বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর বড়মাঠে আনুষ্ঠানিক বয়ানের মধ্য দিয়ে তাবলীগ জামাতের ইজতেমা শুরু

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর বড় মাঠে বৃহস্পতিবার (৩০ নবেম্বর) বাদ জোহর আনুষ্ঠানিক বয়ানের মধ্য দিয়ে তাবলীগ জামাতের তিন দিনব্যাপী ইজতেমা শুরু হয়েছে। উদ্বোধনী বয়ান পেশ করেন কাকরাইলের মুরব্বি মাওঃ আব্দুল মতিন। শনিবার জোহর নামাজের পর্বে আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে ইজতেমা শেষ হবে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দিনাজপুর সদর উপজেলাসহ জেলার ১৩ উপজেলা থেকে তাবলীগ জামাতের অনুসারীসহ ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ইজতেমা মাঠে সমবেত হন। জোহরের নামজের পূর্বেই ইজতেমার জন্য তৈরী মাঠ কানায় কানায় ভরে যায়। জোহরের নামাজ বড় জামাতের আদায় করার জন্য দিনাজপুর জেলা শহরের সর্বস্তরের মুসল্লি জোহর নামাজে শরিক হন। তবে শুক্রবার ও শনিবার দিনাজপুর বড়মাঠ ও এর আশপাশের এলাকা ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের ভিড়ে ভরে যাবে বলে জানিয়েছেন তাবলীগ জামাতের মুরব্বিরা।

বেলা দেড়টায় জোহর নামাজ শেষে প্রায় আধা ঘন্টা বয়ান (আলোচনা) করেন কাকরাইলের মুরব্বি মাওঃ আব্দুল মতিন। এ সময় তিনি বলেন, কোন মানুষ যখন আল্লাহর দ্বীন শিখার জন্য ঘর থেকে বের হয়, তখন পৃথিবীর প্রতিটি প্রাণী তাঁর জন্য দোয়া ও মাগফিরাত কামনা করে। এজন্য সবাইকে দুনিয়ার ঝাামেলা হতে মুক্ত হয়ে আল্লাহর দ্বীন শিখার জন্য আল্লাহর পথে হওয়ান আহবান জানান তিনি।

সকালে ইজতেমা মাঠে দিনাজপুরের বিশিষ্ট আলেম ও তাবলীগ জামাজের মুরব্বি আলহাজ্ব মাওলানা মতিউর রহমান কাসেমী বলেন, তাবলীগ জামাত মানুষের মাঝে ইমানী জযবা (চেতনা) তৈরীর কাজ করছে। কিভাবে মানুষের মাঝে ইমানী চেতনা তৈরী হওয়ার যোগ্যতা পয়দা হয় সে কাজটিই করছে তাবলীগ জামাত।

দিনাজপুর তাবলীগ জামাতের আমির (জিম্মাদার) আলহাজ্ব মো. লতিফুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার বাদ জোহর আনুষ্ঠানিক বয়ানের পর বাদ আসর বয়ান করবেন মাওলানা মোঃ সোহেল, বাদ মাগরিক বয়ান করবেন মাওলানা মো. মোশাররফ হোসেন। এছাড়া শুক্রবার ও শনিবার শেষ দিনে কাকরাইলের মুরব্বি ও বাংলাদেশ তাবলীগ জামাতের জিম্মাদার মাওলানা মো. রবিউল হক মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বয়ান পেশ করবেন। তিনি জানান, শনিবার জোহর নামাজের পূর্বে আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে তিন দিনব্যাপী ইজতেমা শেষ হবে।

এদিকে সকালে ইজতেমা মাঠে দায়িত্বরত পুলিশের এসআই আবু সাঈদ রানা জানান, ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তার জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইজতেমা মাঠের চার পাশে মুসল্লিদের নিরাপত্তার জন্য ৬টি পুলিশ বক্স স্থাপন করা হয়েছে। পাশাপাশি রয়েছে রাব-পুলিশের সার্বক্ষনিক টহলদল। এছাড়া সাদা পোষাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ গোয়েন্দা বিভাগের লোকজন ইজতেমা মাঠে দায়িত্ব পালন করছেন।

উল্লেখ্য, দিনাজপুর বড়মাঠে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের পূর্বপাশের অংশে জেলার ১৩ উপজেলার তাবলীগ জামাতের সাথীদের নিয়ে তিন দিনব্যাপাী এই ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২ ডিসেম্বর শনিবার জোহর নামাজের পূর্বে আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে ইজতেমা শেষ হবে বলে জানিয়েছেন তাবলীগ জামাতের মুরব্বিরা।