রবিবার ১৯ অগাস্ট ২০১৮ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে অপহরনের ৭ দিন পর দুই শিশু উদ্ধার

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের সদর থেকে অপহরনের ৭ দিন পর ২ শিশুকে জেলার ফুলবাড়ী উপজেলা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার দুপুরে ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রাজারামপুর চৌধুরীপাড়া গ্রাম থেকে তাদেরকে উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় এজাহারভুক্ত ৪ আসামীসহ আরও ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গত ২২ জানুয়ারী দুপুরে দিনাজপুর শহরের কসবা ফকিরপাড়া এলাকার কামরুল ইসলামের ২ শিশু কন্যা কাকলী (১২) ও আমিনা (৪) বাসার পাশ্বে খেলা করতে যাওয়ার পর নিখোজ হয়। এই ঘটনায় ওই দিনই পরিবারের পক্ষ থেকে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় একটি জিডি এবং পরবর্তীতে ২৪ জানুয়ারী ৪ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করা হয়। ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে এজাহার নামীয় আসামী  লিটন, জান্নাতুল ফেরদৌস, রোখসানা ও নাজমা বেগমকে আটক করে।

সোমবার সকালে অপহৃত কাকলী ফুলবাড়ী উপজেলার রাজারামপুর চৌধুরীপাড়া গ্রামে তাদেরকে আটক করে রাখা ঘরের জানালা ভেঙ্গে পালিয়ে যায়। পরে সে একজনের মোবাইল দিয়ে তার বাবাকে ফোন করলে বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয। দুপুরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অপহৃত ২ বোনকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। এসময় সায়েরা বেগম ও ইতি বেগম নামে দুজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর কোতয়ালী থানার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নওয়াবুদ রহমান জানান, শিশু দুটি তাদের বাবার কাছে মোবাইল করলে সেই নাম্বার ট্রেকিং করে কাকলী ও অমেনাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

এ ঘটনায় সায়রাকে ঘটনা স্থানেই পুলিশ জিঙ্গাসাবাদ করলে তিনি বলেন তার বোন ইতি বেগম ওই শিশু দুটোকে রেখে গেছেন। তাদেরকে অনেক বার বাড়ীর ঠিকানা জানতে চাইলেও তারা বলেনি তাই আমি কারো সাথে যোগাযোগ করতে পারি নাই। তার পর থেকে তারা এ খানেই আছে।

এদিকে উপজেলার পশ্চিম গৌরীপাড়া গড়ইসলামপুর এন্তাজ আলীর ভাড়া বাড়ীতে বসবাসরত সায়রার বোন ইতির সাথে কথা বললে তিনি জানান, সে ফুলবাড়ী উপজেলা স¦াস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালের সেবিকার বাসায় কাজ করে। গত এক সপ্তাহ আগে কাজ শেষে স¦াস্থ্য কমপ্লেক্সের  সামনে এক রিশকা চালক ওই বাচ্চা দুটোকে কাজের রাখার কথা বলে আমার কাছে রেখে যায়। রিকশা চালক বলেন যে. তারা এতিম তাদের এখানে কেউ নেই। সায়রার বোন ইতি তার বাড়ীতে দু‘দিন রাখার পর বাসায় থাকার যায়গা না থাকায় সে শিশু দুটিকে তার বোনের বাড়ী রাজারামপুর চৌধুরীপাড়ায় রেখে আসেন।

অপরদিকে নিখোঁজ কাকলীর সাথে কথা বলতে গেলে সে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে হতভম্ব হয়ে যায় এবং শুধু কান্না করে।

এ ব্যাপারে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার হামিদুল আলম জানান, শিশু দুটি অপহরন না অন্যকিছু তা তদন্ত করেই বলা যাবে। তবে প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের পর অপরাধীদের রেহাই দেয়া হবে না।