বৃহস্পতিবার ১৬ অগাস্ট ২০১৮ ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে জাল অফিস খুলে চাকুরী দেয়ার নামে ২ কোটি টাকা আত্মসাত করে পালিয়েছে একটি কোম্পানী

শিমুল, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরে চাকুরী দেয়ার নামে জাল অফিস করে প্রায় ২ কোটি টাকা টাকা গ্রহণ করে আত্মসাৎ করে পালিয়েছে মোনাভি অল বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিডেট নামে একটি কোম্পানী।
টাকা আত্মসাতের বিরুদ্ধে এবং এই প্রতারনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করে টাকা ফেরতৎসহ উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে প্রতিষ্ঠানের ক্ষতিগ্রস্থ কর্মচারীরা। এই ঘটনায় জেলার কোতয়ালী থানায় একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন ক্ষতিগ্রস্থরা।
বুধবার সকালে বীরগঞ্জ উপজেলার পলাশবাড়ী ঝলঝলি গ্রামে কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীমা আজাদের বাড়ির সামনে প্রায় ৩ শতাধিক ক্ষতিগ্রস্থ কর্মচারী এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। মানববন্ধন থেকে অর্থ আত্মসাতকারীদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতার করা এবং বিষয়টিতে সুদৃষ্টি দিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।
ক্ষতিগ্রস্থ কর্মচারীরা জানায়, প্রায় ৬-৭ মাস ধরে মোনাবি অল বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিডেট কোম্পানীর চেয়ারম্যান গাজীপুর জেলার সদর উপজেলার পিরুজালি উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত: আফছার আলীর ছেলে জামাল হোসেন মুকুল, ব্যবস্থাপনা পরিচালক জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার পলাশবাড়ী ঝলঝলি গ্রামের আবুল কালাম আজাদের স্ত্রী শামীমা আজাদ, তার স্বামী আবুল কালাম আজাদ, কোম্পানীর পরিচালক বাবুল শেখ, সুজন শিকদার, সুজন শিকদারসহ বেশ কয়েকজন জেলার সদর, বীরগঞ্জ ও ফুলবাড়ী উপজেলায় ৪টি শাখা অফিস খুলে বিভিন্ন পদে কর্মচারী নিয়োগ দেয়ার জন্য প্রায় ৪ শতাধিক ব্যাক্তির নিকট থেকে ৫০-৬০ হাজার করে টাকা গ্রহণ করে। এছাড়াও বেশ কিছু লোকজনের কাছে রিয়েল ষ্টেট ব্যবসার নামে ৬-৭ লাখ টাকা করে গ্রহণ করে। কিন্তু কিছুদিন অফিস পরিচালনা করে ১০ মে হঠাৎ করেই পালিয়ে যায়। পরে তাদের মোবাইলে যোগাযোগ করা হলেও পাওয়া যায়নি (কারো ফোন বন্ধ, কেউ রিসিভ করে না)। এই বিষয়ে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে ক্ষতিগ্রস্থ কর্মচারীরা।
ওই কোম্পানীর ক্ষতিগ্রস্থ কর্মচারী মোহাম্মদ উল্লাহ বাবু জানান, এখানে অনেকেই আছেন যারা জমি বিক্রি করে টাকা দিয়েছেন। অনেকেই ঋণ কিংবা ধার করে টাকা দিয়েছেন। এখন তাদের অবস্থা খুবই খারাপ। এই ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচারের জন্য তিনি দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান।
কোম্পানীর আরেক কর্মচারী সিরাজুল ইসলাম মানিক বলেন, ‘বেকার ছিলাম। কোথাও চাকুরী না পেয়ে অবশেষে ৬০ হাজার টাকার এই কোম্পানীতে প্রবেশ করি। কোনভাবেই বুঝতে পারিনি কোম্পানীটি টাকা মেরে দিয়ে পালিয়ে যাবে। এখন আমার অবস্থা খুবই খারাপ। বাড়িতেও বকাবাদ্যের শিকার হতে হচ্ছে। কোথায় যাব, কি করবো ভেবে পাচ্ছি না।’
কর্মচারী ইসমে আরা জানান, বাড়িতে গেলেই বকাবাদ্য শুনতে হচ্ছে। ভাল জীবনের প্রত্যাশ্যায় এসে এখন সমস্যায় পড়ে যেতে হয়েছে। টাকা ফেরতসহ এই ঘটনায় জড়িতদের যাতে করে উপযুক্ত শাস্তি হয় এই কামনা করেন তিনি।
এব্যাপারে চেয়ারম্যান জামাল হোসেন মুকুল (০১৭১৬২৩১০৭০), ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীমা আজাদ (০১৭১৫৫৮৭৬৮৩)সহ অভিযুক্তদের মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তাদের মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। আর অভিযুক্ত বাবুল শেখের মোবাইল (০১৭৬২৪৯৬০২৯) খোলা থাকলেও তিনি মোবাইল রিসিভ করেননি।