শুক্রবার ২২ নভেম্বর ২০১৯ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের সংবাদ সম্মেলন

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ জনগণই আমার ক্ষমতার উৎস। তাদের মেধা ও বিচক্ষনতাকে কাজে লাগিয়ে তারা আমাকে বারবার মেয়র নির্বাচন করে আসছেন। আমার দায়িত্বকালীন সময়ে আমাকে বহুবার অপদস্ত করার জন্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের মাধ্যমে তদন্ত করে হয়রানী করে যাচ্ছে। আল্লাহর অশেষ রহমত ও পৌরবাসির ছোট বড় সকলের দোয়ায় আল্লাহ আমাকে রক্ষা করছেন। উপরোল্লেখিত বিষয়গুলির উপরে পরপর দু’বার দুদক কর্তৃক অভিযোগের তদন্ত হয়েছে। অভিযোগগুলির সত্যতা না পাওয়ায় দু’বারই উল্লেখিত এসব অভিযোগ হতে দুদক কর্তৃক অব্যাহতি প্রদান করা হয়। চক্রান্তের স্বীকার হয়ে আমাকে অন্যায়ভাবে দু’বার সাসপেন্ড করা হয়। বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক আদেশের প্রেক্ষিতে সাসপেন্ডগুলিও প্রত্যাহার হয়। বর্তমানে এভাবে আমাকে হয়রানী না করার জন্য মহামান্য হাইকোর্ট কর্তৃক আদেশ প্রদান করা হয়। বারবার আমাকে এহেন অপদস্ত করার প্রক্রিয়া চালালে আমি আদালত অবমাননাসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করতে বাধ্য হবো। 

রবিবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টা দিনাজপুর পৌরসভার ফাতেহুল আলম দুলাল মিরনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম এসব কথা বলেন। পৌরসভার নবনিবাচিত প্যানেল মেয়র কর্তৃক গত ৩১-০৮-২০১৯ তারিখে মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করে সংবাদ সম্মেলনের প্রেক্ষিতে সঠিক তথ্য সরবরাহে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম।

দিনাজপুর পৌরসভা সাবেক প্যানেল মেয়র ও ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আহামেদুজ্জামান ডাবলু’র মৃত্যুবরণ করায় তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা ও তাঁর পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে বলেন, দিনাজপুর পৌরসভার ইজিবাইক নিবন্ধনে জুন-২০১৯ পর্যন্ত সর্বমোট এক কোটি চার লক্ষ একানব্বই হাজার চারশ’ বিরাশি টাকা আয় হয়। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯ এর ৪র্থ ভাগের দ্বিতীয় অধ্যায়ের ৯১ (৪) ধারায় পৌরসভার সকল প্রকারের রাজস্ব আয়ের মধ্যে সর্বপ্রথমে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ভাতা প্রদানের নির্দেশনা রয়েছে। উল্লেখিত আয় দিয়ে পৌরসভার বেতন-ভাতাসহ অফিস রক্ষনাবেক্ষন কাজসমুহ করা হয়ে থাকে। ইতিপুর্বে ইজিবাইকের আয়-ব্যয়ের উপর দুদক কার্যালয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুদক কর্তৃক তদন্তর্পুবক অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ায় অব্যহতি দেয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, পৌরসভা পরিচালনার জন্য বিগত ২৭ বছরে পুরাতন সাংগঠনিক কাঠামো অনুযায়ী লোকবল দ্বারা ক শ্রেনীর পৌরসভা পরিচালনা করা মোটেই সম্ভব নয়। বিধায় সারা দেশের সকল পৌরসভায় মাস্টার রোল কর্মচারী নিয়োগপুর্বক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়ে থাকে। মাস্টার রোল কর্মচারীগন স্ব স্ব শাখায় শাখা প্রধানগনের অধীনে কাজ করে থাকেন এবং মাস শেষে যারা যেদিন কাজ করেন তাদের সেভাবে বিল তৈরীপূর্বক বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে মাস্টার রোল বহির্ভুত কোন বেতন-ভাতা উত্তোলন বা কাজ না করেও কাউকে বেতন ভাতা প্রদান করার অভিযোগটিও সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। মাস্টার রোল কর্মচারিদের হাজিরা খাতা যথাযথভাবে সংরক্ষন করা হয়। ইতিপুর্বে এ বিষয়ে উপর দুদক কার্যালয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতেও দুদক তদন্তর্পুবক অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ায় অব্যহতি দেয়া হয়।

এছাড়া দিনাজপুর পৌরসভার রোড রোলার এর আয়ের টাকা, পৌরসভার ভ্যাকম ট্যাংকারের আয়ের টাকা, পৌরসভার বিলবোর্ডের আয়ের টাকা অফিসিয়াল কার্যাদি সম্পাদনপূর্বক পৌর তহবিলে জমা করা হয়। এ ক্ষেত্রে কোন দুর্ণীতি হওয়ার সুযোগ নেই। ইতিপুর্বে একই বিষয়ের উপর দুদক কার্যালয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুদক কর্তৃক তদন্ত র্পুবক অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ায় সেখান থেকেও অব্যহতি দেয়া হয়।                                                                                               

মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, স্টেশনারী মালামাল ক্রয়ের জন্য প্রতি বছরে বাজেটে অনুমোদন থাকে। অতঃপর বাৎসরিক চাহিদা অনুযায়ী সরকার নির্ধারিত পিপিআর-২০০৮ অনুসরন করে দরপত্র/কোটেশন আহবানপুর্বক দরপত্র মুল্যায়ন কমিটির যাচাই বাছাইঅন্তে সুপারিশের প্রেক্ষিতে কার্যাদেশ প্রদানপুর্বক মালামাল সরবরাহ গ্রহন করা হয়। এ ক্ষেত্রে দুর্ণীতি হওয়ার কোন সুযোগ নেই। তিনি বলেন, আমার জানামতে কোন স্থায়ী কর্মচারী দুই জায়গায় চাকরি করে না। চাকরি বিধিমালা অনুযায়ী দ্বৈত চাকরি করার সুযোগ নেই। তবে চুক্তিভিত্তিক নিয়োজিত কোন কর্মী (যেমন – সুইপার দৈনিক ৩৫/- মজুরি হিসাবে সীমিত সময়ের জন্য) তারা নিজ সময়কালীন সময়ের বাহিরে অন্যত্র কাজ করেও থাকতে পারেন। আমার সময়কালীন সময়ে বিগত আট বছরে কোন স্থায়ী কর্মচারী নিয়োগ দেয়া হয়নি। অর্থাৎ কোন অদক্ষ কর্মচারী নিয়োগ অভিযোগটিও সম্পুর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবী করেন।

তিনি বলেন, আপনারা আমাকে পরপর দুইবার মেয়র হিসাবে নির্বাচিত করেছেন। আমিই প্রথম পৌর সম্পদ রক্ষার জন্য জীবনবাজি রেখে মাতাসাগর ময়লা গাড্ডার জমি পৌরবাসিকে সাথে নিয়ে উদ্ধার করেছি। যা আপনারা অবগত আছেন। বর্তমানে আমারই ঐকান্তিক প্রচেস্টায় প্রশাসনিক মোকদ্দমার মাধ্যমে মাতাসাগর ময়লা গাড্ডা পৌরসভার সম্পত্তি হিসাবে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার পৌরসভার অনুকুলে রায় প্রদান করেছেন। বর্তমানে কিছু অংশের উপর মামলা চলমান রয়েছে। পুনর্ভবা নদীর ওপারে বিরল উপজেলার চককাঞ্চন মৌজার জমি পৌরসভার পুর্নাঙ্গ দখলীয় এবং রেকর্ডিও সম্পত্তি। এখানে অদ্যাবধি কোন প্রকার জটিলতা নেই। আমার দায়িত্ব গ্রহনের পূর্বে বিগত চেয়ারম্যানগণের আমলে দায়িত্বে অবহেলার কারনে দিনাজপুর শিশু পার্কটি জেলা প্রশাসকের নামে রেকর্ডভুক্ত হয়। অর্থাৎ আমি দায়িত্ব নেয়ার পর পৌর সম্পদ রক্ষা করেছি। বেদখল হওয়ার অভিযোগটিও সম্পুর্ণ ভিত্তিহীন।

তিনি বলেন, বৈদ্যুতিক বাল্ব ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রতি অর্থবছরে সরকার নির্ধারিত পিপিআর অনুসরন করে জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় দরপত্র আহবান পুর্বক ঠিকাদার নির্বাচন পরবর্তী স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মালামাল সরবরাহ গ্রহন করা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে শুভঙ্করের ফাঁকিরও কোন সুযোগ নেই।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমি পৌরবাসির সকলের ভোটে নির্বাচিত একজন মেয়র। তাই আমার কাছে মেয়র পদটিকে কখনো রাজনীতিকরন হিসাবে দেখি না। যার প্রমান ধনি গরিবসহ আপনারা নিজেরাই। আমি সকলের সাথে মিলে মিশে কাজ করতে পছন্দ করি এবং আপনারা সকলেই আমাকে সহযোগিতাও করেন। পৌরসভার রাস্তা নির্মাণ/সংস্কার, ড্রেন নির্মাণ/সংস্কার, পানি সরবরাহ মানউন্নোয়ন, রাস্তা আলোকিতকরণসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহনের জন্য আমি সার্বক্ষনিক সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ রক্ষা করে থাকি এবং প্রাথমিকভাবে প্রকল্প তালিকাভুক্ত হলেও চুড়ান্তভাবে নির্বাচনের সময় কোন এক অজ্ঞাত ইশারায় দিনাজপুর পৌরসভাকে বার বার বাদ দেয়া হয়। রাজনৈতিক বিবেচনায় দিনাজপুর পৌরসভায় কোন উন্নয়ন বরাদ্ধ প্রদান করা হয়েছে হয়েছে কি না সেটা আপনাদের নিকটই প্রশ্ন রইলো।

 তিনি আরো বলেন, মেয়র ও কাউন্সিলর উভয়ে জনগনের ভোটে নির্বাচিত। উভয়েরই দায়িত্ব ও কর্তব্য সরকার কর্তৃক নির্ধারিত। কাউন্সিলরগণ স্ব স্ব ওয়ার্ডের বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহনসহ সামাজিক পরিবেশ রক্ষা করাই তাদের মুল দায়িত্ব। প্রত্যেক মাসিক সাধারণ সভায় তাদের বক্তব্য কার্যবিবরনীতে লিপিবদ্ধ করা হয় এবং সকল প্রকারের উন্নয়ন কার্যক্রম সভায় আলোচনার সিদ্ধান্তমতে বাস্তবায়ন করা হয়। সাবেক প্যানেল মেয়র আহামেদুজ্জামান মৃত্যুতে প্যানেল মেয়র ১ পদটি শুন্য হওয়ায় গত ২৩-০৭-২০১৯ তারিখের সভায় প্যানেল মেয়র ১ হিসাবে আবু তৈয়ব আলী দুলাল প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হন। তিনি প্যানেল মেয়র নির্বাচনের পুর্বে বিগত ৮ বছরে কোনদিন পৌর পরিষদের বিপক্ষে কথা বলেননি। বরঞ্চ পৌর পরিষদে সকল কাউন্সিলরদের সাথে তার মতামতকেও প্রাধান্য দেওয়া হতো এবং সকল প্রকার কাজ সুষ্ঠভাবে বাস্তবায়ন করা হতো। কিন্তু গত ২৩-০৭-২০১৯ তারিখের সভার কার্যবিবরনী পরবর্তি সভায় দৃঢ়করন হওয়ার পুর্বেই তার কার্যকলাপ সন্দেহজনক মনে হয়। দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই তিনি আমার প্রতি হয়রানীমূলক অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে এসে নিজেই ক্ষমতা দখলের জন্য সংবাদ সম্মেলনে প্রস্তাব রাখেন। যা অনৈতিক কার্যকলাপ এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের সামিল।

সংবাদ সম্মেলনের শেষ দিকে তিনি বলেন, নবনির্বাচিত প্যানেল মেয়র আবু তৈয়ব আলী দুলাল কর্তৃক আনিত অভিযোগসমুহ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। অযথা হয়রানীমূলক অপপ্রয়াস থেকে এবং বারবার মিথ্যা অভিযোগে ক্ষমতালিপ্সু নবনির্বাচিত প্যানেল মেয়রের চক্রান্তের হাত হতে পৌরবাসী যাতে ভুল বুঝতে না পারে সেজন্য সঠিক তথ্যাদি আপনাদের সামনে উপস্থাপন করেছি। সঠিক তথ্যাদি ও আপনাদের সুচিন্তিত লেখনির মাধ্যমে সর্বাত্মক সহযোগিতার হাত সম্প্রসারিত করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। এসময় তিনি বলেন, পৌরসভার উন্নয়ন কাজের জন্য বর্তমান নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি’র সহযোগিতায় তিন কোটি টাকা পাওয়া গেছে। অতিশিঘ্রই এই টাকা দিয়ে দিনাজপুর পৌরসভার উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে দিনাজপুরে কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিনিধি, পৌরসভার ১৫ কাউন্সিলরের মধ্যে ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মাসুদুল ইসলাম মাসুদ, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর শাহিন সুলতানা বিউটিসহ পৌরসভার বিভিন্ন শাখার শাখা প্রধান ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।