শুক্রবার ৭ অগাস্ট ২০২০ ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে আশা গ্রাম বিকাশসহ বিভিন্ন এনজিওকর্মীর বিরুদ্ধে জোর করে কিস্তি আদায় ও হয়রানীর অভিযোগ

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রভাবে সারাদেশ অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এতে করে সাধারণ মানুষ বিশেষ করে হতদরিদ্র ও খেটে খাওয়া মানুষ কঠিন আর্থিক সংকটে নিমজ্জিত হয়েছেন। ঠিক সে সময়ে সরকারী নিষেধাজ্ঞাকে উপেক্ষো করে দিনাজপুরে মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে এনজিও নামের মহাজনরা। এসব এনজিও’র মাঠকর্মীরা হতদরিদ্র ও খেটে খাওয়া মানুষের কাছ থেকে কিস্তির টাকা আদায়ে মরিয়া হয়ে পড়েছেন। বিভিন্ন কৌশলে এনজিও’র মাঠকর্মীরা ক্ষুদ্রঋন গ্রহিতাদের প্রতিনিয়ত চাপ প্রয়োগ ও হয়রানী করে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

করোনাভাইরাসের কারণে সরকার প্রথম পর্যায়ে ৩০ জুন-২০২০ তারিখ পর্যন্ত কিস্তি আদায়ে জোর না করার জন্য এনজিওগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছিল। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় দ্বিতীয় পর্যায়ে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর-২০২০ তারিখ পর্যন্ত জোর করে কিস্তি না আদায়ের নির্দেশনা প্রদান করে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু দিনাজপুরে সেই নির্দেশনা অমান্য করে কিস্তি আদায়ে মাঠে নেমেছে এনজিও’র মাঠকর্মীরা। এমনকি কিস্তি আদায়ের জন্য গ্রাহকদের বাড়িতে গিয়ে বসে থাকা ও হুমকি প্রদানেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে কোন কোন এনজিওকর্মীর বিরুদ্ধে।

দিনাজপুর শহরের কালুর মোড় এলাকার শরিফুল আলম নামে জনৈক এক ব্যক্তি “আশা” নামের একটি এনজিও থেকে এমএসএমই ঋন নেন। তিনি নিয়মিত কিস্তি পরিশোধ করে আসছিলেন। কিন্তু বৈশি^ক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে তার ব্যবসা মন্দা হওয়ায় দুই/তিনটি কিস্তি বকেয়া পড়ে। এরই মধ্যে আশার সংশ্লিষ্ট মাঠকর্মী শরিফুল আলমকে বিভিন্নভাবে চাপ দেয়ায় অনেক কষ্ট করে গত ৩০ জুন-২০২০ তারিখ একটি কিস্তি প্রদান করেন। এ সময় তিনি সরকারী ঘোষণা অনুযায়ী ৩০ সেপ্টেম্বরের পর যেভাবেই হোক তিনি নিয়মিত কিস্তি প্রদান করবেন বলে আশা’র মাঠকর্মীকে জানান। এর মধ্যে তাকে যেন কিস্তিুর জন্য চাপ না দেওয়া হয় বলে জানান।

কিন্তু ক’দিন যেতে না যেতেই আবারো তাঁর ব্যবহৃত মোবাইলে একটি ম্যাসেজ আসে, যাতে আগামী ১৪ জুলাই-২০২০ তারিখের মধ্যে পরবর্তী কিস্তি পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। এই ম্যাসেজ পাওয়ার পর তিনি বার বার ওই এনজিও’র মাঠকর্মীকে বোঝানোর চেষ্টা করার পরও তাঁর কথায় কোন কর্ণপাত না করে ১৪ জুলাইয়ের মধ্যে কিস্তি পরিশোধের জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে তাকে।

শরিফুল আলম আরো জানান, জেলা প্রশাসক কর্তৃক অনলাইলে পাঠানো বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারের কথা ওই এনজিও’র মাঠকর্মীকে স্মরন করিয়ে দেওয়ার পর ওই এনজিওকর্মী সরকারী সার্কলারটিকে ভুয়া আখ্যা দিয়ে এটিকে ফেসবুকের কথা বলে উড়িয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন শরিফুল আলম।

শুধু শরিফুল আলমই নন, দিনাজপুর শহরের কাঞ্চন কলোনী, চাউলিয়াপট্টি, লালবাগ, পাটুয়াপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকার হতদরিদ্র মানুষের নিকট থেকে এভাবে জোর করে ও ভয়ভীতি দেখিয়ে কিস্তি আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে বিভিন্ন এনজিও’র মাঠকর্মীর বিরুদ্ধে।

জোর করে কিস্তির টাকা আদায়ের ব্যাপারে দিনাজপুর আশা’র সংশ্লিষ্ট মাঠকর্মীর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা করা হলে তিনি জানান, আমাদের অফিসে এসে উর্ধ¦তন কর্মকর্তার সাথে কথা বলেন। এ কথা বলে মোবাইল সংযোগটি কেটে দেন তিনি।

দিনাজপুরে ব্র্যাক, আশা, টিএমএসএস, গ্রামীন ব্যাংক, গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রসহ ছোট-বড় মিলিয়ে ২০-২৫টির মতো বিভিন্ন এনজিও কার্যক্রম চালমান রয়েছে। খোঁজ নিলেই দেখা যাবে এসব এনজিও’র মাঠকর্মীরা প্রতিদিন কোন না কোন হত দরিদ্র মানুষকে হয়রানী করছেন। আর এতে কিস্তির টাকা পরিশোধের জন্য স্বাস্থ্যবিধিকে উপেক্ষো কাজে যেতে বাধ্য হচ্ছেন এসব হত দরিদ্র মানুষ। উল্লেখ্য, দিনাজপুরে করোনাভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ১০ জুলাই পর্যন্ত দিনাজপুরে ৯১৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ও সুস্থ হয়েছেন ৫০৩ জন। আর এ পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুল কুদ্দুছ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email