বুধবার ২১ অগাস্ট ২০১৯ ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে আসন্ন কুরবানির ঈদে ১ লাখ ৯১ হাজার ২১৪টি গবাদিপশু প্রস্তুত

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরে জেলায় আসন্ন কুরবানির ঈদ উপলক্ষে ১ লাখ ৯১ হাজার ২১৪টি গবাদি পশু প্রস্তুত করা হয়েছে। এর মধ্যে গরু/মহিষ ১ লাখ ১৯ হাজার ৯৬৫টি ও ছাগল/ভেড়া ৭১ হাজার ২৪৯টি।

কুরবানীর জন্য প্রস্তুত গবাদি পশুর মধ্যে ৮৯ হাজার ৩৮০টি ষাঁড়, ১২ হাজার ১৩৩টি বলদ, ১৮ হাজার ৩৮৩টি গাভী ও মহিষ রয়েছে ৬৩টি। অপরদিকে ৭১ হাজার ২৪৯টি ছাগল/ভেড়ার মধ্যে ৬৮ হাজার ২৪২টি ছাগল ও ভেড়া ৩ হাজার ৭টি।

দিনাজপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. শাহিনুর আলম জানান, জেলার ১৩ উপজেলায় সর্বমোট ৬০ হাজার ৫২০টি গবাদি পশু ও ছাগল/ভেড়া হৃষ্টপুষ্টকারী খামারি/পালনকারী রয়েছেন। এ সব খামারে/পালনকারীদের নিকট আসন্ন কুরবানীর জন্য ১ লাখ ৯১ হাজার ২১৪টি কুরবানীযোগ্য পশুর তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তিনি জানান, প্রস্তুতকৃত (মোটাতাজা/হৃষ্টপুষ্ট) গবাদি পশুগুলো সার্বক্ষণিক তদারকি করছেন জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তারা। প্রতিটি খামারে নিরাপদ উপায়ে গবাদি পশু হৃষ্টপুষ্ট করার জন্য তদারকি করা ও পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি ক্ষতিকর ওষুধের ব্যবহার প্রতিরোধে পশু খাদ্য নিয়মিত তদারকি করা হচ্ছে।

ডা. শাহিনুর আলম জানান, ওষুধের অপব্যবহার, রাসায়নিক খাদ্য বর্জনের জন্য সবসময়ই খামারি/পালনকারীদের পরামর্শ দিয়ে আসছেন তারা। রোগাক্রান্ত পশু কিংবা কুরবানির অনুপযোগী গবাদি পশু ক্রয়-বিক্রয় না করার পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি ওষুধের দোকানগুলো যাতে নকল বা মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রি করতে না পারে সে দিকেও নজর রাখছেন তারা।

ডা. শাহিনুর আলম আরো জানান, আসন্ন ঈদে জেলার ১৩ উপজেলায় প্রতিটি পশুর হাটে একটি করে ভেটেরিনারী মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। এসব টিম পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা, খামারি ও হাট কর্তৃপক্ষকে বিভিন্ন পরামর্শ দিবেন। এতে নেতৃত্ব দিবেন সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা। এছাড়া নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাই এবং জবাই পরবর্তী বর্জ্য অপসারণে সংশ্লিষ্টদের সাথে মতবিনিময় সভা করা হবে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

দিনাজপুর সদর উপজেলার পুলহাট এলাকার খামারী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, তাঁর খামারে আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে বিভিন্ন জাতের ১৫টি গরু দেশীয় পদ্ধতিতে মোটাতাজা করা হয়েছে। তিনি বলেন, এবার ভারতের গরু ছাড়াই আমাদের দেশীয় গরু দিয়ে কুরবানির হাট-বাজারগুলো ভরে যাবে। তবে ঈদের সময় যাতে ভারতীয় গরু বাংলাদেশে না আসে সেদিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে খেয়াল রাখার অনুরোধ জানান। উল্লেখ্য, দিনাজপুর জেলায় আসন্ন কুরবানি ঈদে ১ লাখ ৮ হাজার ১১৭ গবাদি পশু চাহিদার বিপরিতে উৎপাদন করা হয়েছে ১ লাখ ৯১ হাজার ২১৪টি গবাদি পশু। যার মধ্যে ৮২ হাজার ৭৯৭টি গবাদি পশু উদ্বৃত্ত থাকবে। অপরদিকে ২৬ হাজার ৮৭টি ছাগল/ভেড়ার চাহিদার বিপরিতে উৎপাদন করা হয়েছে ৭১ হাজার ২৪৯টি। যার মধ্যে ৪৫ হাজার ১৬২টি ছাগল/ভেড়া উদ্বৃত্ত থাকবে।