সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ঝাড়ু তৈরী করে পাল্টে দিয়েছে ২টি গ্রামের মানুষের ভাগ্যচিত্র

দিনাজপুর প্রতিনিধি: মহিউদ্দীন নামে এক  যুবক সেই ঝাড়ু তৈরী করে এবং প্রশিক্ষন দিয়ে পাল্টে দিয়েছে ২ টি গ্রামের মানুষের ভাগ্যচিত্র। দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ফরাক্কাবাদ ইউনিয়নের চককাঞ্চন  ও শান্তিপুর গ্রামে ১৭-১৮ বছর ধরে তৈরী হচেছ বিভিন্ন ধরনের ঝাঁড়। এ পেশার সঙ্গে জড়িত থেকে জীবিকা নির্বাহ করছে প্রায় ২ শতাধিক পরিবার। ছোট কাজ ভেবে এই ব্যবসায় তেমন কোন প্রতিযোগীতা কিংবা প্রতিদ্বন্ধিতা  না থাকায় বিভিন্ন জেলায়  তারা স্বাচ্ছন্দভাবে ঝাঁড়ু বিক্রি করতে পারে।

পুঁজির অভাবে অনেকে ঝাড়ু তৈরীর কাঁচামাল কিনতে পারে না। তবে সরকারী ভাবে স্বল্প সুদে আর্থিক সহযোগিতা পেলে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে  বড় পরিসরে আরো ভাল মানের টেকশই ঝাড়ু তৈরী করে বাজারে সরবরাহ করার  ব্যাপারে তাদের অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করেন।

দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ফরাক্কাবাদ ইউনিয়নের চককাঞ্চন  ও শান্তিপুর গ্রামে ২ শতাধিক পরিবার আগে কৃষি কাজ করেই জীবিকা নির্বাহ করতো ফলে সংসারে অভাব অনটন লেগে থাকতো।

পঞ্চগড়ের একটি গ্রাম থেকে শিখে এসে ১৯৯০ সালে গ্রামের মহিউদ্দিন সর্বপ্রথম ঝাড়ু তৈরীর কাজ শুরু করেন। তার দেখা দেখি গ্রামের আরো কয়েকজন ঝাড়ু তৈরী করে ব্যবসা শুরম্ন করেন। এরপর এভাবেই একের পর এক ওই গ্রামের প্রায় পরিবার ঝাড়ু তৈরীর ব্যবসায় জড়িযে যান। এক সময় চককাঞ্চন  ও শান্তিপুর ঝাড়ু তৈরী গ্রাম হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

ঝাড়ু তৈরীর মূল উদ্যোক্তা মহিউদ্দিন জানালেন এ পেশাকে আশে পাশের গ্রামের লোকজন প্রথমে ভালো চোঁখে দেখতো না। ঝাড়রু ব্যবসা করে  চককাঞ্চন  ও শান্তিপুর গ্রামের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হওয়ায় অনেকেই এখন আসে এ ক্ষুদ্র শিল্পটিকে এক নজর দেখতে। সে জানায় ঝাড়ু তৈরীর মৌসুম বৈশাখ ও জৈষ্ঠ্য মাস। তারা বর্তমানে তিন প্রকারের ঝাড়ু তৈরী করে। বড়, মাঝারী ও ছোট মাপের ঝাঁড়ু ।

ঝাঁড়ু তৈরীর কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত নারিকেলের কাঁঠি বা খোঁচা ক্রয় করে  নিয়ে আসা হয় সুদুর দক্ষিনের জেলা যশোর হতে। সেখানে নারিকেলের কাঁঠি বা খোচা বিক্রি হয় প্রতিমন ৬০০ টাকা মুল্যে। ঝাঁড়ু তৈরী করতে  নারিকেলের  কাঠির পাশাপশি আরো যে সমস্ত আনুসাঙ্গিঁক জিনিস পত্রের প্রয়োজন হয় সে গুলোও দেখতে হালকা ও ফেলে দেয়া মাল মনে    হলেও কিনতে হয় উচিৎ মুল্যে, আর এ গুলো হচ্ছে কাঠের গুড়ি , জিআই তাঁর, কাঁটা, টিনের পাত, কনডেন্স মিল্ক এর ফেলে দেয়া কৌটা এছাড়াও  অনেক সময় পস্নাস্টিকের চিকন দড়ি ঝাঁড়ু তৈরীর ক্ষেত্রে ব্যাবহার করা হয়।

এই দুই পল্লী গ্রামের বাসিন্দারা তিন প্রকারের ঝাড়ু তৈরী করে, এদের মধ্যে বড় ঝাড়ুর দাম ৩০ টাকা ,মাঝারী ঝাঁড়ুর দাম  ২০ টাকা এবং ছোট ঝাঁড়ুর দাম ১০ টাকায় বিক্রি করে থাকে। এ ছাড়াও তারা দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা ব্যবসায়ীদের কাছে পাইকারী বড় ঝাঁড়ু  প্রতি শ ২৫০০ টাকা ,মাঝারী ঝাঁড়ু  ১৫০০ টাকা , এবং ছোট ঝাঁড়ু  ৭০০-৮০০ টাকায় বিক্রি করে থাকে।

ঝাঁড়ু তৈরী শ্রমিক আমেনা বেগম জানান, সে একাই দিনে এক থেকে দেড় শো ঝাঁড়ু তৈরী করতে পারে। এ জন্য পারিশ্রমিক হিসাবে প্রতি শো বড় ঝাঁড়ু’র ক্ষেত্রে সে পায় ১০০-১২০  টাকা, ছোট ঝাঁড়ু বাঁধলে প্রতি শো’তে পায় ৩৫-৪০ টাকা।

এই দুই গ্রামের বসবাসকারী যে কোন পরিবারের ৩-৪ জন সদস্য একদিনে ২০০ ঝাড়ু তৈরী করতে পারে। এমনও পরিবার আছে যাদের পুজি না থাকায় অন্যের বাড়ীতে শ্রমিক হিসেবে ঝাড়ু তৈরীর কাজ  করে প্রতিদিন ১৫০-২০০ টাকা মজুরী পায় তা দিয়েই চলে তার সংসার ।

দিনাজপুরের বিরল উপজেলার  চককাঞ্চন  ও শান্তিপুর গ্রামের মানুষের প্রত্যাশা স্বল্প সুদে ব্যাংক ঋন সুবিধা পেলে ভালো মানের ঝাড়ু তৈরী করে দেশ ও বিদেশের বাজারে সরবরাহ করে নিজেরা আরো স্বাবলম্বী এবং লাভবান হতে পারবে সেই সাথে ক্ষুদ্র শিল্পের বিকাশে গতির সঞ্চার ঘটবে ।