রবিবার ১ নভেম্বর ২০২০ ১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার উদ্যোগে শহীদ শেখ রাসেলের ৫৬তম জন্মদিন উদযাপন

এম. আর. মিজানঃ শহীদ শিশু রাসেল ছিল ফুটফুটে একটি গোপাপ। এমন নিষ্পাপ একটি শিশুর বাঁচার আকুঁতিও হায়েনাদের হৃদয় ছুঁইতে পারেনি। ঘাতকের বুলেটে নিথর হয়ে যায় শিশু শেখ রাসেল। শেখ রাসেল আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য প্রেরণার বাতিঘর। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেভাবে এ দেশের মানুষের জন্য নিজের জীবন পর্যন্ত উৎসর্গ করে গেছেন, ঠিক তেমনি শিশু রাসেলও নিজের জীবনের মায়া ত্যাগ করে গেছে। শিশু রাসেলের এ অসামান্য আত্মত্যাগ আমাদের চলার পথের পাথেয়। ঘাতকেরা তাকে হত্যার কারণ হলো- রাসেলের শরীরে প্রবাহমান ছিল বঙ্গবন্ধুর রক্ত। বঙ্গবন্ধুর কোন পরবর্তী প্রজন্ম যেন না থাকে, সেজন্যই পরিকল্পিতভাবে স্ব-পরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়। কিন্তুু ঘাতকেরা জানে না, একটি মানুষকে হত্যা করাই যায়, কিন্তু একটি আদর্শকে কখনই নিশ্চিহ্ন করা যায় না। আর সে কারনেই দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রামের পর বঙ্গবন্ধু কন্যা এদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ম জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে তাঁরই আদর্শ বাস্তবায়িত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু পরিবারের অনেক আদরের শিশু রাসেলের হত্যাকান্ড একটি পৈশাচিক ঘটনা। একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি সেদিন এ ঘটনা ঘটিয়ে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুললেও আজ তাদের বিচারের মুখোমুখি হতে হয়েছে। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এখন আমাদের সন্তানদের শহীদ শেখ রাসেলের মত আত্মত্যাগী হবার শিক্ষা দিতে হবে। তাহলে নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার পথে অনেকদূর এগিয়ে যাবে।
১৬ অক্টোবর শুক্রবার বিকালে দিনাজপুর ঘাসিপাড়াস্থ এফপিএবি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের কনিষ্ট পুত্র ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আদরের ছোট ভাই শহীদ শেখ রাসেলের ৫৬ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা দিনাজপুর জেলা শাখা আয়োজিত অসহায়দের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান, আলোচনা সভা, কেক কাটা, মিলাদ মাহফিল ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা অনুষ্ঠানে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা ত্রাণ পরিচালনা কমিটির আহবায়ক মোঃ আলতাফুজ্জামান মিতা। বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার সিনিয়র সাধারণ সম্পাদক ও মুখপাত্র প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক পুরস্কারপ্রাপ্ত শিশু সংগঠক মনিরুজ্জামান জুয়েল। দিনাজপুর জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহজাহান নভেলের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আজাদ বাবলু, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ আহাদ আলী, জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম লিটন, রুনা জামান, সাবরীনা ইসলাম প্রমূখ। সাংস্কৃতিক সম্পাদক প্রদীপ ঘোষের প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় এতে উপস্থিত ছিলেন ফয়সাল রহমান বুল্লা, নূর আলম, জয়ন্ত ঘোষ, সুব্রত চক্রবর্তী পাপ্পা, আতিকুল ইসলাম আতিক, আবুল কালাম, চৈতি, প্রিয়াঙ্কা, প্রজ্ঞা, বৃষ্টি, স্মৃতি, শ্যামা, অর্ণব, মম, পানসি, ঐশি, বিন্দু ও রিপন।
অনুষ্ঠানে দু’জন গুনী ব্যক্তিত্বকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। সংবর্ধিত ব্যাক্তিগণ হলেন- দীর্ঘ ২২ বছর ধরে সাহিত্য অঙ্গনে জড়িত দৈনিক প্রতিদিন’র সাবেক সাহিত্য সম্পাদক, সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের আর্কাইভড্ লাইব্রেরীর লেখক সদস্য এবং বাংলাদেশ-ভারত দু’দেশের কবিবৃন্দের সমন্বয়ে প্রকাশিত কবিতার ছোট কাগজ ‘কাব্যকথা’র সম্পাদক নিরঞ্জন হীরা এবং বিশিষ্ট পশু ঔষধ ব্যবসায়ী ও দিনাজপুরে প্রথম একমাত্র সুনামধন্য পশু-পাখী প্রেমী ব্যাক্তিত্ব আলহাজ্ব মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন। অনুষ্ঠানে আনন্দঘন পরিবেশে জন্মদিনের কেক কাটা হয়। সেই সাথে শহীদ শেখ রাসেলসহ ১৫ আগষ্ট ঘাতকের বুলেটে শাহাদৎ বরণকারী সকলের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় নবীন নৃত্যশিল্পী সুষ্মিতা চক্রবর্তীর প্রাণচ্ছল নৃত্য সকলের নজর কেড়ে নেয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email