সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনশেষে স্বার্থপর অামরা কিছুটা মানবিক

দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলাধীন ১১নং মরিচা ইউনিয়নের কাটগড় রাজাপুকুর গ্রামের মনোধর রায় এবং চারুবালার একমাত্র পুত্র সজীব রায় দেশের সেরা মেডিকেল কলেজ ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেয়েছে নিজের যোগ্যতায়। সম্মিলিত মেধা তালিকায় তার অবস্থান তৃতীয়!

অামরা সবাই খুশি, সবাই গর্বিত তাকে নিয়ে। তাকে নিয়ে গর্ব করার মিছিলে কে অাগে সামিল হবে তা নিয়েই চলছে কাড়াকাড়ি। এই কাড়াকাড়িতে স্বার্থপর অামরাও জোর কদমে সামিল। হোক না কিছুটা স্বার্থপরতা তবুও হঠাৎ মানবিক অামাদের অালোয় অালোকিত হোক একজন সজীবের চলার পথ।

অাজকের অালো ঝলমলে সজীবের জীবন মোটেই তথাকথিত অালোর ঝলকানি ছিলনা কোন কালেই। দিনমজুর পিতার অাঁধার ঘরের একটুকরো অালো সজীব। ছোটবেলা থেকেই মেধাবী সজীব তার ঝলকানি দেখাতে থাকলেও ভাঙ্গা ঘরে শুয়ে দিনমজুর পিতার মনে বড় ভয় পারবে তো এই মেধাবী সন্তানকে তার সঠিক জায়গায় পৌঁছে দিতে?!

সন্তান যখন অালোর ঝলকানি দেখায় পিতা যখন চায় সন্তান হোক অালোকিত তখন কোন কিছুই বাঁধা হয় না; বাঁধা অতিক্রমের এই যুদ্ধে পাশে অাছি অামরা প্রশাসন পরিবার।

পাশে থাকার প্রত্যয়ে উপজেলা প্রশাসন, বীরগঞ্জ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে অাজ এই মেধাবী ও তার পিতা-মাতাকে সম্বর্ধনা দেয়। সেই সাথে তাৎক্ষণিকভাবে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন এর নেতৃত্বে বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাগণ সজীবের ভর্তির সমুদয় ব্যয়ভার ও ঢাকায় যাতায়াতের অর্থ উত্তোলন করে তার পিতা-মাতার হাতে তুলে দেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বীরগঞ্জ মেধাবী এই সন্তানের পিতা-মাতাকে মানসম্মত একটি ঘর প্রদান করার বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সাথে যোগাযোগ করেন এবং অতিদ্রুত তা নির্মাণ করে দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

দিনাজপুর জেলাপ্রশাসন তাদের ম্যানডেট অনুযায়ী সব সময় অাইনসিদ্ধ যে কোন প্রয়োজনে অাপনাদের পাশে থাকার প্রতিশ্রুদ্ধ।
এই ধারাবাহিকতায় অাজ দিনশেষে মেধাবী সজীব তার পিতা-মাতা ও একমাত্র বোনের সাথে গর্বিত অামরা কিছুটা সময় কাটার সুযোগ গ্রহণ করি। তাৎক্ষণিকভাবে সজীবের ভর্তি কার্যক্রমের জন্য অার্থিক সাপোর্ট প্রদান করা হয় এবং তার পড়ালেখার শেষ পর্যন্ত মাসিক সাপোর্ট প্রদান করার বিষয়ে সজীব ও তার পিতা-মাতাকে প্রতিশ্রুতি প্রদান করা হয়।

সজীব ও তার পরিবারের পাশে থাকার সুযোগ পেয়ে জেলা প্রশাসন, দিনাজপুর গর্বিত ও অাশাবাদী।

অালোর পথে যাত্রার সকল সহযাত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা। বিশেষ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ যুগান্তর পত্রিকার দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি মো. একরাম তালুকদার এবং বীরগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক মো. আব্দুর রাজ্জাককে যিনি বিষয়টি আমাদের নজরে এনেছেন।

লেখক-মোঃ মাহমুদুল আলম 

জেলা প্রশাসক

দিনাজপুর