বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের ধুম পড়েছে ঐতিহ্যবাহী ‘ভাদর কাটানি’ উৎসব

মো. আব্দুর রাজ্জাক : ভাদ্র শুরু তাই গ্রামে গ্রামে ধুম পড়েছে ঐতিহ্যবাহী ‘ভাদর কাটানি’ উৎসবের।

দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী উৎসব ‘ভাদর কাটানি’র লক্ষ্যে বাবার বাড়ী নাইয়র যেতে শুরু করেছে দিনাজপুরের নববিবাহিতা বধূরা।

এ উৎসবের রীতি অনুযায়ী, ভাদ্র মাসের প্রথম দিন হতে সাত দিন পর্যন্ত স্বামীর মঙ্গল কামনায় কোনো নববধূ তার স্বামীর মুখ দর্শন করবেন না।

ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে ‘ভাদর কাটানির’ কোনো ব্যাখ্যা না থাকলেও এ অঞ্চলের আদি প্রথা অনুযায়ী, ভাদ্র মাসের পয়লা তারিখ থেকে শুরু হয়ে যুগ যুগ ধরে পালিত হয়ে আসছে এ উৎসব।

এবার ঈদ আনন্দ শেষ হতেই ‘ভাদর কাটানির’ উৎসবকে নিয়ে গ্রাম-গঞ্জে সাজ সাজ রব পড়ে গেছে।

‘নববিবাহিতা বধূ বাবার বাড়িতে নাইয়র যাবে।’ এই বাক্যটি এখন নব বিবাহিত পরিবারের সবার মুখে মুখে।

দিনাজপুরে মোঃ জুবায়ের হোসেন বিয়ে করেছেন গত মাসে। আজ তাঁর বউকে শ্বশুর বাড়ীর লোকজন এসে নিয়ে গেছে ভাদর কাটানি উৎসব উপলক্ষ্যে।

স্থায়ীয় লোকজনের বিশ্বাস-বিবাহিত জীবনের প্রথম ভাদ্র মাসের এক থেকে সাত তারিখ পর্যমন্ত এই সাত দিন স্বামীর মুখ দেখলে অমঙ্গল হবে।

তাই নবদম্পতিদের এ মাসে ন্যূনতম সাত দিন দেখা সাক্ষাৎ বন্ধ রাখাই এ অঞ্চলের রীতি হয়ে উঠেছে। তা ছাড়া সাধারণত এ মাসে বিয়ের কোন আয়োজনও চোখে পড়ে না। প্রচলিত এ প্রথাটি যুগ যুগ ধরে এ অঞ্চলে হিন্দু-মুসলিমদের মধ্যে চলে আসছে।

নিয়ম অনুযায়ী, কনেপক্ষ শ্রাবণ মাসের দু’-একদিন বাকি থাকতেই বরপক্ষের বাড়িতে সাধ্যমতো বিভিন্ন রকমের ফল, মিষ্টি, পায়েসসহ নানা রকম পিঠা-পুলি নিয়ে যায়। বরপক্ষও সাধ্যমতো তাদের আপ্যায়ন করে। বাড়িতে কনেপক্ষের লোকজন আসায় চারদিকে একটা উৎসবমুখর পরিবেশ লক্ষ্য করা যায়।

ভাদর কাটানি মুসলিম সম্প্রদায়ের কোনো ধর্মীয় বিষয় না হলেও এ অঞ্চলে প্রথাটি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। এক সময় সভ্রামত্ম হিন্দু সম্প্রদায় এ উৎসবকে জাকজঁমকভাবে পালন করত। তাদের এ রেওয়াজ ক্রমান্বয়ে এ অঞ্চলের মানুষকে প্রভাবিত করে। এক পর্যায়ে উৎসবটি এ অঞ্চলে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সাংস্কৃতির একটি অংশ হয়ে দাঁড়ায়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email