সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে জেলায় ৬০ ঘন্টার শেষ দিন হরতালে

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর সদরের বাড়ী ও দোকান ভাংচুর করেছে হরতাল বিরোধী আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। হরতালে ৩ বিএনপি-জামায়াত কর্মী আটক। হাবিপ্রবিতে শিবির-ছাত্রদল একত্রিত হয়ে ছাত্রলীগের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

বুধবার সকাল থেকে দিনাজপুর শহরসহ বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়নের রাসত্মার মোড়ে মোড়ে পিকেটিং করে হরতাল সমর্থকরা। এ সময় তারা রাসত্মায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে হরতাল পালন করে। বেলা ১টার সময় সদর উপজেলার রাণীগঞ্জ বাজারে বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা একটি মিছিল বের করলে হরতাল বিরোধী আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা সামুরাই, লাঠিসোটা নিয়ে মিছিলে হামলা করে। এক পর্যায়ে তারা ৩নং ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি সিরাজুল ইসলামের বাড়ী ও দোকানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। তাদের হামলায় নুর ইসলাম, আবু বক্কর, গোলাম আজম, আব্দুস সোবহানসহ অমত্মত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এদিকে দিনাজপুরে হরতাল চলাকালে শহরের স্টেশন রোড, ফুলবাড়ী বাস স্ট্যান্ড, পুলহাটসহ কয়েকটি স্থানে ৮/১০টি মোটরসাইকেল ও রিক্সা ভাংচুর করেছে পিকেটাররা। সকালে সদরের পাঁচবাড়ী এলাকা থেকে খাদেমুল ইসলাম কচু (৩২) নামে ইউনিয়ন বিএনপির এক কর্মীসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

গতকাল বুধবার সারোয়ার অটোরাইস মিলের ক্যাশিয়ার আব্দুল কাদের মটর সাইকেল যোগে মিলে আসার সময় খোয়াড়ের মোড় নামক স্থানে স্থানীয় পিকেটাররা মটর সাইকেল ভাংচুর করে। মটর সাইকেল চালক আব্দুল কাদের জানান তাদের দেখে মটর সাইকেল থেকে নামলেও তারা আমার মটর সাইকেল ভাংচুর করে। এ ব্যাপারে আমি মামলা প্রস্ত্ততি নিচ্ছি।

শেষ দিনের হরতালে বিএনপি ও ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা মোড়ে মোড়ে অবস্থান নিয়ে পিকেটিং করে ও খন্ড খন্ড মিছিল করে। সকাল থেকেই বি্এনপি, ছাত্রদল, যুবদল, কৃষক দল, মহিলা দল, সেচ্ছাসেবক দল, জামায়াতে ইসলামী, ছাত্র শিবির, জাগপা, যুব জাগপা, তাঁতীদল, সেচ্ছাসেবক দল সহ ১৮ দলীয় ঐক্যজোটের একটি বিশাল মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে।

জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু ও সাধারন সম্পাদক মুকুর চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক ও পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আখতারম্জ্জামান জুয়েল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক হেলাল, যুবদলের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম ও শহর সেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক ইখতিয়ার আহমেদ কচির নেতৃত্বে শহরে মিছিল ও পিকেটিং হয়।

জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এড. আঃ হালিম, সাধারন সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন ও এড. আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে।

জেলা জামায়াতে ইসলামীর  ভারপ্রাপ্ত আমির এড. মাহাবুবুর রহমান ভুট্টু, শহর আমির তৈয়ব আলী ও মাঃ মজিবর রহমানের নেতৃত্বে একটি বিশাল মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। জাগপা সভাপতি আলহাজ্ব রকিব উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে পৃথক একটি মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে।

বীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি মনজুরুল ইসলাম (মনজু) এর নির্দেশনায় উপজেলা বিএনপি, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, তাতি দল, যুবদল, কৃষক দলের ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধে হরতালের শেষ  দিন বীরগঞ্জে স্বতঃস্ফুর্ত হরতাল পালিত হয়।

বোচাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক প্রভাষক মঞ্জুরুল ইসলামের নেতৃত্বে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

পার্বতীপুর উপজেলা সভাপতি, জেলা বিএনপির সদস্য ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য সাবেক এমপি এ জেড এম রেজওয়ানুল হক চৌধুরী ও পৌর মেয়র এ জেড এম মিনহাজুল হকের নেতৃত্বে পারর্বতীপুরেও বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় এবং সর্বাত্বক হরতাল পালিত হয়।

চিরিরবন্দর উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক সাবেক এমপি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য আক্তারম্জ্জামান মিয়ার নেতৃত্বে মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মোস্তফা কামাল মিলন ও  সদস্য সচীব মোকসেদুল ইসলাম টুটুল এর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে।   দিনাজপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব আশরাফুল আলম ও সাবেক প্রচার সম্পাদক এ কে আজাদের নেতৃত্বে পৃথক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।