিক্ষা ও সংস্কৃতির উন্নয়ন, আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, পেশাগত উন্নয়ন, পরিবেশ উন্নয়ন, নিজেদের ঘর-বাড়ির উন্নয়নসহ সকল কিছুতেই আদিবাসী ও দলিতদের জন্য সরকারের বরাদ্ধ আছে। সরকার বিভিন্ন নামের যে সকল বৃত্তি, উপবৃত্তি, ভাতা ইত্যাদি দিয়ে থাকেন সেগুলিতেও তাদের ভাগ আছে। বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, পঙ্গু ভাতা, প্রতিন্ধীতা ভাতা, মাতৃত্বকালিন ভাতাসহ সব ভাতাই পাবেন আদিবাসী ও দলিত শ্রেণীর মানুষ। কিন্তু সেই সুবিধাদি সরকারের কাছ থেকে পাবার পদ্ধতি ও উপায় সম্পর্কে তাদের জানা থাকেনা। বেশির ভাগ সময় শুধুমাত্র ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা পৌরসভার চেয়ারম্যান, মেম্বার, কাউন্সিলরদের কাছে যান যা অনেক সময় ফলপ্রসু হয় না। এই সুবিধাগুলো পাার জন্য সরাসরি সরকারের কাছে কিংবা সরকারের উপযুক্ত প্রতিনিধির কাছে যেতে হয়। কিন্তু কিভাবে সরকারের কাছে যাবেন, সরকারের কোন প্রতিনিধির কাছে যাবেন, যাওয়ার উপায়-পদ্ধতি কি তা জানা নেই অধিকাংশ আদিবাসী ও দলিত মানুষের। তথ্যপুস্তিকার মধ্যে এই সমস্যাগুলোর সমাধান আছে। অধিকার, মর্যাদা, সুবিধা ও সুযোগ কার মাধ্যমে, কি পধ।ধতিতে অর্জন করা সম্ভব হবে সেই উপায়ের কথা বলা আছে এই তথ্যপুস্তিকায়।

সরকার এবং রাষ্ট্রের কাছ থেকে অধিকার, সুযোগ, সুবিধাদি পাবার সচেয়ে সহজ উপায় হলো ইউএনও ও সমাজ সেবা বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করা। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ও যুব অফিসের সাথেও যোগাযোগ রক্ষা করতে হবে সরকারি সুবিধা, বরাদ্ধ পাবার জন্য। মূলত সেই কৌশল, পদ্ধতি, উপায় জানিয়ে দিতেই ‘দলিত ও সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষদের অধিকার সমুন্নতকরণ ও সুরক্ষা’র তথ্যপুস্তিকা ও কৌশলপত্র প্রকাশ করেছে এনএনএমসি। এগুলো প্রকাশের  তিনটি উদ্দেশ্য আছে এনএনএমসি’র। প্রথমত স্থানীয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দলিত ও সমতলের ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠী, রাষ্ট্রীয় সেবাদাতা, মূলধারার মানুষ ও সমমনা নেটওয়ার্কের মধ্যে সমন্বয় সাধন করা। দ্বিতীয়ত দলিত ও সমতলের আদিবাসী ব্যক্তি, পরিবার, গোষ্ঠী পর্যায়ে মানবাধিকার লংঘনের ঘটনা প্রতিরোধ ও প্রতিকার করা। তৃতীয়ত সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করা, অ্যাডভোকেসি কৌশল প্রতিষ্ঠা করা।

উত্তরবঙ্গ বা রংপুর-রাজশাহী বিভাগে ২৭টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর প্রায় ১৬ লাখ মানুষ বসাস করে থাকেন। এছাড়াও আছে হরিজন, ডোম, মুচি, বেদেসহ বিপুল সংখ্যক দলিত মানুষ। এই বিপুল মানুষকে পেছনে রেখে বৃহৎ জনগোষ্ঠী যতই এগিয়ে যাক না কেন সেটা কখনোই টেকসই হবে না। টেকসই হতে হলে সাইকে নিয়ে হতে হবে।

যে তথ্যপুস্তিকা এবং কৌশলপত্র নিয়ে এনএনএমসি কাজ শুরু করতে যাচ্ছে সেটা একটা কার্যকর উদ্যোগ হবে বলে আমার ধারণা। পিছিয়ে পড়া জনগণ যখন নিজেই নিজের অধিকার বুঝবেন তখন তাকে কেউ আটকিয়ে রাখতে কিংবা পেছনে ফেলে রাখতে পারবে না।

 

লেখক- আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক ও কলামিষ্ট,

দিনাজপুর।

মোবাইল ঃ ০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭