সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের রামসাগর জাতীয় উদ্যানে মায়াবী চিত্রা হরিনের সংসারে আরও ৮ নতুন অতিথি

রিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর থেকে ॥ পৌরনিক কাহিনীর জেলা দিনাজপুরে মধ্যযুগের বিখ্যাত সামন্ত রাজার অমর কীর্তি রামসাগর যা সারাবাংলার এক সৌন্দর্য মন্ডিত ঐতিহাসিক দীঘি। প্রাকৃতিক অপরূপ নয়নাভিরাম দীঘিটি পর্যটকদের ভাল লাগার পরশে মনকে ছুয়ে যায়। আরও বেশী পর্যটকদের দৃষ্টি কাড়ে রামসাগরের মিনি চিড়িয়াখানার মায়াবী চিত্রা হরিনগুলো।

আর শীত ও করোনার সময়ে এই চিত্রা হরিনের সংসারে এসেছে ৮টি নতুন অতিথি। নতুন অতিথি শাবকদের নিয়ে রোদের আলোয় বসে থাকে মা হরিনগুলো। এ দৃশ্য দর্শনার্থীদের দৃষ্টি কাড়ছে। বাদাম বা খাওয়ার কিছু নিয়ে ডাকলে অনেক চিত্রা ব্যারিকেড ঝালির কাছে ছুটে আসছে। তবে কেউ শব্দ করলে তারা পালিয়েও যাচ্ছে।

আব্দুর রহিম, আসাদুজ্জামান লিটনসহ কয়েকজন দর্শনার্থী জানান, ঐতিহাসিক এই রামসাগরের জলরাশি জেলা প্রশাসন এবং বাকী অংশ বনবিভাগ দেখভাল করে। এতে সেবার মান আজও বাড়েনি। অথচ বনবিভাগকে জলরাশিসহ পুরোটাই দিলে এখানে ঝুলন্ত সেতু, বিভিন্ন রাইডসহ পর্যটকদের আর্কষনীয় করতে নানান পদক্ষেপ নিতে পারে। আর এসব আধুনিকায়ন করা গেলে এটিই হতে পারে উত্তরাঞ্চলের পর্যটকদের জন্য আকর্ষনীয় দর্শনীয়স্থান। পাশাপাশি সরকারের রাজস্বও বাড়বে।

চিত্রা হরিণের প্রিয় খাবার শাপলা পাতা। রামসাগর দিঘিতে শাপলা চাষ করতে পারলে হরিণের খাদ্য চাহিদা কিছুটা মেটানো সম্ভব হবে। কিন্তু দিঘিতে মাছ শিকার, ইঞ্জিন নৌকা চালানোর কারণে শাপলা চাষ বন্ধ হয়ে যায়। তবে রামসাগর দিঘিতে শাপলা চাষ করা গেলেই খাবারের চাহিদা পুরন করা সম্ভব বলে জানান হরিনগুলোর তদারককারী জহুরুল ইসলাম।

দিনাজপুর রামসাগর জাতীয় উদ্যানের তত্ত্বাবধায়ক ও বনবীট কর্মকর্তা সাদেকুর রহমান জানান, রামসাগর জাতীয় উদ্যানের মিনি চিড়িয়াখানায় সরকারিভাবে ৬টি চিত্রা হরিণ আনা হয়। বংশবিস্তারের পর এখন এদের সংখ্যা ৫৪টি। ডিসেম্বর ও চলতি জানুয়ারী মাসে বিভিন্ন সময়ে ৮টি মা হরিনের নতুন অতিথি এসেছে। এই নিয়ে বাচ্চাসহ এখন ৬২টি তে দাড়িয়েছে। এখানে হরিণের সংখ্যা বেড়েছে। এতে খাদ্যের চাহিদাও বেড়েছে। এখন চিত্রা হরিনগুলোর খাদ্যের জন্য সঠিক সময়ে খাদ্য বাজেট পর্যাপ্ত পাওয়া যায়। চিত্রা হরিনগুলোকে ছোলা, চক্কর, লতাপাতা ইত্যাদি খাবার দেয়া হয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email