বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপরতা অব্যাহত

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।
করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সারা দেশের ন্যায় গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশের ন্যায় দিনাজপুরে সাধারণ সরকারি ছুটি কার্যকর হওয়ায় গণপরিবহনসহ দোকান পাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রুয়েছে। সব কিছু বন্ধ থাকলে দিনাজপুর জেলা শহরসহ গোটা জেলায় পুলিশসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শহর ও আশপাশের এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা শহরে টহল দিতে দেখা গেছে।
রবিবার (২৯ মার্চ) সকাল ১১টায় করোনাভাইরাস থেকে মানুষকে সচেতন করতে অন্যান্য দিনের মত দিনাজপুর ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) মো. শফিউল আলমের নেতৃত্বে জেনারেল হাসপাতাল মোড় থেকে মোটরসাইকেল মহড়া বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে স্টেশন রোডস্থ ট্রাফিক অফিসের সামনে গিয়ে শেষ হয়। মহড়ায় দিনাজপুর শহরে কর্মরত ট্রাফিক পুলিশের সকল সার্জেন্ট অংশগ্রহণ করেন। কোথাও কোন জনসমাগম ও মানুষের জটলা দেখলে তা ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়। এ সময় সাধারণ মানুষকে জরুরী কোন প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় বের না হওয়ার আহবানও জানান ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা। টহলের সময় লোকজনকে রাস্তা থেকে সড়ে গিয়ে বাসা-বাড়ীতে চলে যেতে দেখা গেছে।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহলের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সদস্যরা রবিবার শহরে টহল দিয়েছে। এ সময় সেনা সদস্যরা হ্যান্ড মাইকে করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা সম্পর্কে প্রচারনা চালান এবং মানুষকে অহেতুক রাস্তায় ঘুরাফেরা না করে নিজ নিজ ঘরে অবস্থানের আহবান জানান।
অপরদিকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দিনাজপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি মো. পারভেজ ও সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন’র নেতৃত্বে যুবলীগের কর্মীরা শহরের জেনারেল হাসপাতাল মোড়, পৌরসভার মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে জীবানুনাশক স্প্রে করেছেন।
এদিকে দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডা. মো. অব্দুল কুদ্দুস জানান, জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তির সংখ্যা কমেছে। রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিল২৫৫ জন। শনিবার এই সংখ্যা ছিল ২৯০ জন। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হগয়েছে।
উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দিনাজপুরে সব কিছু বন্ধ থাকলেও ওষুধ, খাদ্য সামগ্রীর দোকান, কাঁচা বাজার খোলা রয়েছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email