বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে তীব্র শীতে শীতবস্ত্রের অভাবে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ বন্যায় সর্বহারা মানুষের

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরে অব্যাহত তীব্র শীতে ছিন্নমুল ও অসহায় মানুষের মতো চরম দুর্ভোগে রয়েছে গত বন্যায় সব হারানো ক্ষতিগ্রস্ত মানুষেরাও। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত নিম্ন আয়ের বেশীরভাগ মানুষই শীতবস্ত্রের অভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছে। আর সরকারীভাবে শীতবস্ত্র বিতরন করা হলেও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এসব মানুষের কাছে তেমন পৌছেনি শীতবস্ত্র। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কোন কোন স্থানে একটিও কম্বল পৌছেনি এ পর্যন্ত। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকটি এলাকা ঘুরে এমন তথ্য জানাগেছে।

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ৬নং নিজপাড়া ইউনিয়নের নিজপাড়া (জালিয়াপাড়া) গ্রামে যারা বসবাস করেন-তারা অধিকাংশই নিম্ন আয়ের এবং দিনমজুর। গত বন্যায় এই গ্রামের প্রত্যেকটি বাড়ী প্লাবিত হয়। এর মধ্যে অনেক বাড়ী ভেঙ্গে যায়। অধিকাংশ মানুষরই সহায়-সম্বল সব ভেসে যায়। বন্যার পানি নেমে গেলে বিধ্বস্ত বাড়ীতে ফিরে এসে সরকারী  ও বেসরকারী সহায়তায় এখন কেউ টিনের বেড়া আবার কেউ পলিথিন দিয়ে বিধ্বস্ত বাড়ীতে বসবাস করছে। বন্যার কয়েক মাস পরেই অব্যাহত তীব্র শীতে এখন তাদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ। তীব্র শীতে এখন তারা দুর্বিসহ জীবন-যাপন করছে।

এই প্রতিবেদক বৃহস্পতিবার ওই গ্রামে গেলে প্রায় ৮০ বছর বয়স্ক বৃদ্ধ অবিনাশ রায় তার ভাষায় জানান, “গেলো বানোত (বন্যায়) বাড়ী-ঘর তামান ডুবি গেইছেলো, বাড়ী ছাড়ি গায়োত (শরীর) যেইলা কাপড় আছেলো-সেইলা নিয়া পালাইয়া কুনোমতো জীবন বাঁচাইছি। কাপড়-চোপড় তো দুরের কথা কুনো মালাসামাল বাচাবা পারিনাই। তামান বানের পানিত ভাসি চলি গেইছে। বান পালাইয়া হাত-পাও নিয়া ভাঙ্গা বাড়িত আসি থাকেছি। এখন বেজায় জাড়। এই জাড়ত যে মোটা কাপড় গায়োত দিমো, সেইটাও নাই। কেমন করি যে দিন কাটাছি-সেইটা ভগবানেই জানে। সরকার বেলে কম্বল দেছে শুনেছি। কিন্তু হামরা দেখা পাইনাই। হামার পাড়ার এখন পর্যন্ত একখান কম্বলও আইসেনাই।”

পঞ্চমী বালা জানান, গত ভয়াবহ বন্যায় তারা বাড়ী-ঘর হারিয়েছে। হারিয়েছে সহায়-সম্বল সবকিছুই। এখন শীতবস্ত্র তো দুরের কথা-শরীরে পড়ার মতো তেমন বাড়তি কাপড় নেই। সরকারীভাবে কোন শীতবস্ত্রও এখন পর্যন্ত পায়নি তারা। এই অবস্থায় তীব্র এই শীতে অবর্ণনীয় দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছেন তারা।

শুধু পঞ্চমী বালা নয়, একই রকম অভিমত প্রকাশ করলেন বানভাসী ওই পাড়ার দেখন বালা রায় (৫৫), ময়না বালা (৬০), দুলাল চন্দ্র রায় (৫৫) সন্ধ্যা রায় (৪৮), ফুলবানী দাসসহ সকলেই। গত কয়েকদিন থেকে তীব্র শীত অনুভুত হওয়ায় শীত বস্ত্রের অভাবে অসহনীয় দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছেন তারা। কিন্তু এখনও সরকারী বা বেসরকারীভাবে একটি কম্বলও পৌছেনি বন্যা ও শীত পীড়িত অসহায় মানুষের বসবাসের ওই পাড়াটিতে।

এ ব্যাপারে ৬নং নিজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক সরকার জানান, তার এলাকায় অধিক জনসংখ্যা। তাছাড়া এই ইউনিয়নটি বন্যায় ব্যাপকভাবে প্লাবিত হয়েছিলো। তিনি মাত্র ৪৮৫টি কম্বল পেয়েছেন ইউএনও অফিস থেকে। এই অল্প সংখ্যক কম্বল দিয়ে জনগনের চাহিদা মেটানো সম্ভব নয়। তাছাড়া কম্বলগুলো নিম্নমানের হওয়ায় তা দিয়ে জনগনের শীতও নিবারন হচ্ছে না।

নিজপাড়া (জালিয়াপাড়া)-এর মতো বীরগঞ্জের শতগ্রাম ইউনিয়নের কাশিমনগর, কাচারী পাড়া, খানসামা উপজেলার খামারপাড়া ইউনিয়ন, ভাবকী ইউনিয়ন, আলোকঝাড়ী ইউনিয়নসহ দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ বন্যা কবলিত এলাকার অসহায় শীতার্ত মানুষের কাছে কোন শীতবস্ত্র পৌছেনি এখন পর্যন্ত। বন্যায় সব হারানোর পর তীব্র এই শীতে এখন চরম দুর্বিসহ জীবনযাপন করছেন তারা।

দিনাজপুর জেলার ১০২টি ইউনিয়ন ও ৯টি পৌরসভায় সরকারীভাবে প্রায় ৮০ হাজার কম্বল বিতরনের কথা বলা হলেও কোনটি ইউনিয়নে কম্বল পৌচেছে মাত্র ২৯০টি। আবার কোনটি ইউনিয়ন কম্বল পৌচেছে ৫’শটিরও কম। অপ্রতুল এই কম্বল নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা।

এ প্রসঙ্গে খানসামা উপজেলার ১নং আলোকঝাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এড. আসম আতাউর রহমান জানান, গত বন্যায় তার এলাকায় আড়াইশ পরিবারের বাড়ী-ঘর বিলীন হয়েছিলো। এবারের শীতে তিনি কম্বল পেয়েছেন ২৯০টি কম্বল। এই কম্বল তিনি এতিমখানা ও বয়স্ক শীতার্ত মানুষের মধ্যে বিতরন করেছেন। তাই অধিকাংশ বানভাসী অসহায় মানুষের মধ্যে তিনি কম্বল দিতে পারেন নাই। একই কথা জানান, ৪ নং খামারপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান সাজেদুল হক, ৫নং ভাবকী ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামসহ অন্যান্য ইউপি চেয়ারম্যানরা। তারা জানান, ২৯০টি কম্বল দিয়ে শীতার্ত মানুষের চাহিদা মেটানো সম্ভব নয়।

বন্যার্ত মানুষের পাশাপাশি শীতবস্ত্র পাচ্ছেন না অসহায় ও দুঃস্থ পরিবারগুলোও। দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার শৌলাহার গ্রামের ভিক্ষুক বিলকিস বানু জানান, চরম শীতে দুর্ভোগ পোহালেও শীতবস্ত্রের অভাবে দুর্বিসহ জীবনযাপন করছেন তিনি। একই কথা জানান, ওই উপজেলার উবরামপুর গ্রামের নিঃস্ব হাফিজুর রহমান। তিনি জানান, সরকারীভাবে কম্বল বিতরন করার কথা শুনলেও বাস্তবে তা চোখে পড়েনি।

এ প্রসঙ্গে বিরামপুরের দিওর ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান জানান, ইউএনও অফিস থেকে মাত্র ৩৭০টি কম্বল পেয়েছি। তা দিয়ে দুঃস্থ মানুষের চাহিদা মেটানো সম্ভব নয়। তাই অধিকাংশ দুঃস্থ শীতার্ত মানুষকে কম্বল দেয়া সম্ভব হয়নি বলে জানান। তিনি।

এদিকে সরকারীভাবে দিনাজপুরে প্রায় ৮০ হাজার কম্বল বিতরনের কথা বলা হচ্ছে। সেই হিসেবে দিনাজপুর জেলার ১০২টি ইউনিয়ন ও ৯টি পৌরসভার প্রতিটিতে গড়ে প্রায় ৮’শটি করে কম্বল পাওয়ার কথা। কিন্তু কোন ইউনিয়নে কম্বল পেয়েছে মাত্র ২৯০টি। আবার কোন ইউনিয়নে কম্বল গেছে মাত্র ৪৮৫টি।

এ প্রসঙ্গে দিনাজপুর জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মোখলেসুর রহমান জানান, কম্বলগুলো সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখানে থেকে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের মাধ্যমে তা শীতার্ত মানুষের মধ্যে বিতরন করা হয়। এছাড়াও কিছু কিছু কম্বল সরাসরি জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে বিতরন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

দিনাজপুর জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মোখলেসুর রহমান জানান, দিনাজপুর জেলায় প্রথমে মোট ৭৬ হাজার ৬৭০টি কম্বল বিতরন করা হয় এবং আরও ৭৫ হাজার কম্বল চেয়ে মন্ত্রনালয়ে জরুরী বার্তা প্রেরন করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে আরও ৫ হাজার কম্বল বরাদ্দ পাওয়া যায়। এই বরাদ্দকৃত কম্বলের মধ্যে ৩ হাজার সহ দিনাজপুর জেলায় সর্বমোট ৭৯ হাজার ৬৭০টি কম্বল বিতরন করা হয়েছে। এছাড়ও ৪ হাজার শীতার্ত মানুষের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

জেলা প্রশাসনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী দিনাজপুর জেলায় মোট ৬ লাখ ৪৭ হাজার ৫’শ পরিবারের বসবাস। এর মধ্যে ১ লাখ ৪০ হাজার ৩২৫টি পরিবার ভুমিহীন। গতবছরের ১৩ আগষ্ট থেকে শুরু হওয়া বন্যায় দিনাজপুরে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ১ লাখ ৫৫ হাজার পরিবার। আর বিধ্বস্ত হয় ৫৯ হাজার ২৯৯টি বাড়ী।