রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১লা পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে গম-ভুট্টা পুষ্টিমান সংরক্ষণে দিনব্যাপী গৃহিনীদের প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত

রফিকুল ইসলাম ফুলাল ॥ দিনাজপুরে গম-ভুট্টা এবং অন্যান্য খাদ্যদ্রব্যের পুষ্টিমান সংরক্ষণে করণীয় বিষয়ে দিনব্যাপী গৃহিনীদের প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষনা ইনষ্টিটিউট দিনাজপুরের আয়োজনে আজ সকালে ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে গৃহিনীদের নিয়ে দিনব্যাপী প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষনা ইনষ্টিটিউটের মহাপরিচালক ড.মো: এছরাইল হোসেনের সভাপতিত্বে  প্রশিক্ষন কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব (গবেষনা-১) মোর্শেদা আক্তার।

প্রধান অতিথি প্রশিক্ষনার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন,খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা অর্জনে আমাদের গম ও ভুট্টার উৎপাদন বাড়াতে হবে আর এজন্যে গবেষনার বিকল্প নাই। তিনি গম ভুট্টার পুষ্টি সমৃদ্ধ,প্রতিকুল পরিবেশ(তাপ,খরা,লবনক্তা)সহনীয় এবং রোগ ও পোকামাকড় প্রতিরোধী জাত উদ্ভাবনের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি আরো বলেন,বাংলাদেশে বর্তমানে গমের চাহিদা ৭০ লাখ টন আরা উতপাদন হচ্ছে মাত্র ১১ লাখ টন, অপর দিকে ভুট্টা ফসলেও আমাদের ঘাটতি রয়েছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন,সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা খাদ্যা ও পুষ্টি নিরাপত্তায় সমৃদ্ধ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলবো।

সভাপতির বক্তব্যে মহাপরিচালক ড.এছরাইল হোসেন বলেন,গম ও ভুট্টা চাষ একদিকে লাভজনক অন্যদিকে পুষ্টি সমৃদ্ধ। িিতনি বলেন,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে অবশ্যই গম ওভুট্টার চাষ বৃদ্ধি করতে হবে।

তিনি তার বক্তব্যে আরো বলেন,বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা ইনস্টিটিউট ইতিমধ্যেই ৩৪টি উচ্চফলনমীল গমের জাত উদ্ভাবন করতে সক্ষম হয়েছে। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ব্লাস্ট প্রতিরোধী জাত বারি গম ৩৩ যার মধ্যে জিংক এর পরিমান ৫০-৫৫ মাইক্রোগ্রাম।

প্রশিক্ষানার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো তিনি জানান,২০১৯ সালে ডব্লিউএমআরআই ১ নামে একটি তাপসহনশীল জাত উদ্ভাবিত হয়েছে। বিজ্ঞানীদের প্রজ্ঞা,মেধা ও অক্লান্ত শ্রমে এপর্যন্ত ভুট্টার ১৭টি হাইব্রিড জাত,৭টি ওপেন পলিনেটেড কম্পোজিট জাত উদাভাবিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন,মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো: জামান সরকার এবং ড মো: বদরুজ্জামান। দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষনে বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষনা ইনষ্টিটিউট দিনাজপুর,কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর,বিএডিসি,ব্যাংক ও বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বিজ্ঞানী,কর্মকর্তা ও শিক্ষকগনের অর্ধশতাধিক সহধর্মীনিরা প্রশিক্ষনের অংশগ্রহন করেন।