শনিবার ২৪ অগাস্ট ২০১৯ ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে কৃত্তিম পদ্ধতিতে দ্রুত শস্য শুকানোর মেশিনের উদ্বোধন

হাবিপ্রবি, দিনাজপুরঃ ভূট্টা, ধানসহ অন্যান্য ফসল দ্রত শুকানোর মেশিন উদ্ভাবন করেছেন বাংলাদেশি গবেষকরা। দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি  বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাত হোসেন সরকারের নেতৃত্বে একদল গবেষক এই মেশিন তৈরি  করেন। আজ সকালে দিনাজপুরের এলমিস অটো রাইস মিলে এর উদ্বোধন করেন কৃষি গবেষনা ফাউন্ডেশনের(কেজিএফ) নির্বাহী পরিচালক জনাব ড. ওয়ায়েস কবীর। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. বি কে বালা, হাবিপ্রবির রেজিস্ট্রার প্রফেসর ডা. মোঃ ফজলুল হক, আইআরটি এর পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ তারিকুল ইসলাম, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, রংপুর এর উপ-পরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, দিনাজপুর এর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ তৌহিদুল ইসলাম, বিআরআরআই এর পিএসও এ. কে. এম. সাইফুল ইসলাম, লালতীর সিড লিমিটেড এর জিএম ড. ইসরাত হোসেন, দিনাজপুর জেলা চালকল মালিক গ্রুপের সভাপতি মোঃ মোছাদ্দেক আলী সহ হাবিপ্রবির বিভিন্ন অনুষদের শিক্ষক শিক্ষার্থীবৃন্দ।

উদ্বোধনের সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে উক্ত প্রজেক্ট টিমের প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর প্রফেসর ড. সাজ্জাত হোসেন বলেন মসলা জাতীয় ফসলের ক্ষেত্রে টুকিটাকি ফাস্ট স্টেজ ড্রায়িং টেকনিক ছাড়া গ্রেইনের (ভুট্রা,ধান) জন্য  আমাদের  দেশে টু স্টেজ ড্রায়িং টেকনিক নিয়ে কোথাও কাজ হয়েছে বলে আমার জানা নেই, আমরাই প্রথম এই টেকনোলজি উদ্ভাবন করেছি। এটি পরিবেশবান্ধব, বিধায় পরিবেশে ও জীব বৈচিত্রের  প্রতি এর কোনও বিরুপ প্রভাব নেই,প্রোটিন ও সঠিক পরিমাণে থাকে। বর্তমানে এই  পদ্ধতিতে প্রথম স্টেজে  ভুট্রা বা ধান  ফ্লুডাইজড বেড ড্রায়ার ব্যবহার করে মাত্র ৪ মিনিটে ২৮ শতাংশ আদ্রতা থেকে ২০ শতাংশ আদ্রতায় নিয়ে আসা যায় এবং দ্বিতীয় স্টেজে এলএসইউ/সান ড্রাই পদ্ধতি ব্যবহার করে মাত্র ৩-৪ ঘন্টায় ২০ শতাংশ থেকে ১২ শতাংশ এ নিয়ে আসা যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, কিভাবে কম খরচে এটিকে কৃষক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া চায় সে নিয়ে কাজ করব, যাতে কৃষকদের হাতের নাগালে পৌছে দিতে পারি।

অনুষ্ঠানে কৃষি গবেষনা ফাউন্ডেশনের(কেজিএফ)নির্বাহী পরিচালক জনাব ড. ওয়ায়েস কবীর বলেন কেজিএফ বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতায় কৃষি বিষয়ক গবেষণার উপর অর্থায়ন করে থাকে। তিনি বলেন, আমাদের দেশে বিশেষকরে বর্ষাকালে যে ধান,গম,ভুট্টার চাষ হয় এটি শুকানো আসলেই অনেক কঠিন কাজ, সেক্ষেত্রে এই মেশিন গুরুপ্তপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করি।

মেশিনের উদ্বোধন শেষে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি  বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়াম দুই তে একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআরটি এর পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ তারিকুল ইসলাম সভাপতিত্বে উক্ত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাবিপ্রবির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য প্রফেসর ড. ভবেন্দ্র কুমার বিশ্বাস।

উল্লেখ্য উক্ত প্রজেক্টে কো- ইনভেস্টিগেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন প্রফেসর ড. মোঃ মফিজউল ইসলাম ও সহকারি অধ্যাপক মোঃ আব্দুল মমিন শেখ। এছাড়াও গবেষণা সহকারি হিসেবে ছিলেন মোঃ হাছান তারেক ও মোঃ আক্তারুজ্জামান এবং গবেষণা ফেলো হিসেবে ছিলেন এজাদুল ইসলাম।