সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বাংলাদেশে নারী ও মেয়েদের অধিকার সুরক্ষাকারীদের সহায়তা প্রদান প্রকল্পের উদ্বোধন

জেলা বার্তা পরিবেশক, দিনাজপুর।-  বাংলাদেশে নারী  ও মেয়েদের অধিকার সুরক্ষাকারীদের সহায়তা প্রদান ( সাপোর্টিং হিউম্যান রাইটস ডিফে-ার্র ওয়ার্কিং ফর উইমেনস এন্ড গালর্স রাইটস ইন বাংলাদেশ) শীর্ষক ৩ বছর মেয়াদী  প্রকল্পের উদ্বোধন হয়েছে দিনাজপুরে।

বাংলাদেশের দিনাজপুর, সাতক্ষীরা ,যশোর, রাজশাহী, নীলফামারী, রংপুর, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রামসহ ৮টি জেলায় নিউজ নেটওয়ার্ক এবং উদয়ঙ্কুর সেবা সংস্থা ( ইউএসএস) ৩ বছর মেয়াদি প্রকল্পটি যৌথভাবে বাস্তবায়ন করছে।

গতকাল সকাল ১০ টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক ড. আবু নঈম মুহাম্মদ আবদুছ ছবুর প্রধান অতিথি হিসেবে দিনাজপুরে প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উদয়ঙ্কুর সেবা সংস্থা’র নির্বাহী পরিচালক আলাউদ্দিন আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা সমাজসেবা বিভাগের উপপরিচালক ষ্টেফেন মুরমু, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ কুমার বকশি বাচ্চু, দৈনিক আজকের দেশবার্তা’র সম্পাদক চিত্ত ঘোষ।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও প্রকল্পের আঞ্চলিক সমন্বয়কারী আসাদুল্লাহ সরকার আসাদ। প্রকল্পের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলতে গিয়ে নিউজ নেটওয়ার্ক সম্পাদক মো. শহীদুজ্জামান বলেন, মানবাধিকার ও মৌলিক ন্বাধীনতার সুরক্ষায় এবং এর পক্ষে প্রচারণায় নারীর মানবাধিকার রক্ষাকর্মীদের ভুমিকার স্বীকৃতি দেয়া ও তাদের তুলে ধরা এবং এক্ষেত্রে তারা যে ধরনের চ্যালেঞ্জ, ঝুকি ও হুমকীর মুখে পড়তে পারে সেসব থেকে তাদের সুরক্ষা রাখা। নারী ও মেয়েরা যাতে তাদের অধিকারসমূহ  পরিপুর্ণভাবে ভোগ করতে পারে সে জন্য নারীর মানবাধিকার রক্ষাকর্মীরা প্রচারণা ও সুরক্ষামূলক কাজ করে বিধায় ঝুঁকিতে থাবলে তাদের সহায়তা ও সুরক্ষা প্রদান করা।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য ও প্রত্যাশিত ফলসমূহের উপর মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন  ধর্ম যাজক ফাদার অ্যান্থনী, অ্যাড. সিরাজুম মনিরা, নারী সাংবাদিক শারমীন তনুজা, নারী কর্মজীবি বিলকিস বানু, সাংবাদিক সালাহউদ্দিন আহমেদ, লেখক-সাংবদিক আজহারুল আজাদ জুয়েল,  সাংবাদিক শাহ আলম শাহী প্রমুখ। আলোচকবৃন্দ নারী ও মেয়েদের ক্ষেত্রে সমাজে বিদ্যমান সমস্যা ও সীমাদ্ধতা সম্পর্কে আলোকপাত করেন।

এই প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন ধর্মীয় নেতা, সাংবাদিক, বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদক, সামাজিক, সরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাবৃন্দসহ ১শ’ জনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।