বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলো উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের বসবাসরত দলিত ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির যুব সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক

রফিকুল ইসলাম ফুলাল ॥ যুবদের সম্মিলিত শক্তিকে কাজে লাগিয়ে জাতীয় উন্নয়নকে বেগবান এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষে কাউকে পিছিয়ে রেখে নয় কথাটির পূর্ণ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে দিনাজপুরে অনুষ্ঠিত হলো উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের বসবাসরত দলিত  ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির যুব সমাবেশ-২০১৯।

উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের বসবাসরত দলিত  ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির জীবিকায়নের সুযোগ বৃদ্ধি ও সামাজিক ক্ষমতায়নের লক্ষে “এক্সিলারেটিং লাইভলীহুড অপশনস ফর দি দলিত এ্যান্ড এথনিক কমিউনিটিস্(আলো) প্রকল্পের আওতায়  গতকাল সোমবার সকালে দিনাজপুর ষ্টেশনক্লাব মিলনায়তনে অনুিষ্ঠত হলো দিনব্যাপী যুব সমাবেশ।

গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রের সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার সারা মারন্ডির সভাপতিত্বে যুব সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন দিনাজপুর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: মাহফুজার রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক(চ:দা) মো: মোর্শেদ আলী খাঁন,ফুলবাড়ি উপজেলা মহিলা বিষয়য়ক কর্মকর্তা রিতা মন্ডল,উদ্দোক্তা মো: মোকসেদুল মোমিন সরকার,আলো প্রকল্পের প্রজেক্ট ম্যানেজার নুরে আলম, আশার আলো পাঠশালার ফাউন্ডার চেয়ারম্যান কুমার বিশ্বজিত বর্মন,আদবাসী যুব নেতা আলবিনুস টুডু। 

সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক সহযোগী সংস্থা হেকস/ইপার-এর সহযোগীতায় গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রে আয়োজনে অনুষ্ঠিত যুব সমাবেশে দিনাজপুরের ১৩ উপজেলার দেড় শতাতিক দলিত  ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির যুবক ও যুবতিরা সমাবেশে অংশ নেয়। এই প্রকল্পের অধিনে জনবহুল স্থানগুলোতে দলিত  ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির প্রবেশাধিকার বৃদ্ধিসহ প্রকল্পের দিনাজপুরের ফুলবাড়ি ও পার্বুতীপুর এবং নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার ৫৩টি কমিউনিটিতে ৪৮টি গ্রাম উন্নয়ন কমিটি(ভিডিসি)র মাধ্যমে ১ হাজার ৬৭০টি পিওসি(পিপল অব আওয়ার কনসার্ণ) নিয়ে কাজ করছে।

যুব সমাবেশে জানানো হয়, দলিত ও নৃ-গোষ্ঠির মানুষদের সমাজ এবং জীবনমান উন্নয়নে বাল্যবিবাহ,মাদক বিরোধী প্রচারোনা,ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীদের বিদ্যারয় মুখী করা,নিজস্ব ভাষা ও ঐতিহ্য সংরক্ষণ এবং চর্চ্চা আগ্রহী যুবদের সকর্মসংস্থানের ব্যবস্থার জন্য কারিগরি প্রশিক্ষনে উদ্ধুধকরণসহ বহুবিধ সামাজিক সমস্যা নিরসনে ২১টি(ইয়ুথ ক্লাব) যুব সংগঠন কাজ করছে।

তারা জানান, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের বসবাসরত দলিত  ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৪০ জন দলিত ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির শিক্ষার্থীরা এস.এস.সি ও এইস.এস.সি পাশ করে নিজেদেরকে উচ্চ শিক্ষায় সম্পৃক্ত করেছে। বর্তমানে ২০ জন শিক্ষার্থী হোম-এ আবাসিক সহায়তায় পড়াশুনা করছে । এদিকে গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রের আলোর প্রকল্পে সহযোগীতা নিয়ে কর্ম এলাকার ২৬৩ জনের মধ্যে প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত ৬৯জন যুবা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে। যুব সমাবেশের দ্বিতীয় অধিবেশনে দলিত  ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক জনগোষ্ঠির সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তুলে ধরে সাংস্কৃতিক কর্মীরা নৃত্য ও গান পরিবশেন করেন। 

যুব সমাবেশে সরকারী বেসরকারী এবং গনমাধ্যমের প্রতিনিধিসহ উপস্থিত ছিলেন প্রজেক্ট অফিসার মো: ফিরোজ আহমেদ,টেকনিকাল অফিসার দিপাংকর বসাক।