সোমবার ১৪ অক্টোবর ২০১৯ ২৯শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বাংলাদেশ গম ও ভূট্রা ইনস্টিটিউটে নতুন জাত পরিচিতি ও কৃষক প্রশিক্ষনঅনুষ্ঠিত

এম.এ. সালাম, চীপ রিপোর্টার ঃ বাংলাদেশ গম ও ভূট্রা ইনস্টিটিউট নশিপুরে গম ও ভূট্রার নতুন জাত পরিচিতি ও দিন ব্যাপী কৃষক-কিষানী প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত হয়।  ২০শে সেপ্টেম্বর দিনাজপুর সদর উপজেলার নশিপুরে, বাংলাদেশ গম ও ভূট্রা গবেষনা ইনস্টিটিউটের আয়োজনে মহাপরিচালক ড. মোঃ এছরাইল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের যুগ্নসচিব (প্রশাসন) ড. মোঃ আমিনুর রহমান, বিশেষ অতিথি সাবেক মহাপরিচালক নরেশ চন্দ্র দেববর্মা, অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ আব্দুল আউয়াল, মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ বদরুজ্জমান, উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ মোস্তফা আলী রেজা, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ মনোয়ার হোসেন, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ আসগর আহমেদ। ইনস্টিটিউটের দিনব্যাপী প্রশিক্ষনে একাধিক উপজেলা থেকে ৩০জন কৃষক-কিষানী অংশ গ্রহন করেন। এছাড়াও একাধিক উপজেলার কৃষি উপ-সহকারীগন উপস্থিত ছিলেন। নতুন জাত পরিচিতি অনুষ্ঠানের উদ্ভোধন ঘোষনার পূর্বে প্রধান অতিথি ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গনে ফলজ ও নারিকেল চারা রোপন করেন। এ সময় ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মোঃ এছরাইল হোসেন, সাবেক মহাপরিচালক নরেশ চন্দ্র দেব বর্মা সহ সকল কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন। নতুন জাত পরিচিতি উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তার মনোমুগ্ধকর বক্তব্য ও দিক নির্দেশনা মূলক বক্তব্য তুলে ধরে বলেন, “সব সাধকের বড়সাধক আমার দেশের চাষা/ দেশ মাতারই মুক্তি সে যে দেশের আশা”। অনেক খনার বচন ও তার উপমা দিয়ে প্রশিক্ষনার্থীদের বুঝানোর চেষ্টা করেন। তিনি আরও বলেন, প্রশিক্ষন মানুষকে বদলায় ও এগিয়ে নেয়। তাই প্রশিক্ষনের বিকল্প নেই। প্রশিক্ষন গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করতে হবে। দেশে কৃষি বিজ্ঞানীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠায় দেশে নতুন নতুন জাত গম, ভূট্রা,ধানসহ  কৃষির উপর গবেষনা দেশকে আজ অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে গেছে। সর্বপরি দেশ সেবা ও দিক নির্দেশনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার তুলনাহীন নেতৃত্ব বিশ্বে আজ পরিচিতি লাভ করেছে। গম ও ভূট্রা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক সভাপতির বক্তব্যে বলেন, দেশের আবহাওয়া প্রতিকূলতা থাকার পরেও আমরা গম চাষ এগিয়ে নিচ্ছি। গমের রোগ বালাই দমনে ভূমিকা নিতে হবে। প্রতি বছর ইনষ্টিটিউট থেকে জেলা ও উপজেলার কৃষকদের প্রশিক্ষনে অংশ গ্রহনের মাধ্যমে আদর্শ কৃষকে পরিণত করা হবে। কৃষকদের  আধুনিক যন্ত্রপাতির সাথে পরিচিতি ঘটাতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর মানব সেবার প্রমান বাংলাদেশ গম ও ভূট্রা গবেষনা ইনস্টিটিউট তারই অবদান। দেশকে কৃষিতে আরা একধাপ এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী যুগান্তকারী পদক্ষেপ সর্বস্তরে প্রশংসিত হয়েছে।