সোমবার ১৮ জুন ২০১৮ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে রাত দিন কাজ চলছে

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর শহরের মালদহপট্টি অঞ্জলী বুটিকস এন্ড টেইলার্সে দুই মেয়ের ঈদের পোশাক বানাতে এসেছেন কোহিনুর বেগম। তিনি বলেন ২৫ রোমজানে পরিবারসহ ঈদ করতে যাবেন খুলনায় তাই ২৪ রমজানের মধ্যেই পোষাক তৈরী করে দিতে হবে। তবে টেইলার্সের মালিক বলছেন এত অল্প সময়ে ডেলিভারী দেওয়া সম্ভব নয়। শেষে মেয়েদের অনুরোধে মন গলে অঞ্চলী বুটিকস এন্ড টেইলার্সের স্বত্ত্বাধিকারী সম্পা দাস মৌ’র।
এ ঘটনার মাধ্যমেই বোঝা যায় পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরকে সামনে রেখে কতটা ব্যস্ত সমায় পার করছেন দিনাজপুরের দর্জীরা। ঈদের আগে সব কাজ সময়মত বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য দর্জীরা অতিরিক্ত কারিগর নিয়ে কাজ চালাচ্ছেন। এবার ২৫ রোজার পরে আর অর্ডার নেবেন না বলে জানিয়েছেন তারা। শহরের বিভিন্ন স্থানে টেইলার্সের দোকান রয়েছে। টেইলার্স মালিকরা জানান, রোজার প্রথম দিক থেকে ১০ রমজান পর্যন্ত অর্ডার একটু কম আসে। তবে এখন প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে সেলাইয়ের কাজ।
সরজমিনে দিনাজপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা গেছে জামা কাপড় তৈরী নিয়ে দর্জীরা ব্যস্ত। এমনকি সময়মত খাবারেরও সময় পাচ্ছেননা তারা। কেউ কাপড়ের মাপ নিচ্ছেন, কেউ কাপড় কাঁটছেন, কেউ আবার সেলাই করছেন, কেউবা স্ত্রী করছেন, কেউ ভাজ করছেন, আবার কেউ অর্ডার বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য তৈরী জামাকাপড় সাজিয়ে রাখছেন। দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী মাইশা রহমান জানান, ঈদের সময় সবাই চায় নতুন কাপড় পড়তে, আর রেডিমেট দোকানে একই নকশার অনেক পোশাক থাকে তাই পছন্দমত কাপড় কিনে টেইলার্সে কাপড় বানাতে দিচ্ছি। অঞ্জলী বুটিকস এন্ড টেইলার্সে আসা শহরের ঈদগাহ বস্তি এলাকার বাসিন্তা তাসপিয়া আক্তার জানান, থ্রিপিচ বানাতে এসেছি। কারণ এখান থেকে কাপড় সেলাই কারলে ফিটিং সুন্দর হয়। কোন সমস্যা হলে নিয়ে আসা যায়।
ইদকে সামনে রেখে জামার কাপড় কিনতে আসা শহরের বালুয়াডাঙ্গার মনিষা আক্তার জানান, প্রতি বছর ঈদে আমি দর্জীর দোকানে কাপড় কিনে জামা বানাই।
দর্জী কারিগররা বলছেন, ঈদকে সামনে রেখে গত বছরের চেয়ে এ বছর এখন পর্যন্ত ওর্ডার একটু বেশী অর্ডার প্রতি তারা ৩০০ থেকে ১২০০ পর্যন্ত মজুরী নিচ্ছেন।
অঞ্জলী বুটিকস এন্ড টেইলার্সের স্বত্ত্বাধাকরী সম্পা দাস মৌ জানান, তিনি এখনও পোশাক তৈরীর অর্ডার নেয়া অব্যাহত রেখেছেন। তিনি জানান, এ বছর তরুনীদের পছন্দের পোশাক লং কামিজ, ফোলটাচ, কুর্তি, গাউন, টপস, প্লাজু, লেহেংগাসহ বিভিন্ন স্টাইলের পোশাক বানাচ্ছে।