রবিবার ৭ জুন ২০২০ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের শতবর্ষী অচিন গাছটি ‘সাদা ডুমুর বা পাকুড়’

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ‘অচিন’ নামের শতবর্ষী গাছটি বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির উদ্ভিদ ‘সাদা ডুমুর বা পাকুড়’। দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়কের সদর উপজেলার চেহেলগাজী ইউপির গোপালগঞ্জ হাটের রাস্তার পাশে প্রকা-  এ গাছটির অবস্থান। ৪০-৫০ ফুট উঁচু শাখা-প্রশাখাযুক্ত উদ্ভিদটির সঠিক বয়স জানা না গেলেও এর বয়স শতাধিক বছর বলে স্থানীয় বয়োবৃদ্ধদের ধারণা। এই গাছের চারদিকে ১০/১৫টি গোপালগঞ্জ হাটের দোকান রয়েছে। গাছটি নিয়ে ওই এলাকার সবার ধারণা, এটি অচিন গাছ এবং তারা এই গাছটিকে অচিন নামেই ডাকে। খবর জানার পর গাছটি শনাক্তকরণ এবং তথ্য সংগ্রহে ছুটে যায় দিনাজপুর সরকারি কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. দেলোয়ার হোসেন, উদ্ভিদ বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী মোসাদ্দেক হোসেনসহ একদল শিক্ষার্থী। উদ্ভিদটি পর্যবেক্ষণে নানান সময়ে অনেকেই এসেছেন বলেও জানান স্থানীয়রা। তবে এই উদ্ভিদের অস্তিত্ব পাওয়া একটু কঠিন বলেই দাবি করেছেন অধ্যাপক মো. দেলোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, ‘অচিন’ নামের শতবর্ষীয় এ গাছটি বিলুপ্তপ্রায় উদ্ভিদ ‘সাদা ডুমুর বা পাকুড়’ হতে পারে। গাছটির বৈশিষ্ট্যগত ভিন্নতা আছে। পেঁচানো অস্থানিক মূল কা কে বেষ্টনী করে থাকে। গাছটিতে ছোট ছোট গোলাকার সাদা রঙের ফল ধরে। ফল ডুমুরের মতো হলেও ডুমুর অপেক্ষাকৃত ছোট এবং সাদা বর্ণের হয়। সাদা পাকুড় বা ডুমুর আকার-আকৃতিতে বটগাছের মতোই বিশাল ও বিস্তৃত। সাধারণত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও অস্ট্রেলিয়ায় এই গাছ দেখতে পাওয়া যায়। বৃক্ষটির  বৈজ্ঞানিক নাম ficus virens, গোত্র moraceae এবং ইংরেজি নাম  white fig. বাংলাদেশ ও এর তৎসংলগ্ন অঞ্চলে এই বৃক্ষ বিরল।  চৈত্র-বৈশাখ মাসে এ গাছে পাতা ঝরে গিয়ে নতুন পাতা গজায়। পাতা মসৃণ ও লম্বাটে। এই গাছের ফল পাখির প্রিয় খাবার। সাধারণত এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর মাসে গাছটিতে ফল ধরে। গোপালগঞ্জহাটে গাছটি সংলগ্ন দোকানি নূর সামাদ জানান, ওই গাছটিতে ছোট সাদা রঙের ফল ধরে। পাপড়ি ঝরে পড়ে এবং ফলও হয়।  বছরে দুইবার গাছটির পাতা ঝরে যায়। এর কচি ডাল ও পাতা ছিঁড়লে সাদা আঠা বের হয়। কিন্তু গাছটির নাম কেউ জানেন না। তাই সবার কাছে এটি ‘অচিন গাছ’ নামেই পরিচিত।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email