সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর হাবিপ্রবিতে বর্ণিল আয়োজনের মধ্যদিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত

মোঃ নুর ইসলাম ॥ দিনাজপুরে ব্যাপক আয়োজনের মধ্যদিয়ে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হয়েছে।

১৯৯৯ সালের ১১ সেপ্টেম্বর এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘোষণা দেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। বর্তমান ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম-এর উদ্যোগে এবারই আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালন করা হলো। এ উপলক্ষে সকাল সাড়ে নয়টায় প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় সঙ্গীতের সুরের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা, জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম । পতাকা উত্তোলনের পর শান্তির প্রতীক পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে দেন তিনি। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশের সার্বিক মঙ্গল কামনায় মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত শেষে উপাচার্যের নেতৃত্বে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাস ও এর সামনের মহাসড়ক প্রদক্ষিন করে আবার প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রা শেষে ভাইস-চ্যান্সেলর উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বক্তব্য প্রদান করেন। এ সময় তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় দিবস একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অনেক গুরুপ্তপূর্ণ একটি দিন। তিনি বলেন, তেভাগা আন্দোলনের জনক হাজী মোহাম্মদ দানেশ-এর নামে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয়েছে, আজকের দিনে তাকেও আমরা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র হালদার, রেজিস্ট্রার প্রফেসর ডা. মো. ফজলুল হক, পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও ওয়ার্কস শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মোস্তাফিজুর রহমান,  কৃষি অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ভবেন্দ্র কুমার বিশ^াস, পোস্টগ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফাহিমা খানম, প্রক্টর প্রফেসর ড. মো. খালেদ হোসেন, আইআরটি’র পরিচালক প্রফেসর ড. মো. তারিকুল ইসলাম, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর মো. রাজিব হাসান, শেখ রাসেল হলের হল সুপার প্রফেসর ড. ইমরান পারভেজসহ বিশ^বিদ্যালয়ের সকল স্তরের শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে দুপুর ১২ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬ তলা ছাত্রী হলের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করা হয়। হাবিপ্রবির ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন। এ সময় তিনি বলেন, এই হলের নির্মান কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে, দ্রুততম সময়ে এর কাজ শেষ করা হবে। তিনি বলেন, এই হলের উদ্বোধন হলে ছাত্রীদের ভোগান্তি অনেকটা কমবে। পাশাপাশি ১০ তলা বিশিষ্ট আরও দুটি ছাত্র ও একটি ছাত্রী হল তৈরি করা হবে বলেও জানান তিনি।