সোমবার ২১ মে ২০১৮ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর সদরের পল্লীতে গৃহবধু লিমা হত্যাকারীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীতে এলাকাবাসীর বিশাল মানববন্ধন

এম আর মিজান॥ সদরের পল্লীতে গৃহবধু হত্যা পরবর্তী থানা মামলা গ্রহন না করা ও আসামীকে ধরে ছেড়ে দেয়ার প্রতিবাদে এবং হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে বিশাল মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। ১৮ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার কাউগাঁ মোড় সম্মূখ সড়কে এ বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সকাল সাড়ে ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধনে অচল হয়ে পড়ে পুরো এলাকা। মহাসড়ক অবরোধ থাকায় রাস্তার দু’ধারে আটকা পড়ে শত শত যানবাহন। মানববন্ধন থেকে এলাকাবাসী দাবী জানায়, অবিলম্বে মোছাঃ লিমা আক্তারের হত্যাকারী মোঃ মঞ্জুরুল ইসলাম বাবলাসহ সকল আসামীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, সদর উপজেলার কাউগাঁ সাহেবগঞ্জ হাটখোলা এলাকার লিয়াকত আলীর কন্যা মোছাঃ লিমা আক্তারকে  ১০ জানুয়ারী শ্বাসরূদ্ধ করে হত্যা করা হয়। আসামী মঞ্জুরুল ইসলাম বাবলার শেখপুরাস্থ বাসভবনে এ হত্যাকা- ঘটায়। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ আসামী বাবলাকে আটক করলেও অদৃশ্য কারণে পরের দিন ছেড়ে দেয়। এলাকাবাসী বাবলাসহ অপরাপর আসামীদের নামে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় একটি অভিযোগ প্রদান করে। কিন্তু থানা মামলা নথিভুক্ত করেনি। ফলে বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে এলাকাবাসী। পরে আদালতের মাধ্যমে মামলা হলেও এখনও আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। বিভিন্ন হুমকি-ধামকি প্রদান করছে। এজন্য এলাকাবাসী মানববন্ধনের মাধ্যমে আগামীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছে। শান্তিপূর্ণ এসব কর্মসূচীর মাধ্যমে দাবী আদায় না হলে পরবর্তীতে আরও কঠোর কর্মসূচী প্রদান করা হবে বলে মানববন্ধনে বক্তারা উল্লেখ করেন। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন ৫নং শশরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম, ৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আনাপ, ৮ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার সামসুল হক, ইউপি মেম্বার খলিলুর রহমান, ডাঃ সামসুল হুদা, লিয়াকত আলী, মঞ্জুরুল ইসলাম. আব্দুর রহমান, আমিন শাহা, বাবুসহ প্রায় ৫’শতাধিক এলাকাবাসী মানববন্ধনে অংশ নেন।
উল্লেখ্য, প্রায় ৯ মাস আগে লিমা ও মঞ্জুরুলের বিবাহ হয়। এরপর থেকেই বিভিন্ন সময় যৌতুকের চাপ দেয় মঞ্জুরুল। অভাবী বাবার দিকে তাকিয়ে লিমা যৌতুক দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। কিন্তু পাষন্ড মঞ্জুরুল এতে আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে। সে লিমার উপর অকথ্য নির্যাতন চালাতে শুরু করে। একপর্যায়ে  ১০ জানুয়ারী ওই হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটল।