শনিবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ২রা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের বাজারে দফায় দফায় বাড়তে শুরু করেছে পেয়াজের ঝাঁঝ ॥ ক্রেতাদের নাভিশ্বাস

piyaj

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানিতে আবারো রফতানী মূল্য বৃদ্ধি করলো ভারত। গত বৃহস্পতিবার হঠাৎ করেই পেয়াজের রফতানীমুল্য একলাফে টন প্রতি ৩৫২ ডলার বাড়িয়েছে ভারত।

বন্দর সুত্রে জানা যায়, প্রতি মেঃ টন পেঁয়াজের রফতানী মূল্য আড়াই’শ মার্কিন ডলার থেকে কয়েক দফায় বাড়িয়ে তা গত বৃহস্পতিবার ৫’শ ডলার থেকে ৮৫২ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করে ভারতের কৃষিজাত কাঁচা পন্যের মুল্য নির্ধারনী সংস্থা (ন্যাফেড)। এতে করে দেশের বাজারে পেঁয়াজের মূল্য আরও বৃদ্ধি হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

দিনাজপুরের হিলি স্থল বন্দরের আমদানীকারকরা জানান, কোন অজুহাত ছাড়াই বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানীতে এলসির বিপরিতে টন প্রতি ডলার মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে ভারত। গত অক্টোবর মাসে প্রতি টন পেঁয়াজের রফতানী মূল্য ২৫০ মার্কিন ডলার থেকে সাড়ে ৩’শ মার্কিন ডলার নির্ধারন করে। এরপর দফায় দফায় তা বাড়িয়ে ৫’শ মার্কিন ডলার নির্ধারন করেছিল ভারত। সে অনুপাতে গত ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত সে দামেই পেয়াজ আমদানী হয়ে আসছিল বাংলাদেশে।  কিন্ত হঠাৎ করে ভারতের পেঁয়াজ রফতানীকারকরা বাংলাদেশের আমদানি  কারকদের সাফ জানিয়ে দেয় ৮৫২ ডলারের নিচে তারা আর পেঁয়াজ রফতানী করবেনা। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে দিল্লি থেকে এ সংক্রান্ত একটি ফ্যাক্স বার্তা পাঠিয়ে দেয় ভারতের হিলি কাষ্টমসে। আর শনিবার থেকে নতুন এ রফতানী মুল্য কার্যকর শুরু হয়েছে বলে জানান বাংলাহিলি স্থল বন্দরের ব্যাবসায়ীরা।

হিলি স্থল বন্দরের আমদানি কারক বাবলুর রহমান ও সাকিব রেজা জানান, ভারত সরকার বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানীতে মূল্য বৃদ্ধি করার কারণে বিপাকে পড়েছে দেশের পেঁয়াজ আমদানীকারকরা। এমনকি পূর্বের খোলা এলসি গুলোও পুনরায় মূল্য নির্ধারণ করতে হচ্ছে তাদেরকে।

আমদানীকারকরা বলছেন, বেশি ডলারে ভারত থেকে কোন পন্য আমদানি করলে পরবর্তিতে এলসির বিপরিতে ডলার মূল্য কমে গেলে অতিরিক্ত ডলার তারা আর ফেরত দেয়না। এতে করে একদিকে যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয় আমদানী কারকরা, অপরদিকে অতিরিক্ত ডলার চলে যায় ভারতে।

হিলি কাষ্টমস রাজস্ব কর্মকর্তা ফকর উদ্দিন জানান, তারা ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত ৫০০ ডলারে পেঁয়াজের এ্যাসেসম্যান করেছেন। আর এখন করছেন ৮৫২ ডলারে। তিনি জানান, নভেম্বর মাসের  গত ২৩ দিনে (শুক্রবার বাদ দিয়ে) ১১ হাজার ১৪৫ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে এ বন্দর দিয়ে। আর দাম বাড়ার পর গত শনিবার এবন্দর দিয়ে মাত্র ১১ টি ট্রাকে ২২০ মেঃ টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে।

এদিকে ভারত হঠাৎ করেই পেয়াজের রফতানীমুল্য বৃদ্ধি করায় বাংলাদেশের বাজারে পেয়াজের মুল্য আরও বৃদ্ধি হতে শুরু করেছে। দিনাজপুরের কাঁচা ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারে পেঁয়াজের দাম কেজি ২০ -২৫ টাকা বেড়েছে তাই ক্রেতা সাধারন কিনছেন কম। তারা জানান, আগে যে পেয়াজ বিক্রি হতো ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে। এখন সেই পেয়াজ তাদের বিক্রি করতে হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা কেজি দরে। বাজারে দফায় দফায় পেয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় ক্রেতাদের পেয়াজ কিনতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।