রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর জেলার প্রথম মুসলমান চিকিৎসক ডাক্তার ওয়াসিমুদ্দিন খান এম, বি

জুলফিকার খান বাচ্চু: বৃটিশ শাসনামলে অবিভক্ত দিনাজপুর জেলা মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও শিক্ষা-দীক্ষা, চাকুরী-বাকুরী, ব্যবসা বাণিজ্য প্রভৃতি সকল ক্ষেত্রেই এ জেলার মুসলমানগণ ছিল খুবই অনগ্রসর। সে আমলে চিকিৎসা পেশায় ডিগ্রিধারী ডাক্তারের সংখ্যা দিনাজপুরে বেশ কয়েকজন থাকলেও মুসলমান চিকিৎসকের সংখ্যা ছিল মাত্র একজন। তাঁর নাম ডাক্তার ওয়াসিমুদ্দিন খান। তিনিই ব্রিটিশ আমলে দিনাজপুরের প্রথম ও একমাত্র মুসলমান ডিগ্রীধারী চিকিৎসক ছিলেন।
ডাক্তার ওয়াসিমুদ্দিন খানের জন্ম ১৯০৩ সালে দিনাজপুর জেলার বর্তমান হাকিমপুর উপজেলার বোয়ালদার ইউনিয়নের অন্তর্গত বোয়ালদার গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের র্পূবে বোয়ালদার ইউনিয়ন ছিল নবাবগঞ্জ থানার অন্তর্গত। ওয়াসিমুদ্দিন খানের পিতা হাজী ওসমান আলী খানের একমাত্র ছোট ভাই হাজী মোশাররফ আলী খান বোয়ালদার ইউনিয়নের দীর্ঘকাল ধরে পঞ্চায়েত/প্রেসিডেন্ট পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। এ দু‘ভাই একান্নবর্তী পরিবার হিসাবে বাস করেছেন এবং এ দু‘ভাইয়ের মধ্যে খুব সদ্ভাব ছিল। ওয়াসিমুদ্দিন খানের দাদার নাম হাজী ওমর আলী খান। ওমর আলী খান ও তাঁর বড় ভাই হাজী আনার আলী খাঁন বোয়ালদার গ্রামে বসতি স্থাপন করেন। ওয়াসিমুদ্দিন খানের পিতার পিতামহের নাম সুজাত আলী খান। তিনি সম্ভবতঃ ১৮৫৭ সালে বৃটিশ বিরোধি সিপাহী বিদ্রোহের পর পশ্চিম থেকে এ অঞ্চলে আসেন।
ওয়াসিমুদ্দিন খান শিশুকাল হতে খুব মেধাবী ছাত্র ছিলেন। গ্রামের স্কুলে পড়ার পর তিনি দিনাজপুর জেলা স্কুলে ভর্তি হন। জেলা স্কুল থেকে ৫টি বিষয়ে ডিস্টিংশন (লেটার) নিয়ে তিনি মেট্রিকুলেশন পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন এবং জেলার মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেন। এর পরে তিনি কলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে আই, এস, সি পরীক্ষায় ৩টি বিষয়ে ডিস্টিংিশন (লেটার) নিয়ে কৃতিত্বের সঙ্গে প্রথম বিভাগে পাশ করেন। এর পরবর্তীতে ওয়াসিমুদ্দিন খান কলকাতা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন এবং যথা সময়ে কলেজ থেকে এম, বি (ব্যাচেলর অব মেডিসিন) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। সে সময়ে সমগ্র দিনাজপুর জেলায় কোন মুসলমান ডিগ্রিধারী ডাক্তার না -থাকায় ওয়াসিমুদ্দিন খান বৃটিশ সরকারের অধীনে চাকুর গ্রহণ না করে স্বাধীনভাবে দিনাজপুর শহরে ডাক্তারী পেশায় যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন।
১৯৩২সালে তিনি তাঁর পরিবারসহ দিনাজপুর শহরের মুন্সিপাড়া মহল্লায় একটি ভাড়া বাড়ীতে উঠে ডাক্তারী শুরু করেন। অতি অল্প সময়ের মধ্যে তিনি চিকিৎসা পেশায় সুনাম অর্জন করেন এবং ১৯৩৮ সালের মধ্যে জেল গেটের সম্মুখে (লোক ভবনের পাশে) তাঁর নির্মিত নিজস্ব বাড়ীতে বসবাস শুরু করেন। উপরোক্ত সময়ে দিনাজপুরের রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে কিছু সংখ্যক উকিল ও জমিদার পরিবারের সদস্যগণ সক্রিয় ছিলেন। সাধারণভাবে দিনাজপুরের চিকিৎসকগণ এবং ব্যবসায়ীরা সক্রিয় রাজনীতি থেকে দূরে থাকতেন বলে মনে হয়। ডাক্তার ওয়াসিমুদ্দিন খান রাজনৈতিক ব্যাপারে সামান্য পরিমাণে হলেও উৎসাহী ছিলেন। তিনি বিৃটিশ শাসনের বিরুদ্ধে এবং পাকিস্তান আন্দোলনের সঙ্গে কিছুটা সক্রিয় ছিলেন । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খানকে বৃটিশ ভারতীয় সৈন্য বাহিনীর মেডিকেল কোরে যোগদানের জন্য পত্র প্রদান করা হয়। কিন্তু তিনি বৃটিশ সরকারের অধীনে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানান।

তিনি পাকিস্তান ন্যাশনাল গার্ডের সঙ্গে যুক্ত থেকে দিনাজপুরের পুলিশ লাইনে বেশ কয়েকবার পুরস্কৃত হয়েছিলেন। ১৯৪৮ সালে দিনাজপুর মিউনিসিপালিটির ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খান অংশগ্রহণ করে উক্ত পদে নির্বাচিত হন।
১৯৪৯ সালে জনাব পানাউল্লাহ আহমদ দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক হিসাবে যোগদান করেন। অল্প সময়ের মধ্যে নুতন জেলা প্রশাসকের সঙ্গে ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খান সহ শহরের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের অন্তরঙ্গ সর্ম্পক গড়ে উঠে। তিনি দিনাজপুর জেলায় প্রায় সাড়ে তিন বছর (১৯৪৯-৫৩) ধরে জেলা প্রশাসক পদে কর্মরত ছিলেন এবং এ শহরের বালুবাড়ী মহল্লায় তাঁর সন্তানদের বসবাসের জন্য একটি বাড়ী ক্রয় করেছিলেন। তিনি ধর্মীয় বিষয়েও বেশ উৎসাহী ছিলেন। তাঁর উদ্যেগে দিনাজপুরে কোরআন শরীফের অর্থ, তাফসীর ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনার জন্য একটি সমিতি গড়ে উঠে। এ সমিতি জেলা প্রশাসক ও ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খানের বাসা সহ অন্যান্য ব্যক্তিদের বাসায় প্রতি সপ্তাহে পর্যায়ক্রমে আলোচনা বৈঠকের ব্যবস্থা গ্রহণ করে। নুতন জেলা প্রশাসকের উদ্যেগে গঠিত এ কোরআন আলোচনা সমিতির সংর্স্পষে ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খান ক্রমেই ধর্ম বিষয়ে দারুন উৎসাহিত হয়ে পড়েন এবং ইসলাম বিষয়ে বিভিন্ন ধর্ম পুস্তক পড়ায় আগ্রহান্বিত হয়ে উঠেন। পরবর্তীতে তিনি কিছু সময় কাঠের ব্যবসায়ের সঙ্গেও যুক্ত হন। ফলে ক্রমেই তাঁর চিকিৎসা পেশার ক্রমাবনতি ঘটতে থাকে। এর পরবর্তীতে তিনি মিউনিসিপ্যালিটির নির্বাচনে ১৯৬১ সালে শহরের ‘এ‘ ওয়ার্ড থেকে কমিশনার ও পরে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
১৯৬২ সালে তিনি পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে দিনাজপুর কাম বগুড়া আসন থেকে (দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ, ঘোড়াঘাট ও হাকিমপুর থানা এবং বগুড়া জেলার পাঁচবিবি, জয়পুরহাট ও ক্ষেতলাল থানা) জামায়েত ই ইসলামের বিশিষ্ট নেতা আব্বাস আলী খানের বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন এবং মাত্র ২৪ ভোটের জন্য এম, এল, এ নির্বাচিত হতে পারেননি।
ব্যক্তিগত জীবনে ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খান কলকাতায় ইন্টারমিডিয়েট পড়ার সময়ে নবাবগঞ্জ থানার কোচগ্রামের জনাব তসিরউদ্দিন চৌধুরীর কন্যার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু এ স্ত্রী একটিমাত্র সন্তান রেখে মারা যান। অবশেষে ডাঃ ওয়সিমুদ্দিন খানের বিবাহ দেওয়া হয় তাঁর আত্বীয় হাজী মোশাররফ আলী খানের জ্যেষ্ঠা কন্যা নজিমুন নেসার (মৃত্যু ১২ মে, ১৯৭৭ সালে) সাথে।
মরহুম ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খান সাতপুত্র ও পাঁচ কন্যার জনক ছিলেন। এদের অধিকাংশ উচ্চ শিক্ষিত এবং কয়েকজন এখনও দেশে-বিদেশে উচ্চ পদে চাকুরীরত। তাঁর সাতপুত্রের মধ্যে প্রথম পুত্র (মরহুম আলহাজ্ব সামুসদ্দিন খান) সাবেক গ্রাম প্রধান ও এতদাঞ্চলে বিশিষ্ট সমাজ সেবক ছিলেন। দ্বিতীয় পুত্র (মরহুম ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রহমান খান) বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন। তৃতীয় পুত্র (মরহুম জুলফিকার খান) পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসর প্রাপ্ত উপ-পরিচালক ছিলেন, চতুর্থ পুত্র (মরহুম আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার বখতিয়ার খান) সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকারের বিদ্যুৎ প্রকৌশল বিষয়ক উপদেষ্টা ছিলেন, পঞ্চম পুত্র (অধ্যাপক সাইফুর রহমান খান) বীরগঞ্জ কলেজের অধ্যাপক ছিলেন, ষষ্ঠপুত্র (আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার সালাহউদ্দীন খান) আবুধাবী সরকারের অধীনে পাওয়ার ষ্টেশনের প্রকৌশলী ছিলেন এবং বর্তমানে কানাডায় বসবাসরত এবং সপ্তম পুত্র (জিয়াউর রহমান খান, বি,সি,এস) বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব হিসেবে বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত।
পাঁচ কন্যার মধ্যে প্রথমা কন্যা (মরহুম আলহাজ্ব জাহানারা চৌধুরী) দিনাজপুরের একজন বিশিষ্ট সমাজ সেবিকা। তিনি ডায়াবেটিক হসপিটাল, চক্ষু হসপিটাল, আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম প্রভৃতি সমাজসেবা মূলক প্রতিষ্ঠানের কার্য্যকরী কমিটির সদস্যা এবং এসব প্রতিষ্ঠানের আজীবন সদস্যা ছিলেন। দ্বিতীয় কন্যা (মিসেস মমতাজ বেগম) এবং পঞ্চম কন্যা (মরহুম সেতারা আহমেদ) ঢাকার দুটি বিখ্যাত স্কুল যথা গুরুগৃহ এবং মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরী হাই স্কুলের শিক্ষিকা ছিলেন। তৃতীয় কন্যা (আলহাজ্ব রেজিয়া বেগম) তাঁর স্বামী ডাঃ কর্নেল সামাদ খান, ঢাকার বিশিষ্ট আকুপাংচার চিকিৎসকের সাথে উক্ত চিকিৎসা পেশায় জড়িত ও একজন সমাজ সেবিকা। চতুর্থ কন্যা (আলহাজ্ব ডঃ রোকেয়া বেগম) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন এবং কানাডায় বসবাসরত।
ডাঃ ওয়াসিমউদ্দিন খান ব্যক্তিগত জীবনে একজন অতি সৎ, কর্মঠ, স্পষ্টবাদী, সাহসী ও ধর্মপ্রাণ ব্যক্তি ছিলেন। তাঁর কড়া নির্দেশের প্রেক্ষিতে তাঁর সন্তানেরা নিয়মিত লেখাপড়ার সঙ্গে সঙ্গে নামাজ-রোজা প্রভৃতি কর্ম পালন করেন। তাঁর প্রায় সকল পুত্ররা খেলাধুলাতেও যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছেন।
শেষ বয়সে ডাঃ ওয়াসিমুদ্দিন খান ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন ধরে রোগ ভোগের পর ১৯৬৬ সালের ২৭ জুন দিনাজপুর শহরের মুন্সীপাড়ার নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email