সোমবার ১৮ জুন ২০১৮ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৯টায়

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরে ৩য় বারের মতো নান্দনিক নির্মাণশৈলী দিয়ে দৃষ্টি নন্দন ও সৌন্দর্য মন্ডিত বাংলাদেশের বৃহৎ দিনাজপুরের  ঈদগাহ ঐতিহাসিক গোর এ শহীদ বড় ময়দানে ঈদের জামাত সফল ও শান্তিপূর্নভাবে আদায়ে সব রকম প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। ঈদ-উল ফিতরের নামাজ অনুষ্ঠিত হবে ঈদের দিন সকাল ৯টায়।

দিনাজপুরের ঐতিহাসিক গোর এ শহীদ বড় ময়দানে উপমহাদেশের বৃহৎ ঈদগাহ মাঠে প্রধান ঈদের জামাতে লাখ লাখ মুসল্লিরা নির্বিঘ্নে নামাজ আদায়ে নেয়া হয়েছে সর্বাত্মক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। নেয়া হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

বৃহস্পতিবার ঈদগাহ মাঠ পরিদর্শনকালে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, এ ঈদগাহ মাঠে গতবছর একসাথে ৫ লাখ মুসল্লি নামাজ আদায় করেছেন। এবার এশিয়ার বৃহৎ এই ঈদগাহ মাঠে নামাজ পড়তে আরও দুরদরান্তের মানুষ শরীক হবেন এবং আশা করি এবার ৮ লাখ মুসল্লি এক সংগে নামাজ আদায় করবেন ।

মাঠ পরিদর্শনকালে জেলা প্রশাসক ড. আবু নঈম মুহাম্মদ আব্দুছ ছবুর বলেন, ঐতিহাসিক গোর এ শহীদ বড় ময়দানে আগামী ঈদ উল ফিতরের জামাত সফল ও শান্তিপূর্নভাবে আদায়ের লক্ষ্যে সকল ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

পুলিশ সুপার হামিদুল আলম বলেন, দেশের বৃহৎ এ ঈদ জামাতকে ঘিরে কয়েক স্তরের কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ৮ শতাধিক পুলিশের পাশাপাশি মোতায়েন থাকবে র‌্যাব ও আনসার বাহিনী। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকবে বিজিবি।

উল্লেখ্য, ঈদের নামাজে অংশ নেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, বিচারপতি এনায়েতুর রহিম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, জেলা প্রশাসক ড. আবু নঈম মুহাম্মদ আব্দুছ ছবুর, পুলিশ সুপার হামিদুল আলম, দিনাজপুর পৌরসভা মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

এর আগে দিনাজপুর ঐতিহাসিক গোর এ শহীদ বড় ময়দানে ছোট পরিসরে ঈদের নামাজ প্রতিবছরই আদায় করা হতো। সে ঈদগাহ সরিয়ে মাঠের পশ্চিমে নেওয়ার পর নির্মাণ করা হয়েছে দৃষ্টি নন্দন ও সৌন্দর্য মন্ডিত ঈদগাহ মিনার। এটি এখন বাংলাদেশে তথা দক্ষিন এশিয়ার সর্ববৃহত ঈদগাহ ময়দান।

দিনাজপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য ও হুইপ ইকবালুর রহিমের পরিকল্পনা এবং জেলা পরিষদের অর্থায়নে এটি নির্মাণ করা হয়েছে। ইরাকের মসজিদে নব্বী, কুয়েত, ভারত ও ইন্দোনেশিয়াসহ বিভিন্ন দেশের স্থাপনার আদলে এই ঈদগাহ ময়দান সাজানো হয়েছে।

মিনার কেন্দ্রিক মাঠের আয়তন ২০ থেকে ২২ একর। তবে মাঠের মধ্যে আরও কিছু স্থাপনা অপসরণের কাজ চলছে। যা শেষ হওয়ার পর পুরো মাঠের আয়তন হবে ৬৫ একর।