মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বিভিন্ন আয়োজনে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ নার্স ঃ “সবার জন্য স্বাস্থ্য অর্জনে সোচ্চার” এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারা দেশের ন্যায় দিনাজপুরে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস-২০১৯ ও ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল’র ১৯৯তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল, দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপতাল, দিনাজপুর নার্সিং ইনস্টিটিউট, দিনাজপুর নার্সিং কলেজসহ বিভিন্ন বেসরকারী নার্সিং ইনস্টিটিউট ও কলেজ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল র‌্যালী, আলোচনা সভা, জন্মদিনের কেক কাটা, ফিতা কাটা, কবিতা আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

রবিবার (৫ মে) সকাল সাড়ে ৯টায় আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস উপলক্ষে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের সেবা তত্বাবধায়ক মোছাম্মাৎ সুরাইয়া জেবীন ও উপ-সেবা তত্বাবধায়ক খন্দকার সুফিয়া আক্তার বানু’র নেতৃত্বে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পূনরায় সিভিল সার্জন কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। র‌্যালীতে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মো. আহাদ আলী, দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুল কুদ্দুস, জেনারেল হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মো. মশিউর রহমান, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. পারভেজ সোহেল রানা, দিনাজপুর সেবা ইনস্টিটিউটের নার্সিং ইন্সট্রাক্টর ইনচার্জ বেগম রোকেয়া সিদ্দিকা, ডিপ্লেমা নার্সেস এসোসিয়েশন দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল শাখার সভাপতি মো. মজিবর রহমান, সাধারণ সম্পাদক কাজী মো. শাহিনসহ জেনারেল হাসপাতালের অন্যান্য নার্সিং কর্মকর্তা ও নার্সিং ইনসিটিউটের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।

র‌্যালি শেষে জেনারেল হাসপাতাল মিলনায়তনে সেবা তত্বাবধায়ক মোছাম্মাৎ সুরাইয়া জেবীন’র সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. আহাদ আলী, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. রইস উদ্দীন আহম্মেদ, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. পারভেজ সোহেল রানা। জেনারেল হাসপাতালের নার্সিং সুপারভাজার ফেরদৌসী বেগম শিল্পী’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডিপ্লেমা নার্সেস এসোসিয়েশন দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল শাখার সাধারণ সভাপতি মো. মজিবর রহমান, সাধারণ সম্পাদক কাজী মো. শাহিন প্রমূখ। অনুষ্ঠানে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন জেনারেল হাসপাতালের নার্সিং কর্মকর্তা নাসরিন আক্তার, পবিত্র গীতা পাঠ করেন কাকলী রানী রায় ও পবিত্র বাইবেল পাঠ করেন গীতালুসি রায়।

অনুষ্ঠানে দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের নার্সিং সুপারভাইজার উম্মেহানী আজাদী, মোছাঃ লুৎফা বেগম, গোলেনুর বেগম, অঞ্জলী রানী সরকার, নার্সিং কর্মকর্তা মো. ইউসুফ আলীসহ অন্যান্য নার্সিং কর্মকর্তা ও সেবা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে জেনারেল হাসপাতালের নার্সিং কর্মকর্তাদের আয়োজনে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।

আলোচনা সভায় বক্তারা মহিয়সী নারী ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল’র জীবনী থেকে শিক্ষা নিয়ে দরিদ্র-অসহায় মানুষের সেবায় নার্সদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে বলেন, সমাজে নার্সিং পেশাকে মানুষের কাছে একটি আদর্শ পেশা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আমরা যাতে স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পারি সর্বদা সেই চেষ্টাই করতে হবে। মানুষের সেবায় নিয়োজিত সকল চিকিৎসক ও নার্সদের রোগীদের সাথে ভাল আচরন করতে। সেবার মানসিকতা ও আন্তরিকতা নিয়ে চিকিৎসক ও নার্সদের দায়িত্ব পালন করার আহবান জানান বক্তারা।

এদিকে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস উপলক্ষে দিনাজপুর এম আব্দর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্সিং কর্মকর্তাদের আয়োজনে হাসপাতাল ক্যাম্পাস থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে হাসপাতাল এলাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পূনরায় হাসপাতাল ক্যাম্পাসে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালিতে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকসহ সকল নার্সিং সুপারভাইজার ও অন্যান্য নার্সিং কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন।

এছাড়া আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস উপলক্ষে দিনাজপুর নার্সিং কলেজ, দিনাজপুর নার্সিং ইনস্টিটিউটসহ অন্যান্য বেসরকারী নার্সিং ইনস্টিটিউট আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস উপলক্ষে পৃথক পৃথকভাবে নিজস্ব ভেনুতে র‌্যালী ও আলোচনার আয়োজন করে।

উল্লেখ্য, ১৮২০ সালের ১২ মে ইতালীর ফ্লোরেন্স নামক শহরে ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল জন্মগ্রহন করেন ও ১৯১০ সালের ১ আগষ্ট ৯০ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রতিবছর বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও বিভিন্ন হাসপাতালে এ দিবসটি পালন করা হয়। কিন্তু এবারে ১২ মে পবিত্র রমজান মাস থাকায় সরকারী সিদ্ধান্ত মোতাবেক রমজানের আগে ৫ মে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালন করা হয়।