শুক্রবার ২২ নভেম্বর ২০১৯ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে জাসদের ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর সিপাই-জনতা অভ্যূত্থান দিবস পালিত

কাশী কুমার দাস, স্টাফ রিপোর্টার ॥ “নিঃশঙ্ক চিত্তের চেয়ে জীবনের আর কোন বড় সম্পদ নেই”- শহীদ কর্ণেল তাহেরের এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার জাসদ দিনাজপুর জেলা শাখার অস্থায়ী কার্যালয় কালিতলা পৌর মার্কেটে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ দিনাজপুর আয়োজিত ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর সিপাহী-জনতা অভ্যুত্থান দিবস পালিত হয়। সভার শুরুতে জাসদের সভাপতি এ্যাডঃ লিয়াকত আলী ও সাধারণ সম্পাদক সহিদুল ইসলাম শহিদুল্লাহ’র নেতৃত্বে সদস্যরা শহীদ কর্ণেল তাহেরের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।

জাসদ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি বিশিষ্ট আইনজীবী এ্যাডঃ লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য এ্যাডঃ ইমামুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক সহিদুল ইসলাম শহিদুল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাবেক ছাত্র নেতা অধ্যক্ষ আনোয়ারুল হক। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জেলা জাসদের দপ্তর সম্পাদক এ্যাডঃ ইন্দ্রোজিত রায় অনিক, শহর জাসদের সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, সাধারন সম্পাদক রকিবুল ইসলাম রকি, সহ-সভাপতি মোঃ আশরাফ আলী, জাসদ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মায়া দাস অভি, মোঃ হাসান, শরিফ সরদার লাবু, নারী জোটের সভানেত্রী এ্যালমা লতিফ শিল্পী ও সুলতানা আক্তার। বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর শহীদ কর্ণেল আবু তাহের বীর উত্তমের নেতৃত্বে সিপাই বিদ্রোহ, সিপাই জাতীয় অভ্যুত্থান ছিল বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় ৪ নেতাকে হত্যা, অবৈধ ক্ষমতা দখল, সংবিধান লঙ্ঘন, সামরিক শাসন জারী, সেনাবাহিনী প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষমতার ব্যবহার করে ক্ষমতা লিপ্সু কতিপয় অফিসারের ব্যক্তিগত ক্ষমতা দখলের জন্য পাগল কুকুরের মত কামড়া কামড়ি বন্ধ করতে, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা, সংকট দূর করতে এবং সেনাবাহিনীসহ উপনৌবেসিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার পরিবর্তন আনতে এক মহান বিপ্লবী প্রচেষ্টাই ছিলো ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর।