মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বিবাহ বিচ্ছেদে পুরুষের চেয়ে নারীরা এগিয়ে

এমদাদুল হক মিলন,দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরে বিবাহ বিচ্ছেদ(তালাক) হচ্ছে আশংকাজনক হারে। বিবাহ বিচ্ছেদের এই ভয়াবহতায় শিক্ষিত ও স্বাবলম্বি নারীরাই ঘটাচ্ছে বেশী। আর পরিসংখ্যানও তাই বলছে।

বিদ্যালয়ের সহপাঠী ছিলেন বিবেক ও উপাধী (ছদ্মনাম)। পাশা পাশি মহল্লার বাবিন্দা হওয়ায় এবং একই কলেজে পড়ার সুবাদে এইচএসসিতে পড়া অবস্থায় তাদের মধ্যে গড়ে উঠে প্রেমের সম্পর্ক। স্বপ্ন ছিল বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে ভালো সরকারি চাকরি পেয়ে ঘর বাধবেন। কিন্তু ধর্য্য তাদেরকে ততদিন অপেক্ষা করতে দেয়নি। অনার্স প্রথম বর্ষেই ইপাধীর চাপা চাপিতেই পরিবারের অজানতে বিয়ে করে বসেন তারা। আকাশে চাঁদ উঠলে যেমন সবাই দেখতে পায়, তেমনি তাদের চলাফেরা উটা বসায় পরিবারের সদস্যরাও টের পেয়ে যায় তাদের বিয়ের বিষয়টি। একপর্যায পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি মেনেও নেয়। চলতে থাকে তাদের পড়া শোনা ও সংসারঅ অনার্স মাষ্ঠার্স শেষে বিসিএস-এ উপাধীর ভাগ্য খুললেও বিবেকের ভাগ্য খোলেনি। দুঃসময়ে সঙ্গী ও নিজের সংসারের ভার একাই সামলে নেন উপাধী। এরপর বে সরকারী একটি কোম্পানীতে চকিুরি নেয় বিবেক। কিন্তু একযুগ পর ভাগ্য পুড়ে বিবেকের। তার সঙ্গে আর সংসার করতে চান না উপাধী। হঠাৎ উপাধীর ডাকযোগে পাঠানো তালাক নামায় ভাংগে একটি ভালোবাসার সংসারের।

যা জড়া লাগানোর চেষ্টা করছে দিনাজপুর পৌরসভার তালাক সংক্রান্ত শালিশি পরিষদ।

শুধু উপাধী আর বিবেক নয়, এমন ভাল বাসার সংসার প্রতিনিয়িত ভেঙে যাচ্ছে। ভূক্তভোগী ও সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, আগের চেয়ে কর্মক্ষেত্রে নারীদের কাজ করার হার বৃদ্ধি পাওয়ায় নারীরা সামাজিকতা ও লোকলজ্জার চেয়ে নিজের আত্মসম্মানকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া, ষ্টার জলাসা, জিটিভি, ষ্টার প্লাস, মাদকাসক্ত, ইন্টানেটের ব্যবহার,সর্বপরি যৌতুক নামের ভিক্ষাবৃক্তির কু ফল গুলো পড়ছে সংসারে । আর তাই সংসারে অশান্তি নিয়ে থাকার পরিবর্তে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তই বেশি নিচ্ছেন মেয়েরা।

জানা গেছে, দিনাজপুরে সম্প্রতি সময় বিবাহ বিচ্ছেদের হার আশঙ্কাজনকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এক্ষেত্রে বিচ্ছেদের বেশি আবেদন করছেন শিক্ষিত ও সাবলম্বী নারীরা।

দিনাজপুর পৌরসভার তালাক সংক্রান্ত শালিশি পরিষদ সূত্রে জানা যায়,নারীরাই বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য পুরুষদের চেয়ে বেশি আবেদন করছেন।

তালাকের নিয়ম অনুযায়ী তালাক দেয়ার পর কাজি অফিস থেকে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদে চিঠি পাটানো হয়। তালাকের পর পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ ৯০ দিন সময় পান শালিশ করে তালাকের চাড়ান্ত পরিনতি সম্পন্ন করার।

সেই নিয়ম অনুযায়ী দিনাজপুর পৌরসভার তালাক সংক্রান্ত শালিশি পরিষদে শালিশ চলাকালে প্রতিনিয়ত ১৫ থেকে ২০ টি তালাক সংক্রান্ত নথি উপস্থাপন করা হয়। যার মধ্যে প্রতিদিনই কোন না কোন তালাক চুড়ান্ত হয়। সংসার টিকানোর জন্য বিভিন্ন কৌশলে নতুন করে তারিখ দেয়া হয়। গত এক সপ্তাহে যে তালাক গুলো হয়েছে এর মধ্যে ১১ তালাক দিয়েছে নারী ও ৭ টি তালাক দিয়েছে পুরুষ। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে দিনাজপুর পৌরসভার তালাক সংক্রান্ত শালিশি পরিষদে শালিশের জন্য নতুন ১৭ টি নথি উপস্থাপন করা হবে। যার মধ্যে নারী তালাক দিয়েছে ১৫ টি ও পুরুষ তালাক দিয়েছে ২ টি।

দিনাজপুর পৌরসভার তালাক সংক্রান্ত শালিশি পরিষদে প্রধান কাউন্সিলর আবু তৈয়ব আলী দুলাল জানায়, নারীদের তালাক দেওয়ার হার পুরুষের চেয়ে বহুগুণ বেশি। পেশাগত উন্নয়ন, আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন এবং সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি পাওয়ায় তারা আগের চেয়ে বেশি সচেতন। নারীরা লোকলজ্জার ভয়ে এখন আর আপোষ করছেন না। বরং অশান্তি এড়াতে বিচ্ছেদের আবেদন করছেন।

জেলা রেজিষ্টার অফিস সুত্রে জানা যায়, দিনাজপুর জেলায় ২০১৯ সালে বিয়ে হয়েছে ১৫ হাজার ৬৮৮ টি, আর তালাক হয়েছে ৫৬৭৬ টি। যা শতকরা ৩৬ শতাংশ প্রায়। ২০১৮ সালে বিয়ে হয়েছে ১৫ হাজার ৫৫৯ টি, আর তালাক হয়েছে ৫হাজার ২০৮টি। যা শতকার ৩৩ শতাংশ প্রায় এবং ২০১৭ সালে বিয়ে হয়েছে ১৪ হাজার ২৬৪ টি। আর তালাক হয়েছে ৫ হাজার ৩৪৫ টি। যা শতকরা ৩৭ দশমিক ৪৭ ভাগ। সরকারের রাজন্ব আদায় হয়েছে ৬ লক্ষাধীক টাকা।

দিনাজপুর জেলার আইনজীবী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট মিন্টু কুমার পাল বলেন, সামাজিক জটিলতার জন্য সমাজে বিচ্ছেদের ঘটনা এক দশকে কয়েক গুল বৃদ্ধি পেয়েছে। কিছু ক্ষেত্রে সন্তানের মঙ্গল নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ডের মতো অপরাধ রোধে বিচ্ছেদে যাওয়ার মত নেতিবাচক কিছু নেই। তিনি বলেন, অর্থনৈতিক স্বাধীনতা থাকায় একজন নারী এখন তার পরিবারকেও আর্থিক সহায়তা করতে পারছে। পারিবারিক বন্ধনের চেয়ে অনেক নারী নিজের পেশা জীবনকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। আর মনস্তাত্ত্ব্বিক পরিবর্তন ও অর্থনৈতিক স্বাধীনতার ফলে নারী নিজেই এখন বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। এক মাত্র ধর্মীও অনুশাসন ও মানষিকতার পরিবর্তন ছাড়া এ অবস্থা থেকে উত্তরণের কোন বিকল্প নেই।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email