শুক্রবার ২৭ এপ্রিল ২০১৮ ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে পহেলা বৈশাখের পানতা-ইলিশ খেয়ে নার্সসহ নয় জন হাসপাতালে ভর্তি

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে পহেলা বৈশাখের পানতা ইলিশ খেয়ে ফুট পয়জনিং-এ আক্রান্ত হয়ে ছয় জন নার্সসহ ১০/১২ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। ১৪ এপ্রিল শনিবার রাত থেকে ১৫ এপ্রিল রোবববার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিভিন্ন সময় তারা হাসপাতালে ভর্তি হন। তাদেরকে দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে হাসপাতালের কয়েকজন কর্মচারী জানান, পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে শনিবার দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পানতা-ইলিশ খাওয়ার আয়োজন করে। তারা সকালে বর্ষবরণের শোভাযাত্রা শেষ করে হাসপাতাল ক্যাম্পাসে পানতা-ইলিশ, বিভিন্ন প্রকার শাক-সবজি ও ভর্তা খান হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। অনুষ্ঠান শেষে সবাই নিজ নিজ বাসা-বাড়ীতে ফিরে যান।

শনিবার রাতে তাদের পেটে সমস্যা দেখা দিলে অনেকেই হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে এসে ভর্তি হন। হাসপাতালে ভর্তিকৃতদের মধ্যে সিনিয়র স্টাফ নার্স নাসরিন (২৭),  সুমিত্রা মুরমু (৩২), সুজলা মুরমু (২৩), খায়রুন নাহার (২৪), বৃষ্টি রানী (২৪), সোনিয়া আক্তার (২৫), চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী বাবুল মিয়া (৫০), হাকুল মিয়া (৫০), সাজ্জাদ ( ৩০) ও আব্দুর রাজ্জাক (৪০) হাসপাতালে ভর্তি হন। আবার অনেকেই হাসপাতালের বর্হিবিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে হাসপাতালে ভর্তিকৃতদের মধ্যে ১৬ এপ্রিল সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী হাকুল মিয়া (৫০) ও সাজ্জাদ হোসেন ( ৩০) ছাড়া অন্যরা সবাই হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ীতে চলে গেছেন।

প্রথমে বিষয়টি গোপন রাখা হলেও সোমবার তা প্রকাশ হয়ে পড়ে। হাসপাতালের কয়েকজন কর্মচারী জানান, অনেকে লজ্জায় হাসপাতালে ভর্তি না হয়ে বাসায় চিকিৎসা নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. আহাদ আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গরমের কারণে পানতা ভাত খেয়ে পেটের পীড়া দেখা দিয়েছে। তবে আক্রান্তরা সবাই এখন সুস্থ রয়েছে বলে জানান তিনি।